ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

ফেনীতে মসলার দাম বৃদ্ধিতে দিশেহারা ভোক্তারা

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৬ জুন ২০২৪  

ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ফেনীতে মসলার বাজারে দাম বেড়েছে। পেঁয়াজ-রসুন থেকে শুরু করে এলাচি-লবঙ্গের মতো মসলার চড়া দাম হাঁকাচ্ছেন বিক্রেতারা। তাদের অজুহাত আমদানি নির্ভর প্রায় সব ধরনের মসলায় সরবরাহ কম এবং আমদানিতে উচ্চ শুল্কে মূল্যবৃদ্ধি। অন্যদিকে খুচরা দোকানিরা দোষ চাপান আড়তদারদের ওপর।

সরেজমিনে বিভিন্ন বাজারে গিয়ে দেখা যায় প্রতি কেজি দেশি শুকনা মরিচ ২৮০-৩২০, দেশি হলুদ ২৮০-৩১০, দেশি পেঁয়াজ ৮০-৮৫, রসুন সিনে দেশি ২০০-২২০, দেশি আদা ২৫০-২৮০, মনসাদে তেজপাতা ১৩০, দারুচিনি ৪৯০-৫৫০, লবঙ্গ ১৭৫০, এলাচ ২৮০০-৩২০০, জিরা ৭০০-৭৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে বরাবরের মতো কিছু পণ্যের মূল্য গত বছরগুলোর তুলনায় ১৫-২০ শতাংশ বেশি। কিছু পণ্যের মূল্য স্থিতিশীল।

সবচেয়ে বেশি বেড়েছে এলাচের দাম। গত বছর কোরবানির সময় ২২০০-২৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল এলাচ। চলতি বছর তা ২৮০০ থেকে ৩৫০০ টাকা প্রতি কেজি পাইকারিতে বিক্রি হচ্ছে। খুচরায় যা চার হাজার টাকা পর্যন্ত ঠেকছে। 

টিসিবির তথ্য মতে, গত বছর দেশি রসুনের কেজি ছিল ১৩০-১৫০ টাকা। বর্তমানে তা ২০০- ২২০ টাকা। এ ছাড়াও আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ২১০-২৪০ টাকা কেজি দরে। গত বছর যা ছিল ১৩০-১৫০ টাকা। দেশি আদা বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ২৮০-৩৫০, আর আমদানিকৃত আদা ২২০- ২৮০ টাকা। গত বছর যার দাম ছিল যথাক্রমে ৩৮০-৪০০ এবং ২৮০-৩৫০ টাকা। এ ছাড়াও বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭৫-৮৫ টাকায়। ২০২৩ সালের এই সময়ে বাজারে প্রতি কেজি জিরা বিক্রি হয় ৯৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকায়। চলতি বছর যা বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৭৫০ টাকায়। 

বছর ঘুরে দেশীয় জাতের শুকনা মরিচের দাম কমলেও বেড়েছে আমদানিকৃত মরিচের দাম। দেশীয় জাতের শুকনা মরিচ ২৮০-৩৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত বছর এর দাম ছিল ৪০০-৪৬০ টাকা। আমদানিকৃত শুকনা মরিচের কেজি ৪২০- ৫০০ টাকা, গত বছর যা ছিল ৪০০-৪৬০ টাকা।

দাগনভূঞা উপজেলার সিলোনিয়া বাজারের মুদি দোকানি নিজাম উদ্দিন জানান, পাইকারিতে আমরা মসলা কিনি ২ থেকে ৫ কেজির চালানে, কিন্তু খুচরায় ৫০ গ্রাম ১০০ গ্রাম করে বিক্রি করতে করতে কেজিতে টান পড়ে। এই ঘাটতি পূরণ করতে আমরা খুচরায় কিছু বাড়তি মূল্য ধরি।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ কাউছার মিয়া বলেন, অনিয়মের অভিযোগ পেলে জরিমানা করা হচ্ছে। ভেজাল ও মূল্যবৃদ্ধি রুখতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।