ব্রেকিং:
বেনাপোল দিয়ে এল আরও ২০০ টন অক্সিজেন আশ্রয়ণ প্রকল্পে শিশুপার্ক উদ্বোধন ও ত্রাণ বিতরণ স্কিপিং রোপে বিশ্ব রেকর্ড করলেন ঠাকুরগাঁওয়ের রাসেল প্রধানমন্ত্রীর ফেলোশিপ পাবেন ৫৫ ব্যক্তি কেন মানুষ প্রথম প্রেম ভুলতে পারে না বৃষ্টিপাত নিয়ে আজ যে দুঃসংবাদ জানালো আবহাওয়া অফিস আমরা এক দেশপ্রেমিক জননেতাকে হারালাম : প্রধানমন্ত্রী স্কুলে কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করলো পাকিস্তান ধারণার চেয়েও ভয়ঙ্কর করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: সিডিসি আশপাশের শ্রমিকদের দিয়েই চলবে কারখানা হেলেনার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় আরেক মামলা সিনহা হত্যার এক বছর: ‘প্রদীপের’ নিচেই ছিল অন্ধকার বিশ্বব্যাপী করোনায় মুত্যু কমলেও বেড়েছে আক্রান্ত চালু হতে না হতেই রোগীদের দখলে দুই হাসপাতালের ১৪ আইসিইউ বিশ্বের সাইবার সিকিউরিটির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি যুক্তরাষ্ট্র: চী বিষ দিয়ে যুবককে হত্যা করলেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন নিয়মনীতিহীন আইপি টিভির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: তথ্যমন্ত্রী প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে বাফুফের তামাশা, শুরুর এক ঘণ্টা আগে স্থগিত জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকা ব্যক্তিরা টিকা পাবেন বিশেষ প্রক্রিয়ায় দর্শকশূন্য ব্যতিক্রমধর্মী ‘ইত্যাদি’ আজ
  • শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

লকডাউনে বন্ধই থাকবে গার্মেন্ট কারখানা

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২০ জুলাই ২০২১  

ঈদের একদিন পর ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত টানা ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। ওই লকডাউনে রপ্তানিমুখী গার্মেন্টসসহ অন্য সব শিল্পকারখানাও বন্ধ থাকবে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে। কিন্তু গার্মেন্টস মালিকরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগের মতোই কারখানা খোলা রাখার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেন প্রধানমন্ত্রীকে। তবে গার্মেন্টস মালিকদের ওই অনুরোধ সরকার রাখছে না। অর্থাৎ ঘোষিত লকডাউনে গার্মেন্টস শিল্পকারখানা বন্ধই থাকছে। বিশ্বস্ত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ঈদের পর শুরু হওয়া লকডাউনে খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন কিংবা প্রক্রিয়াজাতকরণ, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহন, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াকরণ এবং ওষুধ অক্সিজেন ও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প চালু থাকবে। গতকাল সোমবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। গতকাল সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দেশের সব গার্মেন্টস কারখানাসহ অন্য শিল্পকারখানাগুলো ঈদের ছুটি দিয়েছে।

চলতি বছরের আগে লকডাউনগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিল্পকারখানা খোলা রাখা হয়েছিল। এবারও লকডাউনে কারখানা খোলা রাখতে প্রধানমন্ত্রীকে গত বৃহস্পতিবার চিঠি দেন মালিকরা। চিঠির বিষয়ে গত শনিবার সরকার সিদ্ধান্ত জানাবে বলে কয়েকটি সূত্র জানিয়েছিল। সর্বশেষ গতকাল এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী কারখানা খোলা রাখার বিষয়ে সম্মত হননি বলে জানিয়েছেন এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। ফলে লকডাউনে গার্মেন্টস কারখানা বন্ধ থাকছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই

কর্মকর্তা আরও বলেন, করোনা যেভাবে দিনকে দিন ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে, তাতে সব কিছু বন্ধই রাখতে হবে। গার্মেন্টস কারখানা খুললে পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেবে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও এ বিষয়ে সরকারকে সতর্ক করেছে। ফলে কোনো অবস্থাতেই গার্মেন্টস কারখানা চালু রাখতে দেবে না সরকার।

এ প্রসঙ্গে জানতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামকে ফোন করলেও তিনি সাড়া দেননি। বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হোসেনকে ফোন করা হলে তিনি কোনো কথা বলেননি।