ব্রেকিং:
রাইসির মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা শান্তিপূর্ণ সমাজ বিনির্মাণে বুদ্ধের শিক্ষা অনুসরণ করা প্রয়োজন ফেনীর একরাম হত্যাকাণ্ড ১ দশক পরও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৭ আসামী পলাতক মেয়রের সামনেই কাউন্সিলরকে জুতাপেটা করলেন আলোচিত সেই চামেলী আজ ঢাকায় আসছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা রাইসির মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক নোয়াখালীতে মাথাসহ হরিণের ৩০ কেজি মাংস উদ্ধার হাসপাতাল নয় যেন গারদখানা সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে রাইসির হেলিকপ্টার, কোনো আরোহী বেঁচে নেই রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারের ধ্বংসাবশেষের ছবি-ভিডিও প্রকাশ্যে আজ থেকে ৬৫ দিন সামুদ্রিক জলসীমায় মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ নোয়াখালীতে শতকোটি টাকার জমি উদ্ধারের পর প্রকৌশলী বদলি লক্ষ্মীপুরে বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদি অধ্যক্ষ মামুনুর রশীদ কাঁচা মরিচের কেজি ছাড়াল ২০০ টাকা এক জালে মিলল ৫৫০০ পিস ইলিশ, ১৭ লাখে বিক্রি ছোট ভাইকে ‘কুলাঙ্গার’ বললেন মির্জা কাদের শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন বাংলাদেশের পুনর্জন্ম ফেনীতে কিশোর গ্যাং পিএনএফের প্রধানসহ গ্রেফতার ৫ সরকারি সফরে যুক্তরাষ্ট্র গেলেন সেনাপ্রধান
  • বুধবার ২২ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪৫

উচ্চতর গণিতের প্রশ্নপত্রের সংখ্যায় গড়মিলের অভিযোগ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২২ মে ২০২৩  

চলমান এসএসসি পরীক্ষায় নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের চৌমুহনী মদনমোহন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে উচ্চতর গণিতের পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সংখ্যায় গড়মিলের অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। অভিভাবকদের অনেকে বলছেন, পরীক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট কেউ পরীক্ষার আগেই প্রশ্নপত্র সরিয়ে ফেলেছেন। বিষয়টি ওই কেন্দ্রের দায়িত্বরত ট্যাগ অফিসার অবগত থাকলেও এ বিষয়ে কিছুই জানেন না কেন্দ্র সচিব।

জানা যায়, চলমান এসএসসি পরীক্ষার আজ রোববার (২১ মে) বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগে সাধারণ বিজ্ঞান বিষয়ে ও বিজ্ঞান বিভাগের উচ্চতর গণিতের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরীক্ষায় চৌমুহনী মদনমোহন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের অধীনে মোট ৫৩৫ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। সেখানে বিজ্ঞান বিভাগের উচ্চতর গণিত বিষয়ে একজন ও একই কেন্দ্রের উপ-কেন্দ্র গণিপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ১২২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। চৌমুহনী মদনমোহন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে উচ্চতর গণিতের প্রশ্নপত্রের বান্ডিলে ১৬০টি প্রশ্নপত্র থাকার কথা থাকলেও সেখানে ১৫৮টি প্রশ্নপত্র ছিল বলে জানা যায়। বাকি দুটি প্রশ্নপত্রের কোনো হদিস পাওয়া যায়নি।

চৌমুহনী মদনমোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও একই কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্র সচিব মাহবুবুর রহমান তারেকের কাছে প্রশ্নপত্রের সংখ্যার গড়মিলের জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'এ ধরনের কোনো ঘটনা নেই। আপনাদের কাছে কে অভিযোগ করেছে? এটা উদ্দেশ্যমূলকভাবে কেউ করতে পারে। আমার কেন্দ্রে কখনো প্রশ্ন কম ছিল না, আজও নেই। আমার একটা মর্যাদা আছে, প্রতিষ্ঠানের একটা ভাবমূর্তি আছে। এগুলো নষ্ট করতে কেউ এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে।’

চৌমুহনী মদনমোহন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা ট্যাগ অফিসার ও বেগমগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, প্রশ্নপত্র যেগুলো কক্ষে পাঠানো হয় সেখানে গণনায় কম হতে পারে, প্যাকেটে কম-বেশি হতে পারে। বিজিপ্রেস থেকেও এ ভুল হতে পারে। সে ধরনের কিছু হয়েছে। মূল গণনার মধ্যে দুটি কম পাওয়া গেছে। ১৬০টি থাকার কথা থাকলেও ১৫৮টি ছিল। তবে বাকি দুটি প্রশ্ন কোথায় তা এখনো নিশ্চিত নই। অতিরিক্ত প্রশ্ন ইউএনও স্যারের হেফাজতে রাখা হয়েছে। উনি এখন মিটিংয়ে আছেন। উনি মিটিং থেকে এলে সেগুলো গুনে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

প্রশ্নপত্রের গড়মিলের বিষয়ে জানতে চাইলে বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ইয়াসির আরাফাত বলেন, প্রশ্নপত্রের সংখ্যায় গড়মিল থাকার একটা খবর পেয়েছি। আমি ট্যাগ অফিসার থেকে রিপোর্ট নিচ্ছি। রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।