ব্রেকিং:
আজ থেকে বিপিএলে থাকছে ‘বিকল্প ডিআরএস’ কমিউনিটি ক্লিনিকে আরো বিনিয়োগ প্রয়োজন: পরিকল্পনামন্ত্রী এবার আইপিএলের সব খেলা এক শহরে! মৌসুমী ঝড়ে আফ্রিকার তিনদেশে নিহত ৭০ জুমার দিনে যে আমল করলে ৮০ বছরের গুনাহ মাফ হবে কুমিল্লায় জনপ্রিয় হচ্ছে সমলয় পদ্ধতিতে ধান চাষ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে কাদের মির্জার ৯ প্রার্থীর অভিযোগ বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল সাড়ে ৫৬ লাখ, শনাক্ত সাড়ে ৩৬ কোটি লক্ষ্যমাত্রার ৭ ভাগ আমন সংগ্রহ হয়েছে ফেনীতে নৌকা ঠেকাতে আনারসে ভোট চাইলেন এমপি একরামুল মসজিদের ৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্লাস্টিকের লেমিনেশন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা চিলির মাঠে মেসিহীন আর্জেন্টিনার দাপুটে জয় কোম্পানীগঞ্জে এক বস্তা দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার প্রাথমিকে অনলাইনে ক্লাসসহ ৬ নির্দেশনা সরকারি ব্যাংকের সব নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত চাঁবিপ্রবির জমি অধিগ্রহণে অনিয়মের খবর ভিত্তিহীন: শিক্ষামন্ত্রী ১৫ বছরের গোপন সম্পর্ক, কথা না রাখায় দেবরের ঘরে অনশনে ভাবি পার্কে প্রেমিককে জুতাপেটা, আটক করে টাকা নিলেন মেম্বার আখাউড়ায় পাঁচ মাদক সেবনকারীর কারাদণ্ড
  • শুক্রবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১৫ ১৪২৮

  • || ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ফরিদপুরে সংঘর্ষ-বাড়িঘর ভাঙচুর, পুলিশসহ আহত ৪০

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৫ জানুয়ারি ২০২২  

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার গট্টি ইউনিয়নে বালিয়া ও ভাবুকদিয়া গ্রামবাসীদের সংঘর্ষে পুলিশজন অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় গ্রামবাসীদের ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটেছে।

সালথা থানার ওসি মো. আসিকুজ্জামান জানান, বুধবার সকাল ৬টার দিকে ভাবুকদিয়া গ্রামের হিরু মোল্যার সমর্থকদের সঙ্গে বালিয়া গ্রামের সরোয়ার মাতুব্বারের সমর্থকদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বাধে। সকাল ১০টা পর্যন্ত চলে এ সংঘর্ষ। এতে পুলিশসহ উভয় দলের অন্তত ৪০ জন আহত হন।

হিরু মোল্যা গট্টি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার রেজাউর রহমান চয়ন মিয়ার সমর্থক ও সরোয়ার মাতুব্বার সালথা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. ওয়াদুদ মাতুব্বর সমর্থক। 

গত ৪ জানুয়ারি সন্ধ্যায় বালিয়া গ্রামে একটি সভার সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। রাতেই তাদের মধ্যে ধাওয়া,পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। 

ওসি আসিকুজ্জামান জানান, সংঘর্ষ চলাকালে ভাবুকদিয়া গ্রামের পিকুল মাতুব্বর, বড় বালিয়া গ্রামের ইমরুল, নিটুল, আক্কাস, আবুল, বারিক, জাহিদ ও তারা মাতুব্বরের বাড়িসহ ২০টি বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়। পিকুল মাতুব্বরের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। 

আসিকুজ্জামান জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শর্টগানের রাবার বুলেট, টিয়ারসেল ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় উভয়পক্ষের ইটপাটকেলে সাতজন পুলিশ সদস্য আহত হন। এলাকা শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বড় বালিয়া গ্রামের সরো বেগম বলেন, আমি ভিক্ষা করে বাড়িতে ঘর দিয়েছি, সেই ঘর সালথা উপজেলা চেয়ারম্যান ওয়াদুদের হুকুমে তার সমর্থকরা ভাঙচুর করেছেন। আমি এখন কোথায় যাব?

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে সালথা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. ওয়াদুদ মাতুব্বর বলেন, উপজেলার সব গ্রামেই আমার সমর্থকরা আছে। আমি কাউকে মারামারি করতে বলিনি। আমি গ্রাম্য দলাদলি করি না। সরোয়ার মাতুব্বর ওই এলাকার একজন বড় নেতা। তার সমর্থকদের সঙ্গে প্রতিপক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। সারোয়ার আমার পক্ষের লোক। 

সালথা উপজেলার গট্টি ইউনিয়নে গত ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সালথা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. ওয়াদুদ মাতুব্বর ও গট্টি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউপি নির্বাচনের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খন্দকার রেজাউর রহমান চয়ন মিয়ার সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। নির্বাচনের পরে বিবাদমান এই দুই পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।