ব্রেকিং:
মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে প্রসূতিকে বের করে দিলেন আয়া,অতঃপর . মাদরাসায় বাংলায় সাইনবোর্ড স্থাপনের নির্দেশ সরকার সবার জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন নিশ্চিত করছে দেশে খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই: খাদ্যমন্ত্রী নতুন স্ন্যাপড্রাগন আসছে এ সপ্তাহেই ১৮ মাসের কাজ শেষ হয়নি ৬২ মাসেও অ্যান্টিবায়োটিক চেনাতে চিহ্ন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত সরকারের ফেসবুক পোস্টে ‘হা হা’ দেওয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশ মোতায়েন নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে হবে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, গলায় পোড়া দাগ গরু-ছাগলের মাংসে যক্ষ্মার জীবাণু শনাক্ত টানা ২৮ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ, কমলো শনাক্ত বন্যার্তদের দুঃসময়ে সরকার পাশে রয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক্তন স্বামীর হামলায় আহত চিকিৎসক স্ত্রী ডাইনিং বন্ধ, হোটেলে উচ্চমূল্য: বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের প্রাণহানি: গবেষণা ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে ৩৭৫২ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু ‘শুধু চোর নয়, চোরাই মোবাইল বিক্রেতারাও গ্রেফতার হবে’ কক্সবাজারে অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণ নয়: প্রধানমন্ত্রী চরাঞ্চলের জনগণের ক্ষুধা-দারিদ্র্য হ্রাসে প্রকল্প নেয়া হয়েছে
  • বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ন্যায্য মূল্যে ধান বিক্রি: আখাউড়ার ৭৪৭ কৃষকের আনন্দ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় ৮৩৪ জন কৃষকের মধ্যে চলতি বোরো মৌসুমে ধান সংগ্রহের জন্য লটারির মাধ্যমে ৭৪৭ জন নির্বাচিত হয়েছেন। তারা সরকার নির্যাধিত ন্যায্য মূল্যে খাদ্য গুদামে ধান বিক্রি করবেন। ধানের ন্যায্য মূল্য পেয়ে আনন্দিত এসব কৃষক।

বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে পৌর শহরের তারাগন এলাকার কৃষক মো. রমজান খানের কাছ থেকে ১ মেট্রিক টন ধান ক্রয়ের মাধ্যমে বোরো ধান সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে। এ সময় লটারির মাধ্যমে কৃষকদের নির্বাচন করেন ইউএনও রুমানা আক্তার। কৃষি কার্ডধারী লটারি বিজয়ী কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ধান আগামী ২৮ মে থেকে ৩১ আগস্ট পযর্ন্ত গুদামে নিয়ে বিক্রি করবেন।

জানা গেছে, আখাউড়া পৌর শহরসহ ৫টি ইউনিয়নের ৭৪৭ জন কৃষকের কাছ থেকে সরকারিভাবে ৭৪৭ মেট্রিক টন ধান কেনা হবে। প্রতি কেজি ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ টাকা। এতে প্রতি মণ ধানের মূল্য দাঁড়ায় ১০৮০ টাকা। লটারিতে বাদ পড়া কৃষকদের কাছ থেকে চাহিদা সাপেক্ষে পরবর্তীতে ধান সংগ্রহ করা হবে বলে কৃষি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

আখাউড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহানা বেগম জানান, লটারির আগে ধান বিক্রি করতে ইচ্ছুক প্রতিটি ইউনিয়নের কৃষকদের কৃষি কার্ড জমা নিয়ে তালিকাভুক্ত করা হয়। এরপর স্বচ্ছতার মাধ্যমে লটারির প্রক্রিয়া চলে। যেসব কৃষক লটারিতে বিজয় হননি তাদের তালিকাভুক্ত হতে কৃষি অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।