ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

এটা আমার শেষ বিসিএস ছিল, ৩-৪ মিনিটের জন্য স্বপ্ন ভেঙে গেল

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০২৪  

বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন শুরুতেই ভেঙে গেল ৮১ শিক্ষার্থীর। মাত্র মিনিট দুয়েক বিলম্ব করায় রংপুর মহানগরীর বিভিন্ন কেন্দ্রে ৪৬তম বিএসএস প্রিলি পরীক্ষায় বসতে পারেননি তারা। পা ধরে কান্নাকাটি করেও অনেকেই প্রবেশ করতে পারেননি। এ সময় বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ায় ২ শিক্ষার্থীকে আটকও করে পুলিশ।

শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ৯টা ৪৫ মিনিটের মধ্যে এ ঘটনা হয়। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হলেও ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে প্রবেশ করার নির্দেশনা ছিল। কিন্তু কিছু শিক্ষার্থী সকাল সাড়ে ৯টার দু-এক মিনিট দেরি করে আসেন। অনেকেই আসেন ৫ মিনিট পর। এরপর তারা হলে প্রবেশ করতে চাইলে তাতে বাধা দেয় কর্তব্যরত ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ। অনেকেই কান্নাকাটি করলেও মন গলেনি তাদের। এ সময় বিতণ্ডায় জড়ানোর কারণে বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্র ও পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের সামনে থেকে ২ জন শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়।


রংপুর মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন জানান, নিয়ম ভেঙে কেন্দ্রে প্রবেশের চেষ্টা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কারণে ২ জনকে আটক করা হয়েছিল। পরীক্ষা শেষে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

নগরীর ১৮টি কেন্দ্রের সবগুলোতে এ ধরনের ঘটনায় তিন শতাধিক পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে না পারার খবর পাওয়া গেছে। কিন্তু তিনটি কেন্দ্রের ৮১ জনের তথ্য স্বাধীনভাবে যাচাই করেছেন প্রতিবেদক।


এর মধ্যে বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্রে ২৫ জন, লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ৪৬ জন ও পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ১০ জন সাড়ে ৯টার কয়েক মিনিট পরে আসায় তাদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে করতে দেওয়া হয়নি।


পরীক্ষায় বসতে না পারায় শুরুতেই বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে এসব শিক্ষার্থীর। লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষায় বসতে না পারা হামিদুর রহমান বলেন, আমি ২০২০ সালে রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল থেকে এমবিবিএস পাশ করেছি। আমি ৪৬ বিসিএসের পরীক্ষার্থী ছিলাম। লায়ন্স স্কুলে আমার সিট ছিল। আমি ৯টা ৩৪ মিনিটে গেটে আসি। কিন্তু কর্তব্যরত ম্যাজিস্ট্রেট সাড়ে ৯টার পর আর কাউকে ঢুকতে দেননি। অথচ এর আগের বিসিএস পরীক্ষায় ক্যান্ট পাবলিক স্কুল কেন্দ্রে আমার সিট পড়েছিল, সেখানে অনেকেই আমি পরীক্ষা শুরুর ১০ মিনিট আগেও কেন্দ্রে ঢুকতে দেখেছি। কিন্তু এবার এখানে ৫০-৬০ জনকে এই ম্যাজিস্ট্রেট ঢুকতে দেয়নি।

তিনি আরও বলেন, আমি এই ম্যাজিষ্ট্রেটের বরখাস্ত করার দাবি করছি। আমি কথা বললে ম্যাজিস্ট্রেট আমাকে গ্রেপ্তার করার হুমকি দেয়। অতিরিক্ত পুলিশ ডেকে এনে আমাদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়। আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করব। আমরা চাই, আমাদের জীবনে যে সমস্যা হলো সেই সমস্যা যেন আর কারো ক্ষেত্রে না হয়।

একই কেন্দ্রে পরীক্ষায় বসতে না পারা শোভন সরকার বলেন, আমার বাড়ি কুড়িগ্রাম। কারমাইকেল কলেজ থেকে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করেছি। আমি যানজটের কারণে ৯টা ৩৪ মিনিটে লায়ন্স স্কুল কেন্দ্রের গেটে উপস্থিত হই। কিন্তু ম্যাজিস্ট্রেট আমাকে ভেতরে ঢুকতে দেয়নি। এ সময় সেখানে আমরা অনেকেই ছিলাম। তাকে অনুরোধ করলেও তিনি সাফ জানিয়ে দেন, ৯টা ৩০ মিনিটেই গেট বন্ধ করা হয়েছে। তাই আর কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

