ব্রেকিং:
কেন মানুষ প্রথম প্রেম ভুলতে পারে না বৃষ্টিপাত নিয়ে আজ যে দুঃসংবাদ জানালো আবহাওয়া অফিস আমরা এক দেশপ্রেমিক জননেতাকে হারালাম : প্রধানমন্ত্রী স্কুলে কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করলো পাকিস্তান ধারণার চেয়েও ভয়ঙ্কর করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট: সিডিসি আশপাশের শ্রমিকদের দিয়েই চলবে কারখানা হেলেনার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় আরেক মামলা সিনহা হত্যার এক বছর: ‘প্রদীপের’ নিচেই ছিল অন্ধকার বিশ্বব্যাপী করোনায় মুত্যু কমলেও বেড়েছে আক্রান্ত চালু হতে না হতেই রোগীদের দখলে দুই হাসপাতালের ১৪ আইসিইউ বিশ্বের সাইবার সিকিউরিটির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি যুক্তরাষ্ট্র: চী বিষ দিয়ে যুবককে হত্যা করলেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন নিয়মনীতিহীন আইপি টিভির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: তথ্যমন্ত্রী প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে বাফুফের তামাশা, শুরুর এক ঘণ্টা আগে স্থগিত জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকা ব্যক্তিরা টিকা পাবেন বিশেষ প্রক্রিয়ায় দর্শকশূন্য ব্যতিক্রমধর্মী ‘ইত্যাদি’ আজ বাংলাদেশে বিনিয়োগে সর্বোচ্চ মুনাফা কৃষিতে ২৮ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেবে ব্যাংকগুলো মাঠ পর্যায় থেকেই ভূমির ভুল রেকর্ড সংশোধনের নির্দেশ সামাজিক মাধ্যমে অপরাধ দমনে সাইবার পেট্রোলিং টিম
  • শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

সরকারের ভালো কাজ দেখলেই বিএনপির জ্বালা বাড়ে: ওবায়দুল কাদের

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৯ জুলাই ২০২১  

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকারের জনস্বার্থে যেকোনো কাজ কিংবা সাফল্য বিএনপির গায়ে জ্বালা বাড়ায়, তাদের দৃষ্টিসীমায় উদ্দেশ্যমূলক অন্ধত্ব ভর করে। 

সোমবার সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে ব্রিফিংয়ে তিনি আরো বলেন, আসলে বিএনপিই লকডাউন প্রসঙ্গে জনগণের সঙ্গে মর্মান্তিক তামাশা করেছে, তারা কখন কী বলে, নিজেরাও জানে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা একবার বলে লকডাউন দরকার, আবার বলেন কঠোর লকডাউন দিন। পরক্ষণেই বলেন লকডাউনে সমাধান নয়, ক্ষতিপূরণ দিন। তারা এক সময় ভ্যাকসিনের বিরুদ্ধেও অপপ্রচার করেছিলেন। আবার বলে কারফিউ দিলে জনগণ মানবেন না- অথচ সরকার কারফিউ’র কথা ভাবেওনি। 

বিএনপির হঠকারিতা এবং নেতিবাচক রাজনীতির কারণে তাদের অনেক নেতাকর্মী নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছে মন্তব্য করে সেতুমন্ত্রী বলেন, সরকারে থাকতে যেমনি অনিয়ম ও দুর্নীতিতে তারা নিমজ্জিত ছিল, তেমনি সরকার বিরোধী রাজনীতিতে থেকেও তারা সুবিধাবাদিতায় নিমজ্জিত। বিএনপির একগুঁয়েমি ও মুখোশ পরা অপকৌশলের জন্য এরই মধ্যে জোট সঙ্গীরাও দল ছাড়তে শুরু করেছে। মানুষের ধর্মবিশ্বাসকে পুঁজি করে তাদের রাজনীতির যে খেলা, তা জোট সঙ্গীরাই এখন ফাঁস করে দিচ্ছেন। 

তিনি বলেন, বিরোধী দল হিসেবে চরমভাবে ব্যর্থ বিএনপি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে নানারকম বাক্যবাণে কর্মীদের চাঙ্গা রাখার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি অনবরত বিষোদগার করে যাচ্ছে অথচ জণকল্যাণে তাদের কোনো কার্যক্রম নেই। অবশ্য বিএনপি একটা কাজই অনবরত করে যাচ্ছে, তা হচ্ছে সরকারের অন্ধ সমালোচনা।

জনগণ বিএনপির এসব শব্দ বোমায় এখন আর কান দেয় না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, শেখ হাসিনা সরকার জনস্বার্থে দিন-রাত কাজ করছে এবং করে যাবে। বিএনপির কাজই হলো সমালোচনা করা। গৃহকোণ থেকে মিডিয়ায় অব্যাহত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে ও নসিহত করে যাচ্ছে। বিএনপি এখন জনবিচ্ছিন্ন হয়ে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা ছেড়ে কথা নির্ভর কনসাল্টেন্সির ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। 

তিনি বলেন, পবিত্র ঈদ উপলক্ষে বিশেষ সহায়তা, খাদ্য সহায়তা, কৃষকদের মাঝে অনুদান বিতরণ, সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনির পরিধি এবং সুবিধাভোগীদের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ অসংখ্য কাজের কোনটিই বিএনপির চোখে পড়ে না। তাদের দৃষ্টিতে সরকার কিছুই করছে না। উটপাখির মত বালিতে মাথা গুঁজে দিয়ে তারা সত্য আড়াল করে আর মিথ্যাচার করে।