ব্রেকিং:
ডিপ্লোমা কোর্সের মেয়াদ নিয়ে আবারও বিতর্ক উত্তরায় প্রাণহানি: প্রধানমন্ত্রীর শোক নোয়াখালীতে জাতীয় শোক দিবস পালিত গাড়ি চালাচ্ছিলেন বরের বাবা, কারোই ফেরা হলো না বাসায় সরানো হলো গার্ডার, ৫ লাশ উদ্ধার টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ফেনী নদীতে জেলেদের জালে ধরা ৭ মণ ইলিশ উপকূলীয় ৭ উপজেলার উন্নয়নে মহাপ্রকল্প আগামী বছর থেকে সপ্তাহে ৫ দিন ক্লাস: শিক্ষামন্ত্রী শোক দিবস উপলক্ষে চাঁদপুরে ৫০ হাফেজকে খাবার দিল পুনাক অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রের মাছ ধরতে গিয়ে ট্রাক্টরে আটকে গেল কিশোর জমিতে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু রায়পুরে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, জামায়াত নেতা গ্রেফতার নবীনগরে ভাতিজার ঘুষিতে প্রাণ গেল চাচার সুইস ব্যাংকে তারেকের অ্যাকাউন্টে দেড় হাজার কোটি টাকা মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাত, প্রাণ গেল কৃষকের খালেদার কাল্পনিক জন্মদিন উদযাপন নিয়ে দ্বন্দ্বে বিএনপি প্রবাসীর স্ত্রীকে অচেতন করে নগ্ন ভিডিও ধারণ, গ্রেফতার ২ শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা
  • মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ২ ১৪২৯

  • || ১৮ মুহররম ১৪৪৪

শ্রাবণেও নেই ইলিশ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৫ আগস্ট ২০২২  

৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর জেলেরা আশায় বুক বেঁধেছিলেন। ভেবেছিলেন নিষেধাজ্ঞা শেষে ইলিশের দেখা মিলবে। কিন্তু ইলিশের ভরা মৌসুমেও উপকূলীয় চরফ্যাশন উপজেলার জেলেদের জালে ধরা পড়ছে না রুপালি ইলিশ।

জ্যৈষ্ঠ থেকে ভরা মৌসুম চলছে ইলিশের। কিন্তু জ্যৈষ্ঠ-আষাঢ় পেরিয়ে শ্রাবণেও আশানুরূপ দেখা মিলছে না। তবে মৎস্য বিশেষজ্ঞরা আশাবাদী, শিগগিরই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়বে ইলিশ। 

এদিকে, সাগরে মোটামুটি ইলিশ পাওয়া গেলেও মেঘনা, তেঁতুলিয়া নদীতে মাছের হাহাকার। দিনের বাজারে ভোজন রসিকদের চোখ ইলিশের ডালির দিকে। অন্য বছর এই সময়ে নদীর রুপালি ইলিশে বাজার ভরা থাকলেও এবার ঠিক উল্টো। ফলে দুর্দিনে পড়েছেন জেলেরা। একই সঙ্গে হতাশ মাছের আড়তের মালিকরাও। 

সারা দিনে দুই-এক ঝুড়ি মাছ ঘাটে এলেও তেমন হইচই নেই চরফ্যাশন উপজেলার বেতুয়া, সামরাজ, নতুন সুইজ, খেজুর গাছিয়া, বস্কসি, ঢালচর, চরপাতিলা মাছ ঘাটগুলোতে। সেই সঙ্গে হাটবাজারগুলোতেও নেই ইলিশের সেই হাঁকডাক। ফলে উপজেলার ৪৪ হাজার ৩১১ জন নিবন্ধিত জেলেসহ প্রায় ৬০ হাজার জেলে হতাশায় রয়েছেন। 

জেলে জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বছরের অন্য সময় মাছ ধরে কোনোক্রমে সংসারটা চলে যায়। তখন কিছু টাকা ধার করতে হয়। আর ইলিশের মৌসুমে আয়ের সময়। এ বছর সেখানেই ঘাটতি পড়েছে। কী করে সংসার চালাব বুঝে উঠতে পারছি না।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মারুফ হোসেন মিনার বলেন, বৃষ্টি হলেই মাছটা জেগে ওঠে। বৃষ্টি যত বেশি হবে মাছের তত দেখা মিলবে। তবে ভোলাসহ উপকূলীয় কিছু কিছু জায়গায় মোটামুটি দেখা যাচ্ছে। দেরিতে হলেও মাছ হবে এমনটা আশা করা যায়। 

তিনি আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ইলিশ মাছের মৌসুম পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। সে কারণে এই ভরা মৌসুমেও ইলিশ ধরা পড়ছে না। বিষয়টি চিন্তার হলেও এতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। জেলেদের জালে যে একদমই মাছ ধরা পড়ছে না তা কিন্তু নয়। ইলিশ ধরা পড়ছে তবে পরিমাণে কম। একই সঙ্গে ছোট সাইজের। মূলত চলতি বছরে খুব বিলম্বে বৃষ্টি হয়েছে। ফলে ইলিশ মাছের তেমন দেখা মেলেনি।