ব্রেকিং:
কুমিল্লা সমাবেশে রুমিনের মোবাইল ছিনতাই করল যুবদল কর্মী হাইমচরে নৌকার পক্ষে প্রচারণায় মাঠে ডা:টিপু ও মেয়র জুয়েল চাঁদপুর শহরের গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আজ বিশেষ মুনাজাতের মধ্যে শেষ হচ্ছে চাঁদপুর জেলা ইজতেমা মতলব উত্তর ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ রামপুরে বিষ প্রয়োগে অসহার কৃষকের মাছ নিধন ‘গুসি শান্তি পুরস্কার’ পেলেন শিক্ষামন্ত্রী মতলবের ধনাগোদা নদীতে কচুরিপানা জটে নৌ চলাচল বন্ধ ৩৫ বছরে শৈশবের স্বাদ, হতে চান উচ্চশিক্ষিত লক্ষ্মীপুরে ছাত্রদলের ১৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দক্ষিণ আফ্রিকায় নোয়াখালীর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল ২ তরুণের মুরাদনগরের সিদল যাচ্ছে বিদেশে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীসহ ২ জনের মৃত্যু যোগাযোগ সম্প্রসারণে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় আমিরাত বঙ্গবন্ধু টানেলে গাড়ি চলবে জানুয়ারিতে বিদেশিদের মন্তব্যে বিরক্ত সরকার আমনের বাম্পার ফলন রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আইওআরএ মন্ত্রীদের সাক্ষাৎ
  • রোববার   ২৭ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৩ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ভারপ্রাপ্তের ভারে ন্যুয়ে পড়েছে হাতিয়া উপজেলা কৃষি অফিস

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৭ নভেম্বর ২০২২  

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তাসহ ১৫টি পদ শুন্য রয়েছে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা কৃষি অফিসে। এতে মাঠে তদারকির অভাবে ব্যাহত হচ্ছে কৃষি উন্নয়ন। জনবল সংকট থাকায় নেই বাজার মনিটরিং । এর ফলে কৃষি প্রণোদনা, বোরো মৌসুমে সার ব্যবস্থাপনায় দেখা দিয়েছে সংকট।

কৃষি অফিস জানায়, হাতিয়া উপজেলায় ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় প্রায় ৮৮হাজার হেক্টর আবাদি জমি রয়েছে। এর মধ্যে বর্তমানে ৮০ হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করা হয়েছে। ৩ হাজার ৫শত হেক্টর জমিতে করা হয়েছে বিভিন্ন সবজি চাষ। এছাড়া মৌসুমে আলু, খেসারী ডাল ও মুগডাল চাষে উপজেলার চাষিরা অনেক এগিয়ে রয়েছে।

হাতিয়া একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হওয়ায় বিভিন্ন সময় ঝড় জলোচ্ছাস ও বন্যায় কৃষিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়। এই বছর সিত্রাং এ ৬ হাজার ১শত ৭৫ হেক্টর জমির ধান ও রবী শষ্য সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া ঝড়ে , রোগ ব্যাধীতে আংশিক ক্ষতি হওয়া এসব ফসল উৎপাদনে কৃষকদের নির্ভর করতে হয় উপজেলা কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তাদের উপর। মাঠ পর্যায়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা কৃষকদের মাঠে গিয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

হাতিয়ার দক্ষিনে বঙ্গোপসাগরের কূলঘেসে অবস্থান নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়নের। এখানে আবাদি জমি রয়েছে প্রায় ১৩ হাজার ১শত ৬১ হেক্টর। কিছু রবী শষ্য চাষ করা হলেও মুলত ধান হলো এই ইউনিয়নের চাষিদের প্রধান উৎপাদিত পন্য। এখানে কৃষকদের দেখভাল করার জন্য উপ-সহকারী কৃষিকর্মকর্তার পদ রয়েছে ৩টি। এর মধ্যে দুইটি পদ দীর্ঘদিন থেকে শুন্য রয়েছে। বর্তমানে একজন কৃষি কর্মকর্তা দেখভাল করছেন নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়ন।

নিঝুমদ্বীপের ২ নং ওয়ার্ডের কৃষক ছালা উদ্দিন জানান, তিন একর জমিনে আমন ধান চাষ করেছেন। অস্বাভাবিক জোয়ারে প্লাবিত হওয়ায় দুইবার রোপন করতে হয়েছে এসব ধান। এর পর লোনাই ও পোকায় আক্রমন করে। কিন্তু অন্যান্য ইউনিয়নের মত এখানে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা না থাকায় নিজেদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে খেতের পরিচর্যা করতে হয়েছে।

এই ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিন জানান, বিশাল এই ইউনিয়নর কৃষকদের বিভিন্ন সমস্যা তিনি দেখে থাকেন। মাঝে মধ্যে কৃষকরা মোবাইলে সেবা নিয়ে থাকেন। তবে ইউনিয়নের সব ওয়ার্ডে মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় সেবা দিতে কিছুটা সমস্যা হয়। তিনিসহ তিনটি ব্লকে তিনজন কর্মকর্তা থাকার কথা থাকলেও তিনি সবকটি ব্লকের দায়িত্ব পালন করেন একা।
শুধু মাঠে নয়, জনবল সংকট রয়েছে উপজেলা কৃষি অফিসে। সবশেষ ২০২১ সালের জুন মাসে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার বদলী হওয়ার পর থেকে এই পদটি শুন্য রয়েছে। এছাড়া দীর্ঘদিন থেকে শুন্য অতিরিক্ত উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার পদটি। দুই জন কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা এখন উপজেলার সকল বিষয় দেখভাল করেন। এর মধ্যে সিনিয়র একজন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়া মাঠ পর্যায়ে ৩৭ জন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার মধ্যে ১৫টি পদ শুন্য রয়েছে।
উপজেলা কৃষি অফিসের অনেকগুলো কাজের মধ্যে সার ব্যবস্থাপনা একটি উল্লেখযোগ্য কাজ। এখান থেকে সারের মূল্য নির্ধারন ও মনিটরিং করা হয়। কিন্তু হাতিয়াতে সরকারী ভাবে ২২টাকা সারের মূল্য নিধারন করা হলেও বিভিন্ন বাজারের ২৫-৩০ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা যায়।

কৃষকরা জানান, সরকারী ভাবে সারের মূল্য নির্ধারন করে দেওয়া হলেও হাতিয়াতে ডিলার ও খুচরা বিক্রেতারা তা কখনো মেনে চলেন না। এখানে পরিবহন খরচ বেশি দেখিয়ে যে যার মত করে মূল্য নিয়ে থাকেন। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে তেমন একটা মনিটরিং করা হয় না।

এসব বিষয়ে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন সবুজ বলেন, উপজেলা কৃষি অফিস ও মাঠ পর্যায়ে কিছু কর্মকর্তার পদ শুন্য রয়েছে। এসব পদে জনবল নিয়োগের জন্য লেখিতভাবে জানানো হয়েছে। তকে কৃষকদের সেবা দিতে মাঠ কর্মকর্তার বাহিরেও উপজেলা কৃষি অফিসের লোকজন সব সময় তৎপর থাকেন। সার মনিটরিং এর ব্যাপারে অভিযোগ পেলে আমরা ব্যবস্থা নেব।