ব্রেকিং:
নোয়াখালীর কবিরহাটে ৩৬ দিন পর লাশ উত্তোলন বসুরহাটের বাজেট ঘোষণা করলেন মেয়র কাদের মির্জা প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে বাবা-মা রাজি না হওয়ায় আত্মহত্যা নানা সংকটে হুমকিতে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্পনগরী নোয়াখালীতে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর নামে পাচার হয়েছে ৩৫শ’ কোটি টাকা নেত্রকোণায় কাঁচা ঘাস খেয়ে ২৬ গরুর মৃত্যু প্রত্যেকটা গ্রামকে আমরা নাগরিক সুবিধায় নিয়ে আসব ফেনীর সোনাগাজীতে চাঁদা আদায়কালে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ৮ ফেনীর সোনাগাজীর চরাঞ্চলে বজ্রপাতে প্রাণ গেলো ১২ গবাদিপশুর ফেনীর সোনাগাজীতে আযান দেওয়ার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ফেনীর ফুলগাজীতে ফুটপাত মুক্ত করতে নির্দেশনা নতুন সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান নোয়াখালীর সুবর্ণচরের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন নোয়াখালীর চাটখিলে চেম্বারে রোগীকে ধর্ষণের অভিযোগ কাদের মির্জার প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট হয়ে পদ হারাল ছাত্রদল নেতা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটিতে হেলথ প্রোভাইডার মসজিদ থেকে জুতা চুরি করায় প্রবাসীকে ফেরত পাঠাচ্ছে কুয়েত! ভদ্র স্বভাবের বিগ বসের অপর নাম ‘শিক্ষিত গরু’, দাম ৫ লাখ রাজার পছন্দের খাবার আপেল-মাল্টা-পেয়ারা, ওজন ১১ মণ
  • শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

ভারতে দুর্বল সরকার, আওয়ামী লীগ-বিএনপি উভয়ই খুশী

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৬ জুন ২০২৪  

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হচ্ছে। এক্সিট পোলে যেমনটি মনে করা হয়েছিল যে, নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপি বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে এবং নিশ্চিতভাবেই সরকার গঠন করতে যাচ্ছে বাস্তবে তেমনটি ঘটেনি। এখন পর্যন্ত নির্বাচনের যে ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে তাতে বিজেপি হয়তো দলগতভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে কিন্তু হয়তো এককভাবে ২৭২ এর ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছতে পারবে না। তাকে এনডিএ জোটের অন্যান্য শরিকদের সহায়তায় সরকার গঠন করতে হবে। ফলে গতবারের মতো এবার বিজেপি একটি শক্তিশালী সরকার গঠন করতে পারবে না। সরকার পরিচালনার ক্ষেত্রে নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহ একক সিদ্ধান্ত সব ক্ষেত্রেই বাস্তবায়িত হবে এমন গ্যারান্টি দেয়া যায় না। অনেক ক্ষেত্রে শরিকদের চাপ এবং আবদার মানতে হবে ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য। 

ভারতের রাজনৈতিক ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, যেখানে এরকম ঝুলন্ত সরকার হয়েছে, নাজুক সরকার গঠিত হয়েছে, দুর্বল সরকার গঠিত হয়েছে সেখানেই মেয়াদপূর্ণ করতে পারেনি বরং মধ্যবর্তী নির্বাচন অবধারিতভাবে সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। এবার ভারতের লোকসভা নির্বাচনের পর ভবিষ্যত কি হবে সেটার জন্য আমাদের আরো অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু ভারতে যে একটি দুর্বল সরকার গঠিত হতে যাচ্ছে সেটি নিশ্চিত। এ ধরনের দুর্বল সরকার গঠিত হওয়ার ফলে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের ভাবনা কি তা নিয়ে আওয়ামী লীগ এবং বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে কথা বলা হয়েছিল। 

এসমস্ত রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ এখনো ভোটের ফলাফল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চাইছেন। তারা মনে করছেন, ভারতে একটি দুর্বল সরকার গঠিত হওয়া বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক। আওয়ামী লীগ এ ধরনের গণতান্ত্রিক চর্চায় অখুশী নয়। 

আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, এর ফলে বাংলাদেশের বহুমাত্রিক লাভ হবে। বাংলাদেশ তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি সহ অন্যান্য দাবিগুলো আদায়ের ক্ষেত্রে ভারতের সঙ্গে আরও সহজ সংলাপ করতে পারবে। ভারত তার সরকার টিকিয়ে রাখার জন্য অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে ব্যস্ত থাকবে ফলে বাংলাদেশ চীনের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে ভারতের বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা পাবে না বলেও মনে করছেন আওয়ামী লীগের কোন কোন নেতারা। তাছাড়া এ ধরনের সরকার যখন গঠিত হবে তখন বাংলাদেশের সঙ্গে অমীমাংসিত সমস্যাগুলো সমাধানে এবং বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে ভারত আরও বেশি মনোযোগী হবে এবং আরও ছাড়া দেবে বলেই মনে করে আওয়ামী লীগ। 

অন্যদিকে বিএনপিও মনে করে, ভারতে দুর্বল সরকার তাদের জন্য ইতিবাচক। বিশেষ করে বিজেপির যে বিএনপি নীতি তা সম্পূর্ণভাবে বিএনপির জন্য বিব্রতকর এবং অস্বস্তিকরও বটে। আর এ কারণেই বিএনপি সবসময় চেয়েছিল বিজেপি সরকার যেনো ক্ষমতায় না যেতে পারে এবং দুর্বল হয়। শেষ পর্যন্ত দুর্বল হওয়ার প্রেক্ষিতে বিএনপি মনে করে, এতে ভারত বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ কমিয়ে আনবে। কারণ বাংলাদেশের রাজনীতির ব্যাপারে ভারতের অন্যান্য রাজনৈতিক দলের যে ভিন্নমত আছে সেটিকে তারা শ্রদ্ধা করবে এবং সেটিকে গুরুত্ব দিতে হবে। তাছাড়া বাংলাদেশে একক একটি রাজনৈতিক দলকে সমর্থনের যে নীতি বিজেপি গ্রহণ করেছিল সেই নীতিতে তাদেরকে সমঝোতা করতেই হবে। 

বিএনপি এটিও মনে করে যে, বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে ভারত আরও মনোযোগী হবে এবং বহু দলের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করবে। অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে ভারত ব্যস্ত থাকার কারণে বাংলাদেশের রাজনীতির ব্যাপারে তাদের মাথা ঘামানো কমে যাবে। সবকিছু মিলিয়ে বাংলাদেশের ওপর ভারতীয় নজরদারি অনেক কমবে বলে মনে করছেন বিএনপির নেতারা। 

সব কিছু মিলিয়ে ভারতের নির্বাচন এবং সেখানকার ঘটনা প্রবাহ, সেখানকার নির্বাচন পরবর্তী পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে সবগুলো রাজনৈতিক দল। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ কোন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছে না। 

উল্লেখ্য, আগামী ৯ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য ভারত সফরের কথা রয়েছে। ভারতের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে তার আনুষ্ঠানিক বৈঠকেরও কথা রয়েছে। এখন দেখার বিষয় নির্বাচনের এই টাল মাটাল পরিস্থিতিতে সেই সফর কোন দিকে যায়।