ব্রেকিং:
মিয়ানমার সীমান্তের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ রাখাইনে বড় সংঘাতের আশঙ্কা, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ একদিনে পদ্মাসেতুর আয় পৌনে ৫ কোটি টাকা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতাল পরিদর্শনে শেখ হাসিনা ‘গ্লোবাল কোয়ালিশন ফর সোশ্যাল জাস্টিসে’ যোগ দিলো বাংলাদেশ রেলস্টশন-বাস টার্মিনালে ঘরমুখো মানুষের ঢল রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্র ও গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেফতার ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সেতু চালু হচ্ছে সেপ্টেম্বরে নোয়াখালীর কবিরহাটে ৩৬ দিন পর লাশ উত্তোলন বসুরহাটের বাজেট ঘোষণা করলেন মেয়র কাদের মির্জা প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে বাবা-মা রাজি না হওয়ায় আত্মহত্যা নানা সংকটে হুমকিতে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্পনগরী নোয়াখালীতে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর নামে পাচার হয়েছে ৩৫শ’ কোটি টাকা নেত্রকোণায় কাঁচা ঘাস খেয়ে ২৬ গরুর মৃত্যু প্রত্যেকটা গ্রামকে আমরা নাগরিক সুবিধায় নিয়ে আসব ফেনীর সোনাগাজীতে চাঁদা আদায়কালে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ৮ ফেনীর সোনাগাজীর চরাঞ্চলে বজ্রপাতে প্রাণ গেলো ১২ গবাদিপশুর ফেনীর সোনাগাজীতে আযান দেওয়ার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ফেনীর ফুলগাজীতে ফুটপাত মুক্ত করতে নির্দেশনা
  • রোববার ১৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২ ১৪৩১

  • || ০৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

হাইমচর উপজেলার কর্মচারী তাজুল ইসলাম ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ মে ২০২৩  

চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলা নিবাহী অফিসের তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া নামেরকে এই কথিত কর্মচারী।

সে হাইমচর উপজেলায় চাকুরী করার প্রভাব খাটিয়ে অসহায় ও সাধারণ মানুষের জমি আত্মসাৎ করে এবং নামে বেনামে আত্মীয় স্বজনের নামে জাল দলিল করে থাকেন। এছাড়া ভূমি আত্মসাৎ, প্রভাব খাটিয়ে খারিজ খতিয়ান সৃজন করাসহ নিরীহ মানুষদের সর্বহারা ও ভূমি ছাড়া করে থাকেন। হাইমচর উপজেলায় তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া নামীয় কথিত কর্মচারী ও তাহার শ্বশুর সহিদ মিজির বিরুদ্ধে চাঁদপুর আদালতে কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে।

এছাড়া তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া নামীয় কথিত কর্মচারী ও তাহার শ্বশুর সহিদ মিজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য চাঁদপুর জেলা প্রশাসক ও হাইমচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগীরা।

শাহজাহান দেওয়ান, সিরাজ মিজিসহ কয়েকজন জানায়, তাজুল ইসলাম হাইমচর থানার উত্তর আলগী মৌজার ৯০৬ নং দলিল জাল ও খতিয়ান (১১৫৯) সৃজন করে তার শ্বশুড় শহিদ মিজির নামে খারিজ করে। তবে জায়গার প্রকৃত মালিক হলেন সিরাজ মিজি।

এ বিষয়ে হাইমচর আমলী আদালতে (১৮১/২০২২) সিরাজুল ইসলাম মিজি বাদী হয়ে শহিদ মিজিসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এছাড়া বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে (১২/২০২৩) বাদী হয়ে মোঃ শাহজাহান দেওয়ান বিবাদী তাজুল ইসলাম ভূঁইয়াকে প্রধান আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

তাজুল ইসলাম ভূঁইয়াসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে ল্যান্ড সার্ভিস ট্রাইবুনালসহ আদালতে ৩ মামলা চলমান রয়েছে। তাছাড়া তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া ১১৪০ খতিয়ানে ১ একর ১০ শতাংশ ৭০ পয়েন্ট জমি তার শ্বশুড় মোঃ শহিদ মিজির নামে ভুয়া খারিজ সৃজন করেন। তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া হাইমচর উপজেলায় চাকুরী করার প্রভাব খাটিয়ে অসহায় ও সাধারণ মানুষের জমি আত্মসাৎ করে এবং নামে বেনামে আত্মীয় স্বজনের নামে জাল দলিল করে।

এছাড়া ভূমি আত্মসাৎ, প্রভাব খাটিয়ে খারিজ খতিয়ান সৃজন করাসহ নিরীহ মানুষদের সর্বহারা ও ভূমি ছাড়া করে থাকে। হাইমচর উপজেলায় তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া নামীয় কথিত কর্মচারী ও তাহার শ্বশুর সহিদ মিজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য চাঁদপুর জেলা প্রশাসক ও হাইমচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগীরা।