ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

লক্ষ্মীপুরে জোরপূর্বক সরকারি ইজারা জমি দখল,পুনরুদ্ধার প্রশাসনের

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০২৪  

লক্ষ্মীপুর শহরের সরকারি জমিতে থাকা একটি দোকানঘর রাতের আঁধারে জোরপূর্বক দখলে নেয় ‘অঙ্গশোভা’ নামক একটি পোশাক দোকানের মালিক। ১৬ দিন পর সেটি উপজেলা প্রশাসন অবৈধ দখলদারের কবল থেকে উদ্ধার করেছে

সোমবার (৮ জুলাই) বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) অভি দাসের নেতৃত্বে দোকানঘরটি উদ্ধার করা হয়। জমিটি একজন লিজগ্রহীতার কাছে ছিল, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই দোকানঘরটি তাদের বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, ১৯৭৯ সালে আবদুল বাতেন ভূঁইয়া নামের এক ব্যক্তি সরকারের কাছ থেকে লক্ষ্মীপুর জেলা শহরের চকবাজারে আধা শতাংশ জমি লিজ নেন। সেখানে দোকানঘর নির্মাণ করে প্রথমে টিনের ব্যবসা ও পরে কাপড়ের ব্যবসা করা হয়৷ লিজের ওই জমিতে 'আল মামুন পোশাক বিতান' নামে একটি কাপড়ের দোকান ছিল। আবদুর রব নামের এক ব্যবয়াসী দোকানের ভাড়াটিয়া ছিলেন। তাকে সরিয়ে সম্প্রতি দোকানঘরটি দখল করে সেলিম ভূঁইয়া নামে 'অঙ্গশোভা' প্রতিষ্ঠানের মালিক।

লিজগ্রহীতা আবদুল বাতেন ভূঁইয়ার ছেলে মোরশেদ আলম জানান, সম্প্রতি তারা দোকানঘর সংস্কারের উদ্যোগ নেন। তাদের দোকানঘরটির পাশের 'অঙ্গশোভা' নামক আরেকটি দোকানের মালিক সেলিম ভূঁইয়া ও তার ছেলেরা গত ২২ জুন রাতের আঁধারে তাদের দোকানঘরটি জোরপূর্বক দখল করে নেয়। তাদের দোকানের পূর্বের নাম মুছে দিয়ে 'অঙ্গশোভা' নাম লিখে দেওয়া হয়। সরকারি মালিকানাধীন জমি হওয়ায় বিষয়টি তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিতভাবে জানান।

অন্যদিকে অঙ্গশোভার মালিকপক্ষও জমিটি তাদের মালিকানাধীন দাবি করে। পরে অঙ্গশোভার পক্ষ থেকেও বির্তকিত জমিটি পরিমাপ করার জন্য জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে আবেদন করা হয়।

সোমবার (৮ জুলাই) জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) অভি দাসের নেতৃত্বে সার্ভেয়াররা জমিটি পরিমাপ করে। এসময় দখলকৃত দোকানঘর ছাড়াও অঙ্গশোভা মালিকের ভবনের নিচেও সরকারি জমি পাওয়া যায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বলেন, অঙ্গশোভার মালিকের পক্ষ থেকে ডিসি স্যারের কাছে পরিমাপ করার জন্য আবেদন করে। তারা বলেছে- এ জমি যদি সরকার পায় তাহলে তারা ছেড়ে দিবে। এসিল্যান্ড এবং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সার্ভেয়াররা জমিটি পরিমাপ করে দেখেছে। অঙ্গশোভা যে জমি দখল করে নিয়েছে, সেটি সরকারি জমি। এছাড়া অঙ্গশোভার ভবনের নিচেও সরকারি জমি রয়েছে। ১৯৮৯ সালে জমিটি সরকার লিজ দেয়। লিজগ্রহীতাকে সরিয়ে অঙ্গশোভার মালিকপক্ষ দোকানঘর দখল করে নিয়েছে। আমরা অবৈধ দখলদারের কাছ থেকে জমিটি উদ্ধার করেছি। তাদের মালামাল সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। লীজগ্রহীতার কাছে জায়গাটি হস্তান্তর করা হবে।

দখলদার অঙ্গশোভার মালিক সেলিমের ছেলে জিহাদ হোসেন বলেন, আমরা ডিসি অফিসে পরিমাপ করার জন্য আবেদন জানিয়েছি- এখানে সরকারি জমি আছে কিনা। আগেও বেশ কয়েকবার পরিমাপ করা হয়েছে, এখানে সরকারি জমি ছিল না। কিন্তু এখন পূর্ব নোটিশ ছাড়াই আমাদেরকে এখান থেকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে। আমরা এই বিষয়ে আদালতের দারস্থ হব।