শনিবার   ১৯ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৩ ১৪২৬   ১৯ সফর ১৪৪১

রক্ত দিয়ে সম্পর্ক শুরু, ধর্ষণ হয়ে আত্মহত্যার মধ্যে শেষ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত : ০২:১১ পিএম, ৭ জুলাই ২০১৯ রোববার

`অসুস্থ তরুণীকে রক্ত দিতে এগিয়ে এলেন এক যুবক। অনেকটা জীবন উপহার দিলেন ওই তরুণীকে। জয় করে নিলেন তরুণীর মন। শুরু হলো প্রেমের সম্পর্ক।‘শুরুর বর্ণনায় তই ফিল্মি শব্দটি অনায়াসে জুড়ে দেয়া যায়। কিন্তু এত চমৎকার শুরুর শেষটা এত জঘন্য হবে কেউ-ই হয়তো চিন্তা করতে পারেনি।  চিন্তা করতে পারেনি সেমন্তি নামের সেই তরুণীও। 

গত ১৭জুন রাতে সেমন্তির আত্মহত্যার মধ্য দিয়ে সম্পর্কটির সমাপ্তি ঘটে। এর আগে ফাঁদে ফেলে সেমন্তিকে ধর্ষণ করেছে যুবক আবির; এমনই অভিযোগ সেমন্তির বাবার। 

সেমন্তির বাবার দেয়া তথ্যমতে, গত ১৭ জুন রাত আড়াইটা পর্যন্ত আবির ও সেমন্তি ফোনে ও ম্যাসেঞ্জারে কথা বলেছে। সেখানে সেমন্তি বার বার আবিরকে অনুরোধ করেছে, তাদের অনৈতিক সম্পর্কের কথা ফাঁস না করতে। কিন্তু উত্তরে আবির বলেছে, ‘ব্যবহার করা জিনিস আর নেই না’...। শহরের জলেশ্বরীতলা এলাকার ব্যবসায়ী হাসানুল মাশরেক রুমের মেয়ে মায়িশা ফাহমিদা সেমন্তি বগুড়া ওয়াইএমসিএ স্কুল ও কলেজে দশম শ্রেণিতে পড়তো। আর ওই এলাকার বাসিন্দা তৌহিদুল ইসলামের ছেলে আবির আহমেদ এইসএসসি পাশ করে ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোচিংয়ে পড়াশোনা করছে।

গত ১৭ জুন রাতের কোনো এক সময় নিজের শোবার ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এর আগে ওই স্কুলছাত্রী মায়িশা ফাহমিদা সেমন্তির আত্মহত্যায় রহস্য পুলিশি অনুসন্ধানে উঠে এসেছে।

অনুসন্ধান সূত্র বলছে, কথিত ‘প্রেমিক’ কলেজছাত্র আবির আহমেদ ব্ল্যাকমেইল করে গত আট মাস ধরে ধর্ষণ, এ দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার ও অবহেলা করায় সেমন্তি গত ১৭ জুন রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।