ব্রেকিং:
কেন মানুষ প্রথম প্রেম ভুলতে পারে না বৃষ্টিপাত নিয়ে আজ যে দুঃসংবাদ জানালো আবহাওয়া অফিস আমরা এক দেশপ্রেমিক জননেতাকে হারালাম : প্রধানমন্ত্রী স্কুলে কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করলো পাকিস্তান ধারণার চেয়েও ভয়ঙ্কর করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: সিডিসি আশপাশের শ্রমিকদের দিয়েই চলবে কারখানা হেলেনার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় আরেক মামলা সিনহা হত্যার এক বছর: ‘প্রদীপের’ নিচেই ছিল অন্ধকার বিশ্বব্যাপী করোনায় মুত্যু কমলেও বেড়েছে আক্রান্ত চালু হতে না হতেই রোগীদের দখলে দুই হাসপাতালের ১৪ আইসিইউ বিশ্বের সাইবার সিকিউরিটির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি যুক্তরাষ্ট্র: চী বিষ দিয়ে যুবককে হত্যা করলেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন নিয়মনীতিহীন আইপি টিভির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: তথ্যমন্ত্রী প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে বাফুফের তামাশা, শুরুর এক ঘণ্টা আগে স্থগিত জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকা ব্যক্তিরা টিকা পাবেন বিশেষ প্রক্রিয়ায় দর্শকশূন্য ব্যতিক্রমধর্মী ‘ইত্যাদি’ আজ বাংলাদেশে বিনিয়োগে সর্বোচ্চ মুনাফা কৃষিতে ২৮ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে ব্যাংকগুলো মাঠ পর্যায় থেকেই ভূমির ভুল রেকর্ড সংশোধনের নির্দেশ সামাজিক মাধ্যমে অপরাধ দমনে সাইবার পেট্রোলিং টিম
  • শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ১৩ লাখ কৃষক

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৯ আগস্ট ২০২০  

এবার তিন দফার বন্যায় দেশের প্রায় ১৩ লাখ কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এরমধ্যে প্রথম দফার বন্যায় ৩ লাখ ৪৩ হাজার ৯৫৭ জন এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ৯ লাখ ২৯ হাজার ১৯৪ জন কৃষক। 

বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, বাংলাদেশের ৩৭টি জেলায় সব মিলিয়ে এবারের বন্যায় সর্বমোট ১ হাজার ৩২৩ কোটি টাকার ফসলের ক্ষতি হয়েছে। এরমধ্যে প্রথম দফার বন্যায় ১৪টি জেলায় ১১টি ফসলের ৪১ হাজার ৯১৮ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ক্ষতির পরিমাণ ৩৪৯ কোটি টাকা।

 

সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

মন্ত্রী বলেন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফার বন্যায় ৩৭টি জেলায় ১৪টি ফসলের প্রায় ১ লাখ ১৬ হাজার ৮৯৬ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ক্ষতির পরিমাণ ৯৭৪ কোটি টাকা। 

বন্যার পানিতে ২ লাখ ৫৭ হাজার ১৪৮ হেক্টর ফসলি জমি তলিয়ে গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, এর মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত জমির পরিমাণ ১ লাখ ৫৮ হাজার ৮১৪ হেক্টর। আর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ১২ লাখ ৭২ হাজার ১৫১ জন কৃষক। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩২ হাজার ২১৩ হেক্টর জমির আউশ ধান, ৭০ হাজার ৮২০ হেক্টর জমির আমন ধান এবং ৭ হাজার ৯১৮ হেক্টর জমির আমন বীজতলা। টাকার হিসাবে আউশ ধান ৩৩৪ কোটি, আমন ধান ৩৮০ কোটি টাকা, সবজি ২৩৫ কোটি, পাট ২১১ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

প্রতি বছরের মতো এবছরও বিভিন্ন মেয়াদে পাহাড়ি ঢলের কারণে বিভিন্ন নদ-নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করায় ফসলি জমি প্লাবিত হয় উল্লেখ করে মন্ত্রী আরো বলেন, এবার কয়েক দফার বন্যার কারণে বন্যা অনেক দীর্ঘস্থায়ী হয়েছে। ফলে ৩৭টি জেলায় আউশ ধান, আমন ধান, আমন বীজতলা, শাক-সবজি, পাটসহ বেশকিছু ফসলের অনেক ক্ষতি হয়েছে।