ব্রেকিং:
টেলিটকে ফাইভ-জির গতি উঠলো সেকেন্ডে ১৫১২ এমবিপিএস ভোটকেন্দ্রে টাকা দিতে মেয়রের জোরাজুরি, নিল না পুলিশ আগামী দুই অধিবেশনের মধ্যে ইসি গঠনের আইন আসছে: আইনমন্ত্রী স্থায়ী কমিটির ভূমিকায় সন্দিহান বিএনপির কর্মীরা দীঘিনালায় ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়িতে হামলা, ১৬ জন আহত আজও রাস্তায় শিক্ষার্থীরা, চেক করছে ড্রাইভিং লাইসেন্স ওমিক্রন নিয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন: ডব্লিউএইচওর প্রধান বিজ্ঞানী কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে সরকার সচেষ্ট: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী খালেদার চিকিৎসা নিয়ে নেতা-চিকিৎসকদের সমন্বয়হীনতায় ক্ষুব্ধ তারেক বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী জাল ভোট দিতে এসে ধরা, ছয় মাসের জেল ইয়াবা দেখে ফেলায় সহপাঠীকে নৃশংস হত্যা সমুদ্র দূষণে শাস্তি বাড়িয়ে সংসদে বিল পাস পুরুষশূন্য কেন্দ্রে নারীদের দীর্ঘ সারি বাংলাদেশের নারীরা সারাবিশ্বে নিজেদের যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ১ জানুয়ারি, মিলবে বিআরটিসি বাস সার্ভিস ৮৩ শতাংশ নারীই মনে করেন ‘বউ পেটানো ঠিক’ ঢাকায় বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী দেহব্যবসা করে চালিয়েছেন পড়াশোনা, জিতেছেন সুন্দরী প্রতিযোগিতায় যে কারণে পেছাল আবরার হত্যা মামলার রায়
  • সোমবার   ২৯ নভেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৮

  • || ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

কাউন্সিলরসহ জোড়া খুনের ঘটনায় যা দেখা গেল সিসিটিভি ফুটেজে

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ নভেম্বর ২০২১  

বহুল আলোচিত কুমিল্লার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিল সৈয়দ মো. সোহেল এবং আওয়ামী লীগ নেতা হরিপদ সাহাকে হত্যার একটি ভিডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) রাত থেকে ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, কালো মুখোশ পড়ে অনবরত গুলি করে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে দুইজন সন্ত্রাসী। এ সময় কেউ ইট মেরে প্রতিরোধের চেষ্টা করলেই তাকেও গুলি শুরু করে।

ভিডিও ফুটেজে এক যুবকের হাতে দুটি এবং আরেক যুবকের হাতে একটি পিস্তল দেখা যায়। মুখোশধারী দুইজন পিস্তল নিয়ে কুমিল্লা নগরীর পাথুরিয়াপাড়া থ্রি-স্টার এন্টারপ্রাইজে কাউন্সিলর কার্যালয়ের সামনে দৌড়ে আসে। এরমধ্যে একজন ভেতরে ঢুকে প্রথম দফায় গুলি চালান। কয়েক সেকেন্ড পর মুখোশধারী আরেজনও কার্যালয় লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন।

ভিডিওতে আরও দেখা যায়, গুলি করার শেষে একপর্যায়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন ওই দুই যুবক। তারা স্থান ত্যাগ করলে আশপাশের লোকজনকে বের হতে দেখা যায়।

নিহত কাউন্সিলর মো. সোহেলের ভাই রুমন জানান, সিসিটিভি ফুটেজ আমাদের বাসাতে রেকর্ড হয়। ঘটনার পর আমরা যখন ভাইকে নিয়ে হাসপাতালে যাই তখন র‌্যাবের একটি টিম সব ভিডিও নিয়ে যায়। আমরা সংগ্রহ করতে পারিনি।

উল্লেখ্য, সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে। এ সময় গুলিতে তার সহযোগী হরিপদও নিহত হন। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ আরো চারজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। মঙ্গলবার জানাজা শেষে তার মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

সৈয়দ মো. সোহেল কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য ও ১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়রও ছিলেন। তার বাড়ি নগরের সুজানগর এলাকায়। ২০১২ ও ২০১৭ সালে তিনি কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হন। দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি প্যানেল মেয়র ছিলেন। মো. সোহেল সুজানগর এলাকার শাহজাহান মিয়ার ছেলে। ছয় ভাই ও চার বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। তার স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে আছে।