দীর্ঘ নিশ্বাস ফেলে শোভন সরকার বলেন, আমি এক বছর থেকে নিয়মিত পড়াশোনার মধ্যেই ছিলাম। এটা আমার শেষ বিসিএসএস ছিল। ৩-৪ মিনিটেই স্বপ্ন ভেঙে গেল। এটা আমার লাইফের জন্য বাজে একটা ব্যাপার হয়ে দাঁড়ালো।

আরেক পরীক্ষার্থী মুন্নি আক্তার বলেন, আমি কারমাইকেল কলেজ থেকে হিসাব বিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স করেছি। আমার আসতে ৫ মিনিট দেরি হওয়ায় ম্যাজিস্ট্রেট আমাকে ঢুকতে দেয়নি। আমি ম্যাজিষ্ট্রেটের পায়ে পর্যন্ত ধরেছি। কান্নাকাটি করছি। তবুও তিনি আমাকে ঢুকতে দেননি।


ওই পরীক্ষার্থী বলেন, আমার এতো বছরের কষ্ট, পরিকল্পনা, পড়াশুনা তিন-চার মিনিটেই শেষ হয়ে গেল। আর যেন কারও এমন না হয়। এজন্য আমি ম্যাজিষ্ট্রেটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাই। যেহেতু পরীক্ষা ১০ টায় শুরু হবে। সেকারণে আমাদের ঢুকতে দিতে পারতেন। আমরা তো ১০টার পর আসিনি। বিষয়টি দেখার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানাই।

পরীক্ষাদের এমন স্বপ্ন ভঙ্গের খবরে হতাশ অনেকেই। বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাহমুদুল হক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি লিখেছেন ‘৯.৩০ মিনিটে গেট বন্ধ। এক মিনিটের দেরিতে আসায়ও অনেককে বিসিএস পরীক্ষার কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। কান্নাকাটি করেও মন গলেনি, খবর ইত্তেফাকের। এরকম যান্ত্রিক পদ্ধতি স্বাভাবিক, মানবিক পথগুলো বন্ধ হতে বাধ্য। এর গলদ বিসিএস পরীক্ষা পদ্ধতিতেই। নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক আর উচ্চ মাধ্যমিক লেভেলের তথ্য মুখস্থ করে বিসিএস কর্মকর্তা বা রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আমলা তৈরি করা হলে এরকম অনেক অমানবিক কাণ্ড, নির্বোধ কাণ্ডতো ঘটবেই।’

এ বিষয়ে জানতে রংপুর বিভাগীয় কমিশনায় জাকির হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘সরকারি কর্ম কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন কর্তব্যরতরা। কখন উপস্থিত হবে বিষয়টিও স্পষ্টভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল’।

বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ৪৬তম বিসিএস পরীক্ষা-২০২৩ এর প্রিলিমিনারি টেস্টের আসন ব্যবস্থা, সময়সূচি ও পরীক্ষা পরিচালনার নির্দেশনা দেয়।

নির্দেশনায় বলা হয়, প্রার্থীদের অবশ্যই সকাল ৯টা ৩০ মিনিটের মধ্যে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে। ৯টা ৩০ মিনিটের পর কোনো পরীক্ষার্থী পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে পারবেন না। ৯টা ৩০ মিনিটে পরীক্ষার হলের মূল ফটক বন্ধ করে দেওয়া হবে।

একজন সাবেক সচিব জানান, নির্দেশনা মেনেই যথাসময়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করাটাই পরীক্ষার্থীদের জন্য বাঞ্ছনীয়। এটাকে ভুল বলা যাবে না, এটা দায়িত্বহীনতা।

সরকারি কর্মকমিশন রংপুর আঞ্চলিক কেন্দ্রের উপ-পরিচালক রোকসানা বেগম বলেন, সাড়ে ৯ টার পর কেউ কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না। এটা পিএসসির হেড অফিস থেকে নির্দেশনা। এখানে আমাদের করার কিছু নেই। ম্যাজিস্ট্রেটরা তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন।

পিএসসি রংপুর আঞ্চলিক কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক আলতাফ হোসেন বলেন, রংপুরের ১৮টি কেন্দ্রে ৩০ হাজার ৪৫১ জন পরীক্ষার্থীর পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের কথা ছিল। এরমধ্যে অনুপস্থিত ছিলেন ৭ হাজার ৫০ জন। সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।