ব্রেকিং:
ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য নিকলীর বিকল্প বিজয়নগর বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গোৎসব সম্পন্ন প্রশংসায় ভাসছেন নোয়াখালী এসপি দল থেকে বিদায় নেওয়ার জন্য আমি প্রস্তুত : শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বিকেলে কুমিল্লায় চেয়ারম্যানের গাড়িতে গুলি আফ্রিকায় শান্তিরক্ষা মিশনে প্রাণ গেল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জসিমের নভেম্বরের শেষের দিকে জাপান সফর করবেন প্রধানমন্ত্রী টিকার বুস্টার ডোজ পেলেন সাড়ে ৫ কোটির বেশি মানুষ সন্ধ্যার মধ্যে ন্যাশনাল গ্রিড চালু করার চেষ্টা করছি সরকারি সফরে সুইজারল্যান্ড যাচ্ছেন সেনাবাহিনী প্রধান ঢাকায় আসছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান মোবাইলের লক খুলতে গিয়েই ধরা পড়ল ডাকাত প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরেছেন সুবর্ণচরে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে বসতভিটা দখলের অভিযোগ দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৩ মাস বাড়বে না ভোজ্যতেলের দাম টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ টার্মিনাল ছাড়া মহাসড়কে টোল আদায় করা যাবে না যৌনপল্লী চালান বিজেপি নেতা!
  • শনিবার   ০৮ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ২৩ ১৪২৯

  • || ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

বাবাকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা, মেয়ে-জামাই কারাগারে

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে আবুল কাশেম মোল্লা নামে এক বৃদ্ধকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে মেয়ে জেসমিন আক্তার ও জামাতা পেয়ার আহম্মেদকে আটক করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে নিহতের ছেলে শাহীন আলম বাদী হয়ে বোন ও ভগ্নিপতির বিরুদ্ধে নাঙ্গলকোট থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

জানা যায়, উপজেলার তুলাতুলি গ্রামের মৃত ইব্রাহিমের ছেলে নিহত আবুল কাশেম মোল্লার ৬ মেয়ে ও এক ছেলে সন্তান রয়েছে। ছেলে শাহীন আলম দীর্ঘ দিন যাবৎ চট্টগ্রামে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছেন। মা-বাবার সঙ্গে তার তেমন কোনো যোগাযোগ নেই। 

নিহত আবুল কাশেম মোল্লা বাড়িতে আধাপাকা একটি ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করে অর্থ সংকটে পড়েন। পরে তার মেয়ে ফরিদা আক্তারের কাছে বসত বাড়ির  দুই শতক জমি বিক্রি করেন। বুধবার বিকেলে নাঙ্গলকোট সাবরেজিস্ট্রি অফিসে জমি দলিল করে দিয়ে বাড়িতে গেলে কেন জমি বিক্রি করেছে এ ক্ষোভে অপর মেয়ে জেসমিন আক্তার তার বাবা আবুল কাশেম মোল্লাকে এলোপাতাড়ি কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। গুরুতর আহত আবুল কাশেম মোল্লাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। 

অভিযুক্ত ঘাতক জেসমিন আক্তারকে প্রথমে একই ইউপির বেল্টা গ্রামের এক প্রবাসীর কাছে বিয়ে দেন। ওই সংসারে তার ১৩ ও ১৫ বছরের ২ ছেলে সন্তান রয়েছে। গত ৫ বছর আগে পারিবারিক কলহে ওই স্বামীকে তালাক দেন জেসমিন। পরে গত ২ মাস আগে তার বিয়ে হয় মন্তলী গ্রামের মোহাম্মদের ছেলে পেয়ার আহম্মদের সঙ্গে। জেসমিনের স্বামী পেয়ার আহম্মদ তার ভাইকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় কয়েক বছর আগে তাকে বাড়ি ছাড়া করে গ্রামবাসী। 

এ ঘটনায় বুধবার রাতে পুলিশ নিহতের মেয়ে জেসমিন আক্তার, তার স্বামী পেয়ার আহমেদ, বড় মেয়ে রিনা আক্তার ও নিহতের স্ত্রী ফিরোজা বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ঘটনার সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় বড় মেয়ে রিনা ও তার মা ফিরোজা বেগমকে ছেড়ে দেয়া হয়।

নাঙ্গলকোট থানার ওসি ফারুক হোসেন বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। মেয়ে জেসমিন আক্তার ও তার স্বামী পেয়ার আহম্মদকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।