ব্রেকিং:
মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে প্রসূতিকে বের করে দিলেন আয়া,অতঃপর . মাদরাসায় বাংলায় সাইনবোর্ড স্থাপনের নির্দেশ সরকার সবার জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন নিশ্চিত করছে দেশে খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই: খাদ্যমন্ত্রী নতুন স্ন্যাপড্রাগন আসছে এ সপ্তাহেই ১৮ মাসের কাজ শেষ হয়নি ৬২ মাসেও অ্যান্টিবায়োটিক চেনাতে চিহ্ন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত সরকারের ফেসবুক পোস্টে ‘হা হা’ দেওয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশ মোতায়েন নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে হবে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, গলায় পোড়া দাগ গরু-ছাগলের মাংসে যক্ষ্মার জীবাণু শনাক্ত টানা ২৮ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ, কমলো শনাক্ত বন্যার্তদের দুঃসময়ে সরকার পাশে রয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক্তন স্বামীর হামলায় আহত চিকিৎসক স্ত্রী ডাইনিং বন্ধ, হোটেলে উচ্চমূল্য: বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের প্রাণহানি: গবেষণা ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে ৩৭৫২ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু ‘শুধু চোর নয়, চোরাই মোবাইল বিক্রেতারাও গ্রেফতার হবে’ কক্সবাজারে অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণ নয়: প্রধানমন্ত্রী চরাঞ্চলের জনগণের ক্ষুধা-দারিদ্র্য হ্রাসে প্রকল্প নেয়া হয়েছে
  • বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ফিরিঙ্গির পোলের সংস্কার কি বড় কোন দুর্ঘটনার পর হবে?

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২২  

নোয়াখালীর অতি প্রাচীন একটি সেতু শহরের বুক চিরে চলে যাওয়া সদর পূর্বাঞ্চল সহ কবিরহাট, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার নানান গন্তব্যে পৌঁছানোর রাস্তায় যার অবস্থান। ফিরিঙ্গি মানে ইংরেজদের তৈরি বলে এর নাম ফিরিঙ্গির পোল (সেতু), স্থানীয় ভাষায় কাছে হেরাঙ্গির হোল নামেই সর্বাধিক পরিচিত।
পূর্বাঞ্চল থেকে নোয়াখালীর মূল প্রশাসনিক শহর মাইজদীতে প্রবেশের জন্য এই সেতুটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে যুগের পর যুগ ধরে। শুনেছি মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে নাকি হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী আর তার দোসররা এই সেতুর উপর মুক্তিকামী বাঙ্গালীদের ধরে এনে কখনো জবাই করে, কখনোবা গুলি করে হত্যা করে লাশ ফেলে দিতো নীচের প্রবাহমান খালের পানিতে।

বিগত কয়েক বছর ধরে এই সেতুটির অবস্থা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়লেও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে দেখা যায় নাই। অবশ্য কোন বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটবার আগে এদেশে কারো চেতনা জাগে না। এই সেতু নির্মাণ হওয়ার পর থেকে অদ্যাবধি এর কোন সংস্কার করা হয়েছে এমন কোন রেকর্ড আছে বলে মনে হয় না। অন্তত আমি নোয়াখালী থাকাকালীন সময়ে কখনো দেখি নাই। এই সেতুর উপর দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন আসা যাওয়া করে যার মধ্যে অনেক ধরনের ভারী পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত গাড়িও রয়েছে। বর্তমানে সেতুটির এমনই দূরাবস্থা যে যেকোন মুহূর্তে বড় ধরনের কোন দূর্ঘটনা ঘটে যাওয়া বিচিত্র কিছু নয়। সেতুর পিলারগুলো অনেক আগেই তাদের মেয়াদ হারিয়েছে, সেতুর রেলিঙের অবস্থাও যাচ্ছেতাই। মেঝেতেও ফাটলসহ গর্ত হয়ে গেছে কয়েক জায়গাতে।

সড়ক ও জনপথ, নাকি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কে এই জরাজীর্ণ সেতুর দেখভাল করার দায়িত্বে আছে আমার জানা নাই। সেতুটি যেন অসহায় এতিম এক সন্তান যার প্রতি কারোরই কোন নজর নাই। এর বর্তমান যে অবস্থা তাতে করে একে সংস্কার করে আদৌ কোন সুফল আসবে কিনা তা নিশ্চিত নয়। তার পরিবর্তে এখানে নতুন করে একটা সেতু নির্মাণ একেবারে জরুরি প্রয়োজন হয়ে গেছে বলে মনে করি। নোয়াখালীর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কি এবার অন্তত এদিকে নজর দিবেন? আমাদের সেতুমন্ত্রী যেখানে বিশাল আকারের পদ্মা সেতু তৈরির পাশাপাশি অসংখ্য ছোট বড় সেতু নির্মাণ নিয়ে রাতদিন অতি ব্যতিব্যস্ত রয়েছেন সেখানে স্বয়ং সেতুমন্ত্রীর নিজ জেলায় এমন একটা জরাজীর্ণ মেয়াদোত্তীর্ন সেতু কি বড্ড বেমানান নয়?