ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

শিশু নির্যাতনকারীদের ছাড় নহে

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০২৪  

চৌর্যবৃত্তির অভিযোগে নোয়াখালীতে যেইভাবে শিশুচতুষ্টয়কে নিদ্রা হইতে তুলিয়া লইয়া নির্যাতন করা হইয়াছে, উহা উদ্বেগজনক ও নিন্দনীয়। ঠুনকো অজুহাতে প্রায়শ এইভাবে শিশু-কিশোর নিপীড়ন মানিয়া লওয়া যায় না। ইতোপূর্বে এহেন নির্যাতনে এমনকি প্রাণহানি ঘটিলেও কাহারও মধ্যে বিকার না থাকিবার বিষয়টিও গভীরভাবে ভাবিয়া দেখা প্রয়োজন। স্বাভাবিকভাবেই সকল খবর সংবাদমাধ্যমে পৌঁছায় না। কিন্তু শিশু-কিশোর নির্যাতনের যৎসামান্য পাওয়া যায়, উহা যেই কোনো সভ্য সমাজের জন্য ভয়াবহ হইতে বাধ্য। 

সমকালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত শনিবার রাত্রিতে নোয়াখালীর সেনবাগে জনৈক খোরশেদের শূন্য গৃহে চুরি সংঘটিত হয়। তিনি ঐ সময় ঢাকায় অবস্থান করিতেছিলেন। গৃহে ফিরিয়া তিনি কয়েকজনকে সঙ্গে লইয়া আলোচ্য চার কিশোরকে তুলিয়া আনিয়া চৌর্যবৃত্তির স্বীকারোক্তির জন্য হাতুড়ি ও ধাতব নল দিয়া এলোপাতাড়ি প্রহার করেন। এমনকি প্লাইয়ার্স দিয়া নখ উৎপাটনের অপচেষ্টা করিলে কিশোরদের চিৎকারে স্বজনরা জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল করিতে বাধ্য হন। এমতাবস্থায় পুলিশ আসিয়া উহাদের উদ্ধার করে। যদিও এহেন ভয়াবহ নির্যাতনের পরও খোরশেদসহ সংশ্লিষ্টরা গ্রেপ্তার হন নাই। পুলিশের বক্তব্য, স্থানীয় কাউন্সিলর মীমাংসার দায়িত্ব লইয়াছেন।

আমরা মনে করি, এই ক্ষেত্রে দুই দফা আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়াছে। প্রথমত, চৌর্যবৃত্তি ঘটিয়া থাকিলে উহার বিধিবদ্ধ ব্যবস্থার জন্য দেশে আইন-আদালত রহিয়াছে। সন্দেহবশত পেশিশক্তিতে কাহাকেও তুলিয়া লইয়া নির্যাতন চলিতে পারে না। এমনকি অকুস্থলে বমাল ধরা পড়িবার পরও শারীরিক নির্যাতন আইনসিদ্ধ নহে। দ্বিতীয়ত, বেআইনিভাবে নির্যাতনকারীকে পুলিশ কাউন্সিলের হস্তে ছাড়িয়া দিবে কেন? আলোচ্য ক্ষেত্রে সন্দেহাতীতভাবেই ফৌজদারি অপরাধ সংঘটিত ঘটিয়াছে। নির্যাতনের সহিত জড়িত প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনাই পুলিশের দায়িত্ব ও কর্তব্য। এইরূপ কর্তব্য পরিহারের নেপথ্যে নগদ নারায়ণের ভূমিকা রহিয়াছে কিনা, খতাইয়া দেখা জরুরি।
আমরা দেখিয়াছি, নিছক মশকরার নামেও ইতোপূর্বে শিশুদের উপর নির্মম নির্যাতন চলিয়াছে। চৌর্যবৃত্তির অভিযোগে নিপীড়ন ক্রমেই বাড়িয়া চলিয়াছে। এই প্রবণতা বৃদ্ধির নেপথ্যে পুলিশের ইচ্ছাকৃত কিংবা অনিচ্ছাকৃত ঔদাসীন্য যে বহুলাংশে দায়ী– নোয়াখালীর সেনবাগে উহা আরেকবার প্রমাণ হইল। বিলম্বে হইলেও আমরা দেখিতে চাহিব, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ শিশু-কিশোর নির্যাতনকারীদের ব্যাপারে শূন্য সহিষ্ণুতা দেখাইতেছেন।