ব্রেকিং:
কুমিল্লা সমাবেশে রুমিনের মোবাইল ছিনতাই করল যুবদল কর্মী হাইমচরে নৌকার পক্ষে প্রচারণায় মাঠে ডা:টিপু ও মেয়র জুয়েল চাঁদপুর শহরের গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আজ বিশেষ মুনাজাতের মধ্যে শেষ হচ্ছে চাঁদপুর জেলা ইজতেমা মতলব উত্তর ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ রামপুরে বিষ প্রয়োগে অসহার কৃষকের মাছ নিধন ‘গুসি শান্তি পুরস্কার’ পেলেন শিক্ষামন্ত্রী মতলবের ধনাগোদা নদীতে কচুরিপানা জটে নৌ চলাচল বন্ধ ৩৫ বছরে শৈশবের স্বাদ, হতে চান উচ্চশিক্ষিত লক্ষ্মীপুরে ছাত্রদলের ১৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দক্ষিণ আফ্রিকায় নোয়াখালীর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল ২ তরুণের মুরাদনগরের সিদল যাচ্ছে বিদেশে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীসহ ২ জনের মৃত্যু যোগাযোগ সম্প্রসারণে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় আমিরাত বঙ্গবন্ধু টানেলে গাড়ি চলবে জানুয়ারিতে বিদেশিদের মন্তব্যে বিরক্ত সরকার আমনের বাম্পার ফলন রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আইওআরএ মন্ত্রীদের সাক্ষাৎ
  • রোববার   ২৭ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৩ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সাহাবিরা যেভাবে কোরআন হেফজ করতেন

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৫ অক্টোবর ২০২২  

একজন হাফেজ পুরো কোরআন নিজের বুকে ধারণ করেন। নিখুঁত-নির্ভুলভাবে তা সংরক্ষণের চেষ্টা করেন। কোরআন যেন ভুলে না যান তাই সবসময় তেলাওয়াত করেন। হাদিসে সবসময় কোরআন তেলাওয়াতকারীকে আল্লাহ তায়ালার পরিজন বলা হয়েছে।

হজরত আনাস বিন মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, কিছু মানুষ আল্লাহর পরিজন। সাহাবিরা জিজ্ঞেস করেন, হে আল্লাহর রাসুল, তারা কারা? তিনি বলেন, কোরআন তিলাওয়াতকারীরা আল্লাহর পরিজন এবং তাঁর বিশেষ বান্দা।’ -(ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২১৫)

 

কোরআন হিফজ করা একটি বিশেষ মর্যাদাকর বিষয়। এই ঐশী বাণী হিফজ করার ধারাবাহিকতা নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগ থেকে চলমান। বিশিষ্ট সাহাবি  হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.)- এর তেলাওয়াত শুনে অশ্রুসিক্ত হতেন নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৪৭৬৩)

সাহাবায়ে কেরাম কোরআন হিফজের ক্ষেত্রে মমার্থ ও প্রত্যেক আয়াতে আল্লাহ তায়ালা যে আদেশ-নিষেধ, বিধি-বিধান দিয়েছেন তার বিশেষ গুরুত্ব দিতেন।

কোরআনের শ্রেষ্ঠ ব্যাখ্যাকার খ্যাত হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কেউ যখন দশ আয়াত শিখতো, সে এর অর্থ ও আমল না জেনে অগ্রসর হতো না অর্থাৎ নতুন আয়াত পড়তো না।’ –(ইবনে জারীর তাবারী, জামিউল-বায়ান ফী তাওয়ীলিল কুরআন ১/৮০)

হজরত আবু আবদির রহমান আস-সুলামী রহ. বলেন, ‘আমাদেরকে যারা কুরআন পড়িয়েছেন যেমন উসমান ইবনে আফফান রা., আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ও অন্যরা তারা আমাদের বলেছেন, তারা যখন নবীজি সা.-এর কাছে কোরআন পড়তেন, তারা দশ আয়াত পড়ার পরে এর ইলম ও আমল না জেনে সামনে অগ্রসর হতেন না। এ কারণে এক সূরা হিফজ করতেই তাদের দীর্ঘ দিন লেগে যেতো।’

হজরত ইমাম আহমদ রহ. তার মুসনাদে বর্ণনা করেছেন, আনাস রা. বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কেউ যখন সূরা বাকারা ও আলে ইমরান পড়ে ফেলতো, আমাদের চোখে তার সম্মান অনেক বেড়ে যেতো।’

হজরত ইমাম মালেক রহ. তার মুআত্তায় বর্ণনা করেছেন, ‘আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর রা.-এর সূরা বাকারা হিফজ করতে আট বছর সময় লেগেছিলো।’ কারণ আল্লাহ বলেছেন, ‘এই কল্যাণময় কিতাব আমি তোমার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, যাতে মানুষ এটার আয়াতসমূহ অনুধাবন করে এবং বোধশক্তিসম্পন্ন ব্যক্তিগণ গ্রহণ করে উপদেশ।’ -(সূরা সোয়াদ, আয়াত: ২৯)

আরেক আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘তবে কি এরা কুরআন সম্বন্ধে অভিনিবেশ সহকারে চিন্তা করে না? না এদের অন্তর তালাবদ্ধ?’ -(সূরা মুহাম্মাদ, আয়াত: ২৪)

ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতী রহ. বলেন, ‘আল্লাহর কালাম না বুঝে তা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করা সম্ভব নয়। মানুষের কাছে চিকিৎসা বা হিসাববিদ্যার কোনো বই না বুঝে পড়া অস্বাভাবিক মনে হয়। তাহলে তারা কীভাবে আল্লাহর কালাম না বুঝে পড়ে, যে কিতাব তার দুনিয়া ও আখেরাতের সৌভাগ্য ও ‍মুক্তির পথ!’ -(আল ইতকান ফী উলূমিল কুরআন ৪/২০২)