ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

টুং-টাং শব্দে মুখর ফেনীর কামারপাড়া

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৬ জুন ২০২৪  

সারা বছর তেমন কাজ না থাকলেও ঈদুল আজহা সামনে রেখে ব্যস্ততা বেড়েছে কামারদের। দম ফেলার জো নেই তাদের। হাতুড়ির টুং-টাং শব্দে মুখর হয়ে উঠেছে পুরো এলাকা। প্রতি বছর এ সময়ের জন্যই অপেক্ষা করে ফেনী জেলার কয়েক’শ কামার পরিবার।

জেলার বেশ কয়েকটি কামারশালায় সরেজমিন দেখা যায়, চারদিকে শুধুই টুং-টাং শব্দ। কোরবানির পশু কাটার কাজে ব্যবহার করা দা-বঁটি, ছুরি-চাপাতিসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম তৈরি ও মেরামতে ব্যস্ত তারা। আগুনের শিখায় তাপ দেওয়া হাতুড়ি পিটিয়ে তৈরি করা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জামাদি। ঈদের চাহিদা পূরণ করতে নতুনের পাশাপাশি আবার পুরনো সরঞ্জামের শানের কাজও চলছে। ভোর থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে তাদের এ ব্যস্ত কর্মযজ্ঞ।

টুং-টাং শব্দে মুখর ফেনীর কামারপাড়া

কামারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বছর ঈদ ঘিরে পশু কোরবানির ছুরি আকার ও মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ১৫০০ টাকায়, যা গত বছর ছিল ৩০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে। পশুর চামড়া ছাড়ানোর কাজে ব্যবহৃত ছুরি একেকটি আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৩৫০ টাকায়। গত বছর এগুলোর দাম ছিল ১৫০ থেকে ২০০ টাকা। অন্যদিকে ভালো মানের বটি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ১২০০ টাকায়, যেগুলো গত বছর ৫০০ থেকে ১০০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া ওজন অনুযায়ী প্রতিটি চাপাতি বিক্রি হচ্ছে ৭০০ থেকে ১৫০০ টাকায়, যা গত বছর ছিল ৭০০ থেকে ১৩০০ টাকা।

একাধিক কামারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বছরের অন্য সময়গুলোর তুলনায় কোরবানির ঈদে তাদের ব্যস্ততা অনেকাংশে বাড়ে। বিশেষ করে কোরবানির এক সপ্তাহ আগে এ ব্যস্ততা বাড়ে। তারা জানায়, বর্তমানে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, কয়লার সংকট ও দামবৃদ্ধি, লোহার দামবৃদ্ধি, শ্রমিক সংকট এবং আধুনিকায়নের ফলে বিলুপ্তির পথে এ কামার শিল্প। তাও এ সময়টাতে আয় একটু বাড়ে যা দিয়ে কোনোমতে চলে যায়।

টুং-টাং শব্দে মুখর ফেনীর কামারপাড়া

কামার রাহুল দাস জানান, ঈদের এক সপ্তাহ আগ থেকে প্রচুর ব্যস্ততা বাড়ে। ক্রেতারা কেউ দা-ছুরি, বঁটি তৈরি করার জন্য অর্ডার দিতে আসে আবার অনেক ক্রেতা আসে পুরোনো দা-চুরিতে শান দিতে। সব মিলিয়ে অন্য সময়ের তুলনায় ঈদের সময়টাতে বেশ ব্যস্ত সময় কাটে।

পলাশ কর্মকার নামের আরেক কামার বলেন, কোরবানির ঈদ সামনে রেখে গ্রাহকের অর্ডার সামাল দিতে বাড়তি মুজুর নিয়েছি। কোরবানির আয়ে আমাদের সারাবছর চলতে হয় বিধায় ক্রেতাদের চাপ সামাল দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। এরই মধ্যে বেশকিছু গ্রাহক থেকে দা, বটি, ছুরি বানানোর অর্ডার পেয়েছি এবং অর্ডার দেওয়া দা, ছুরি এরই মধ্যে তৈরি করা হয়ে গেছে।

সুকেন কর্মকার নামে আরেক কামার শিল্পী জানান, আধুনিক রেডিমেড চুরি, চাপাতিসহ অন্যান্য সরঞ্জামের চাহিদার বৃদ্ধির কারণে তাদের তৈরি লোহার জিনিসপত্রের চাহিদা আগের তুলনায় অনেকাংশে কমে গেছে। তাও ঈদের সময়টাতে তাদের তৈরি এসব সরঞ্জামের চাহিদা একটু বাড়ে বলে জানায় এ কামার।

টুং-টাং শব্দে মুখর ফেনীর কামারপাড়া

অর্ডার করা বঁটি নিতে আসার ফাতেমা আক্তার জানান, পশুর মাংস টুকরা করার জন্য বঁটির প্রয়োজন হয়। যার কারণে ঈদের এক সপ্তাহ আগে অর্ডার দিয়ে গেছি যা আজ তৈরি করে দিয়েছে। বঁটি তৈরি করতে ৭০০ টাকার মতো খরচ হয়েছে বলে জানান তিনি।

ছুরিতে শান দিতে আসা শহিদুল আলম বলেন, আগের বছরের কোরবানিতে ব্যবহার করা ছুরি ও বঁটি শান দিতে এসেছি। এ বছর এসব সরঞ্জামের দাম অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে, যার কারণে পুরোনোগুলো শান দিয়ে ব্যবহার করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।