ব্রেকিং:
টেলিটকে ফাইভ-জির গতি উঠলো সেকেন্ডে ১৫১২ এমবিপিএস ভোটকেন্দ্রে টাকা দিতে মেয়রের জোরাজুরি, নিল না পুলিশ আগামী দুই অধিবেশনের মধ্যে ইসি গঠনের আইন আসছে: আইনমন্ত্রী স্থায়ী কমিটির ভূমিকায় সন্দিহান বিএনপির কর্মীরা দীঘিনালায় ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়িতে হামলা, ১৬ জন আহত আজও রাস্তায় শিক্ষার্থীরা, চেক করছে ড্রাইভিং লাইসেন্স ওমিক্রন নিয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন: ডব্লিউএইচওর প্রধান বিজ্ঞানী কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে সরকার সচেষ্ট: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী খালেদার চিকিৎসা নিয়ে নেতা-চিকিৎসকদের সমন্বয়হীনতায় ক্ষুব্ধ তারেক বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী জাল ভোট দিতে এসে ধরা, ছয় মাসের জেল ইয়াবা দেখে ফেলায় সহপাঠীকে নৃশংস হত্যা সমুদ্র দূষণে শাস্তি বাড়িয়ে সংসদে বিল পাস পুরুষশূন্য কেন্দ্রে নারীদের দীর্ঘ সারি বাংলাদেশের নারীরা সারাবিশ্বে নিজেদের যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ১ জানুয়ারি, মিলবে বিআরটিসি বাস সার্ভিস ৮৩ শতাংশ নারীই মনে করেন ‘বউ পেটানো ঠিক’ ঢাকায় বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী দেহব্যবসা করে চালিয়েছেন পড়াশোনা, জিতেছেন সুন্দরী প্রতিযোগিতায় যে কারণে পেছাল আবরার হত্যা মামলার রায়
  • সোমবার   ২৯ নভেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৮

  • || ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

আ’লীগের শত-শত নেতাকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৯ নভেম্বর ২০২১  

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউপির আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান শাহ সেলিম প্রধান। তিনি উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি। প্রভাবশালী এ চেয়ারম্যান ও তার বাহিনীর কাছে পদে পদে লাঞ্ছিত অপমানিত এবং মামলা হামলার শিকার হচ্ছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের শত শত নেতাকর্মী।

বিএনপি জামায়াত নয় দলের ত্যাগী ও প্রবীণ নেতাকর্মীরাই এ বাহিনীর টার্গেট। গত পাঁচ বছর যাবত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রতিনিয়তই হামলা নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছে চেয়ারম্যান ও তার বাহিনীর কাছে। এতে কার্যত অসহায় হয়ে পড়েছে দলের অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এদিকে চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ এবং তার ক্যাডার বাহিনীকে দেয়া হামলার নির্দেশের বেশ কিছু অডিও ফেসবুকে ভাইরাল হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

অপরদিকে চেয়ারম্যান বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির বরাবরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ইউপি নির্বাচনে চান্দিনা উপজেলা মাইজখার ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন লাভ করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জামাল উদ্দিন। নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি শাহ সেলিম প্রধান জয় লাভ করেন।

ওই নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা দলীয় প্রার্থী জামাল উদ্দিনের পক্ষে কাজ করেছিল। এ নিয়ে বিদ্রোহী সেলিম প্রধান ও তার বাহিনী লোকজন নিজ দলের নেতাকর্মীদেরকে নানাভাবে হামলা ও নির্যাতন শুরু করে।

গত পাঁচ বছর যাবত চেয়ারম্যান বাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতন এবং মামলা-হামলার শিকার হয়েছে এলাকার আওয়ামী লীগের ত্যাগী শত শত নেতাকর্মী। হামলা-নির্যাতনের তালিকায় রয়েছেন ছাত্রলীগ-যুবলীগ-আওয়ামী লীগ, বয়োজ্যেষ্ঠসহ ৫০ বছর যাবত আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মীরাও।

এ নিয়ে ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা চরম অসহায় হয়ে পড়েছে। ইতোপূর্বে চান্দিনার এমপি অধ্যাপক আলী আশরাফের মৃত্যুর পর নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মালেক বলেন, সেলিম চেয়ারম্যান দলে একজন অনুপ্রবেশকারী এবং বিএনপি পরিবারের সদস্য। তার বাহিনীর লোকজন এলাকায় ব্যাপক চাঁদাবাজি এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা চেয়ারম্যান ও তার বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। আমাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত এবং অপমানিত করা হয়েছে।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা রেহান উদ্দিন প্রধান বলেন, আমি ৫০ বছর যাবত আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। আমাকে নানাভাবে অপমান ও নির্যাতন করেছে সেলিম চেয়ারম্যান। কিছুদিন আগে আমাকে বাড়ি থেকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করেছিল। আমি তার বিচার চাই।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাধব সাহা বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি এটাই আমার অপরাধ। সেলিম চেয়ারম্যান ও তার বাহিনীর হাতে আমি একাধিকবার মারধরে শিকার হয়ে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছি।

সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী মনির বলেন, আমরা সেলিম চেয়ারম্যান বাহিনীর অত্যাচার অবিচার থেকে বাঁচতে চাই। বিষয়টি নিয়ে আমরা দলের সভানেত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই।

যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান প্রধান বলেন, চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তার বাহিনীর লোকজন আমাদের ১১টি পরিবারের ঘর-বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। এ বাহিনীর অত্যাচারে আমরা এখন এলাকা ছেড়ে পাশের উপজেলায় বসবাস করছি।

এ ছাড়া চেয়ারম্যানের হাতে নির্যাতিত ও লাঞ্ছিত হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শ্রী খোকন ভৌমিক, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আবুল হাশেম, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল নোমান, যুবলীগ সদস্য শাহাদাৎ হোসেন স্বপন, ছাত্রলীগ নেতা আরিফ আহমেদসহ দলের শত শত নেতাকর্মী। এসব নেতাকর্মীরা থানা পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে গেলেও পুলিশ অভিযোগ গ্রহণ করেনি বলে জানান ভুক্তভোগীরা। এ নিয়ে প্রতিকার চেয়ে নির্যাতিতরা কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযুক্ত চেয়ারম্যান শাহ সেলিম প্রধান বলেন, আমি দলের কোনো নেতাকর্মীকে হয়রানি ও নির্যাতন করিনি। গত পাঁচ বছর আমিই দলের নেতাকর্মী দ্বারা নির্যাতিত হয়েছি, এটা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ এবং চক্রান্ত।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ম. রুহুল আমীন বলেন, চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সেলিম প্রধান নামে এক চেয়ারম্যান ও তার বাহিনীর হাতে অনেক নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।