ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

নোয়াখালীতে ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা, পুলিশের গুলিতে আহত

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩০ মে ২০২৪  

নোয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শওকত রেজা চৌধুরী আরমানের লোকজন। এ সময় প্রিসাইডিং কর্মকর্তার নির্দেশে পুলিশ গুলি ও লাঠিপেটা শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়। তবে পুলিশের ছোড়া গুলিতে ৫ জন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আহতরা বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী এ কে এম শামছুদ্দিন জেহানের সমর্থক।

বুধবার (২৯ মে) দিবাগত রাতে উপজেলার ৯ নম্বর কালাদরাপ ইউনিয়নের উত্তর শুল্লুকিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

আহতরা হলেন- উপজেলার কালাদরাপ ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর শুল্লুকিয়া গ্রামের মোহাম্মদ উল্যার ছেলে আব্দুল মান্নান, শাহ আলমের ছেলে মামুনুর রশিদ মান্না, হানিফের ছেলে রাকিব, আবুল কালামের ছেলে কবির ও একই গ্রামের রফিক উল্যার ছেলে জামাল।

সুধারাম মডেল থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি বলেন, ভোটগ্রহণ শেষে গণনা চলছিল। হঠাৎ চেয়ারম্যান প্রার্থী আরমানের লোকজন উত্তেজিত হয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করে ভাঙচুর ও ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। সে সময় প্রিসাইডিং কর্মকর্তার নির্দেশে পুলিশ গুলি ও লাঠিপেটা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে দুইজন সামান্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় প্রিসাইডিং অফিসার বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৬০-৭০ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।