ব্রেকিং:
কুমিল্লা সমাবেশে রুমিনের মোবাইল ছিনতাই করল যুবদল কর্মী হাইমচরে নৌকার পক্ষে প্রচারণায় মাঠে ডা:টিপু ও মেয়র জুয়েল চাঁদপুর শহরের গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আজ বিশেষ মুনাজাতের মধ্যে শেষ হচ্ছে চাঁদপুর জেলা ইজতেমা মতলব উত্তর ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ রামপুরে বিষ প্রয়োগে অসহার কৃষকের মাছ নিধন ‘গুসি শান্তি পুরস্কার’ পেলেন শিক্ষামন্ত্রী মতলবের ধনাগোদা নদীতে কচুরিপানা জটে নৌ চলাচল বন্ধ ৩৫ বছরে শৈশবের স্বাদ, হতে চান উচ্চশিক্ষিত লক্ষ্মীপুরে ছাত্রদলের ১৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দক্ষিণ আফ্রিকায় নোয়াখালীর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল ২ তরুণের মুরাদনগরের সিদল যাচ্ছে বিদেশে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীসহ ২ জনের মৃত্যু যোগাযোগ সম্প্রসারণে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় আমিরাত বঙ্গবন্ধু টানেলে গাড়ি চলবে জানুয়ারিতে বিদেশিদের মন্তব্যে বিরক্ত সরকার আমনের বাম্পার ফলন রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আইওআরএ মন্ত্রীদের সাক্ষাৎ
  • রোববার   ২৭ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৩ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

তারল্য সংকট এসেছে তারেক রহমানের চাঁদাবাজিতে

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০২২  

বাংলাদেশ ব্যাংকের কোন তারল্য সংকট সৃষ্টি হয় নি। এই সংবাদটা পুরোপুরি ভাবে বিএনপি-জামাতের গুজব গ্যাংয়ের তৈরী করা। যারা বলছে দেশের ব্যাংক বন্ধ হয়ে যাবে, আপনারা টাকা তুলে ফেলুন- খোঁজ নিয়ে দেখুন তারাই ব্যাংকে লক্ষ কোটি টাকা সেভিংস করে রেখেছে। স্বাধীনতার ৫১ বছরে এই বাংলাদেশে অনেক রকম দুর্যোগ-সংকট এসেছে কিন্তু আজ পর্যন্ত কোন ব্যাংক বন্ধ হয় নি। 

বাংলাদেশ ব্যাংকে জনগণের আমানত সম্পূর্ণ নিরাপদ রয়েছে। বিভিন্ন ব্যাংকের আমানত তুলে নেয়ার যে গুজব চলছে তা একেবারেই ভিত্তিহীন। বাংলাদেশের ইতিহাসে আজ পর্যন্ত কোনদিন কোন ব্যাংক বন্ধ হয় নি। এমনকি বিশ্বজুড়ে যখন অর্থনৈতিক মন্দা চলছিলো, তখনো বাংলাদেশে কোন গ্রাহকের জমাকৃত অর্থ নষ্ট হয় নি। কোভিডের ভয়াবহ সময়েও বাংলাদেশ ব্যাংক নিজের স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রেখেছিলো। 
কিন্তু এখন কি দেশে এমন কিছু হয়েছে?  রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৌদি-কাতার তেলের দাম বাড়িয়েছে বটে;  কিন্তু ব্যাঙ্কের টাকা উধাও হবে কেন?

এখন যখন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতা যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক ভাল অবস্থানে, প্রতিদিন শত শত বৈদেশিক সংস্থা, প্রতিষ্ঠান আমাদের দেশে বাণিজ্যিক চুক্তি করছে, নিয়মিত প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন; তখন কেন কোন ব্যাংক বন্ধ হবে? এই ভুয়া গুজবটি আর কিছুই নয়, শুধুমাত্র মানুষের মনের মধ্যে ভয় ও বিভ্রান্তি ছড়াবার অপচেষ্টা।

লক্ষ্য করলে দেখবেন- এখন যারা ব্যাংকে টাকা নেই বলে গুজব ছড়াচ্ছে তারাই একসময় চাঁদে সাইদিকে দেখতে পেয়েছিলো। কোভিডের সময় স্বপ্নে করোনার ইন্টারভিউ নিয়েছিলো। পদ্মা সেতু কোনদিনও শেষ হবে না বলেছিলো। 

এমন গুজবে কান দেবেন না। চিলে কান নিয়েছে শুনে দৌঁড় দেবার আগে, নিজের কানে হাত দিয়ে দেখুন। আপনার কষ্টার্জিত টাকা ব্যাংকেই নিরাপদ। বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রনাধীন দেশের প্রতিটি ব্যাংক গ্রাহকের টাকার জন্য দায়িত্বশীল। 

রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রেও গুজবকারিদের কথায় হুন্ডিতে ঢুকবেন না। বাংলাদেশ ব্যাংকে নয়, বরঞ্চ তারল্য সংকট এসেছে তারেক রহমানের চাঁদাবাজিতে। তাই তো তাদের নেতা নেত্রীরা বলছে- ব্যাংক থেকে টাকা তুলে বিএনপির সম্মেলনে চাঁদা দিতে। আপনারা কি বুঝছেন না? বিএনপি জামাতের জঙ্গী অর্থায়নে ভাটা পড়েছে; তাই তারা চাচ্ছে দেশের সাধারণ মানুষ তাদের কষ্টার্জিত অর্থ এই দুর্নীতি চ্যাম্পিয়নদের হাতে তুলে দিক।
সোশাল মিডিয়ায় এই ধরনের গুজব প্রচার আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। এমন কোন পোস্ট নিজে শেয়ার করবেন না। কাউকে করতে দেখলে রিপোর্ট করুন। গুজব থেকে নিজে বাঁচুন। নিজের টাকা বাঁচান।