ব্রেকিং:
ডিপ্লোমা কোর্সের মেয়াদ নিয়ে আবারও বিতর্ক উত্তরায় প্রাণহানি: প্রধানমন্ত্রীর শোক নোয়াখালীতে জাতীয় শোক দিবস পালিত গাড়ি চালাচ্ছিলেন বরের বাবা, কারোই ফেরা হলো না বাসায় সরানো হলো গার্ডার, ৫ লাশ উদ্ধার টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ফেনী নদীতে জেলেদের জালে ধরা ৭ মণ ইলিশ উপকূলীয় ৭ উপজেলার উন্নয়নে মহাপ্রকল্প আগামী বছর থেকে সপ্তাহে ৫ দিন ক্লাস: শিক্ষামন্ত্রী শোক দিবস উপলক্ষে চাঁদপুরে ৫০ হাফেজকে খাবার দিল পুনাক অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রের মাছ ধরতে গিয়ে ট্রাক্টরে আটকে গেল কিশোর জমিতে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু রায়পুরে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, জামায়াত নেতা গ্রেফতার নবীনগরে ভাতিজার ঘুষিতে প্রাণ গেল চাচার সুইস ব্যাংকে তারেকের অ্যাকাউন্টে দেড় হাজার কোটি টাকা মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাত, প্রাণ গেল কৃষকের খালেদার কাল্পনিক জন্মদিন উদযাপন নিয়ে দ্বন্দ্বে বিএনপি প্রবাসীর স্ত্রীকে অচেতন করে নগ্ন ভিডিও ধারণ, গ্রেফতার ২ শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা
  • মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ২ ১৪২৯

  • || ১৮ মুহররম ১৪৪৪

কুমিল্লায় বৃষ্টিতেও কমেনি গরম

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৬ জুলাই ২০২২  

সারাদেশের মত কুমিল্লাতেও প্রচণ্ড রোদ ও গরমে নাকাল জনজীবন। কুমিল্লা আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, গতকাল শুক্রবার কুমিল্লায় তাপমাত্রা ছিলো ৩৪ দশমিক ৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস। তবে বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া তথ্য মতে, কুমিল্লায় শুক্রবার দিনে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস ছিলো। বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকায় যা ৪৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের সমান অনুভূত হয়। এর মধ্যে শুক্রবার সকালে এবং দুপুরে দুই দফায় বৃষ্টিপাত হলেও গরম কমেনি। সারাদিন রোদে শহরে সাধারণ মানুষের চলাচল কম থাকলেও বৃষ্টির পর তা বেড়ে যায়। কুমিল্লা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা ঈসমাইল ভুইয়া জানান, এরকম তাপমাত্রা ও গরম আরো দু’ একদিন থাকবে। ১৮ তারিখের পর থেকে তাপমাত্রা কমতে থাকবে। আর এ কয়দিন বিচ্ছিন্ন বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এদিকে গত রবিবার থেকেই ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে কুমিল্লার তাপমাত্রা। বৃহস্পতি ও শুক্রবার তাপমাত্রা ছিলো অসহনীয়। প্রচন্ড রোদের সাথে দাবদাহ মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপনে ব্যঘাত ঘটায়। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন হিসেবে রাস্তাঘাটে লোকজন কম থাকলেও গরম ও রোদের কারণে একসময় রাস্তা-ঘাট প্রায় জনশুণ্য হয়ে পরে। দুপুর দুইটার পর থেকে বিকেল পর্যন্ত পরিবেশ অসহ্য হয়ে উঠে। এমন আবহাওয়ায় সবচেয়ে বিপদে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। প্রচন্ড তাপের মধ্যে খেটে খাওয়া মানুষের কাজকর্ম কঠিন হয়ে উঠে।
শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লা নগর উদ্যানের পাশে গাছতলায় বিশ্রাম নিতে থাকা প্যাডেল রিকশা চালক রবিউল জানান, এত গরম! শ্বাস নিতেও কষ্ট হয়। এর মধ্যে গায়ে খাটা অসম্ভব। রোদ যেমন তেমন, ভ্যাপসা গরমে জীবন চলে না।
আরেক রিকশা চালক মনোয়ার জানান, গরমে যাত্রী সংখ্যাও কম। আর রোদের মধ্যে পায়ে চাপা রিকশা চালানো অসম্ভব হয়ে পড়েছে। বারবার পানি খেয়েও যেন মনে হয় দম বন্ধ হয়ে আসে।