ব্রেকিং:
রাইসির মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা শান্তিপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণে বুদ্ধের শিক্ষা অনুসরণ করা প্রয়োজন ফেনীর একরাম হত্যাকাণ্ড ১ দশক পরও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৭ আসামী পলাতক মেয়রের সামনেই কাউন্সিলরকে জুতাপেটা করলেন আলোচিত সেই চামেলী আজ ঢাকায় আসছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা রাইসির মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক নোয়াখালীতে মাথাসহ হরিণের ৩০ কেজি মাংস উদ্ধার হাসপাতাল নয় যেন গারদখানা সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে রাইসির হেলিকপ্টার, কোনো আরোহী বেঁচে নেই রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের ধ্বংসাবশেষের ছবি-ভিডিও প্রকাশ্যে আজ থেকে ৬৫ দিন সামুদ্রিক জলসীমায় মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ নোয়াখালীতে শতকোটি টাকার জমি উদ্ধারের পর প্রকৌশলী বদলি লক্ষ্মীপুরে বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদি অধ্যক্ষ মামুনুর রশীদ কাঁচা মরিচের কেজি ছাড়াল ২০০ টাকা এক জালে মিলল ৫৫০০ পিস ইলিশ, ১৭ লাখে বিক্রি ছোট ভাইকে ‘কুলাঙ্গার’ বললেন মির্জা কাদের শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন বাংলাদেশের পুনর্জন্ম ফেনীতে কিশোর গ্যাং পিএনএফের প্রধানসহ গ্রেফতার ৫ সরকারি সফরে যুক্তরাষ্ট্র গেলেন সেনাপ্রধান
  • বুধবার ২২ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪৫

প্রতিবন্ধকতা জয় করে হুমায়ূন কবির গড়ে তুলেছেন মাল্টি ফার্ম

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ মে ২০২৩  

ছোট্ট সবুজ সুন্দর গ্রাম মিথিলাপুর।  নিরিবিলি পরিবেশ আর গাছগাছালী ঘেরা কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার এ গ্রামটিতে বাস করেন মোঃ হুমায়ূন কবির। ৪৫ বছর বয়সি এ মানুষটি দীর্ঘদিন চাকরি করেছেন বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে। কিন্তু হঠাৎই স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে তাঁর একটি হাত প্যারালাইজড হয়ে যায়। কথা বলতে সমস্যা হয়, হাঁটতে পারেন না বেশিক্ষণ। কিন্তু শারীরিক এই প্রতিবন্ধকতাকে পাশ কাটিয়ে তিনি নিজ গ্রামে গড়ে তুলেছে বহুমুখী এগ্রো ফার্ম। ফার্মে গরু-ছাগল লালন-পালন ছাড়াও তিনি পুকুরে চাষ করেন মাছ, জমিতে শাক-সবজি এবং গরুর খাবার ঘাস। চার বছর আগে মাত্র দুই লাখ টাকার পূজি নিয়ে ফার্ম শুরু করা হুমায়ূনের খামারের পূজি এখন প্রায় ২৫ লাখ টাকা।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে অনার্স মাস্টার্স সম্পন্ন করে প্রায় ১৩ বছর তিনটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে চাকুরি করেছেন হুমায়ূন।  ২০১৮ সালের শুরুর দিকে শারীরিক প্রতিবন্ধকতার শিকার হয়ে চাকুরি হারানোর পর স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ফিরে আসেন গ্রামের বাড়িতে। কিন্তু সেখানে আর বসে থাকেননি। নিজ উদ্যোগে এবং বন্ধুদের সহায়তায় শুরু করেন খামারের কার্যক্রম। প্রথমে দুই লাখ টাকা পুজি নিয়ে একটি গরু ও ছাগল কিনে পরীক্ষামূলক খামার চালু করেন। এরপর লাভের টাকায় ধীরে ধীরে বাড়াতে থাকেন খামারের পরিধি। ‘টাটকা এগ্রো ফার্ম’ নামে তার খামারের আওতাধীন এখন রয়েছে ১১টি গরু, মাছ চাষের তিনটি পুকুর। এছাড়াও পৈত্রিক ৩৩ শতক জমিতে শাকসবজি এবং ৪০ শতক জমিতে ঘাস চাষ করছেন তিনি। এসবজ কাজে তাকে সহায়তা করছেন তার ভাই ও বন্ধুরা।
প্রতিবন্ধকতাকে জয় করা হুমাযূন কবিরের এ সাফল্যে অভিভূত তার বন্ধু ও এলাকাবাসী। তারা বলছেন, হুমায়ূন কবির আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। দুর্ঘটনার পর থেমে না থেকে সে যেভাবে এগিয়ে চলেছেÑ তা সত্যিই অতুলনীয়।
হুমায়ূন কবিরের প্রবাসী বন্ধু মুমিনুর রশিদ বলেন, সে আগে ভালো চাকরি করতো। কিন্তু হঠাৎই একটি স্ট্রোকে সে চলাচলের স্বাভাবিক সক্ষমতা হারায়। কিন্তু এই প্রতিকূল অবস্থার মাঝে হুমায়ূন থেমে থাকেনি। তার অদম্য ইচ্ছা শক্তি নিয়ে এগিয়ে চলেছে। বন্ধু হিসেবে আমরা তার জন্য গর্ব করি। তার আগামী জীবনে সফলতা কামনা করি।
হুমায়ূন কবিরের প্রতিবেশী জামাল উদ্দিন বলেন, তাঁর হাটতে সমস্যা হয়, কথা বলতে সমস্যা হয়, এক হাত প্যারালাইজড। এই অবস্থার মধ্যে তিনি পুকুরে মাছ চাষ করছেন, জমিতে শাকসবজি ও ঘাষ চাষ করছেন এবং খামারে গরু লালন পালন করছেন। এটা সত্যিই অসামান্য একটা ব্যাপার। মিথিলাপুরের মানুষের জন্য তিনি অনুপ্রেরণা।
প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে এগিয়ে চলা দুই সন্তানের জনক হুমায়ূন কবির জানান, দেশের স্বনামধন্য কৃষি ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজের অনুপ্রেরণায় তিনি গড়ে তুলেছেন এই খামার। পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা পেলে খামারের পরিধি আরো বাড়াতে চান, স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যেতে চান আরো অনেক দূর।