ব্রেকিং:
মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে প্রসূতিকে বের করে দিলেন আয়া,অতঃপর . মাদরাসায় বাংলায় সাইনবোর্ড স্থাপনের নির্দেশ সরকার সবার জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন নিশ্চিত করছে দেশে খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই: খাদ্যমন্ত্রী নতুন স্ন্যাপড্রাগন আসছে এ সপ্তাহেই ১৮ মাসের কাজ শেষ হয়নি ৬২ মাসেও অ্যান্টিবায়োটিক চেনাতে চিহ্ন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত সরকারের ফেসবুক পোস্টে ‘হা হা’ দেওয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশ মোতায়েন নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে হবে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, গলায় পোড়া দাগ গরু-ছাগলের মাংসে যক্ষ্মার জীবাণু শনাক্ত টানা ২৮ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ, কমলো শনাক্ত বন্যার্তদের দুঃসময়ে সরকার পাশে রয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক্তন স্বামীর হামলায় আহত চিকিৎসক স্ত্রী ডাইনিং বন্ধ, হোটেলে উচ্চমূল্য: বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের প্রাণহানি: গবেষণা ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে ৩৭৫২ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু ‘শুধু চোর নয়, চোরাই মোবাইল বিক্রেতারাও গ্রেফতার হবে’ কক্সবাজারে অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণ নয়: প্রধানমন্ত্রী চরাঞ্চলের জনগণের ক্ষুধা-দারিদ্র্য হ্রাসে প্রকল্প নেয়া হয়েছে
  • বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

নোয়াখালীতে বীর নিবাস প্রকল্পের দরপত্র বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৮ এপ্রিল ২০২২  

নোয়াখালীর সেনবাগে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন (বীর নিবাস) নির্মাণ প্রকল্পের সাড়ে ১৪ কোটি টাকার কাজের দরপত্র বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) এ ঘটনায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) এর বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছন ঠিকাদাররা।

সেনবাগের পিআইও কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০২১-২০২২ অর্থবছরে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় থেকে নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ৯ ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১০৬ জন দরিদ্র বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন (বীর নিবাস) নির্মাণ কাজের জন্য সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিক ও স্থানীয় দৈনিকে দরপত্র বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী সোমবার (২৫ এপ্রিল) বিকেল পর্যন্ত দরপত্র বিক্রির শেষ সময় ছিল। দরপত্র অনুযায়ী ১০৬টি ঘর ২১ টি গ্রুপে নির্মাণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৪ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ১৪ লাখ ১০ হাজার টাকা। দরপত্রের মূল্য নির্ধারণ করা হয় দুই হাজার টাকা। কিন্তু পিআইও অখিল শিকারি যোগসাজশ করে মাত্র আটজন ঠিকাদারের কাছে গোপনে দরপত্র বিক্রির অভিযোগ ওঠে।

সেনবাগ উপজেলার বাসিন্দা ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স শান্তনু এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আবদুল মতিনসহ ছয় ঠিকাদার লিখিত অভিযোগে বলেন, সোমবার দুপুর ১২টার দিকে তারা ছয়জন ঠিকাদার দরপত্র কিনতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে যান। এ সময় পিআইও অফিসে না থাকায় তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। পিআইও তাদের কাছে দরপত্র বিক্রি করবেন বলে আশ্বাস দিলেও বিকেল ৪টার পর তিনি কার্যালয়ে এসে বলেন দরপত্র বিক্রির সময় সাড়ে ৩টায় শেষ হয়ে গেছে।

ঠিকাদার নুরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, পিআইও স্থানীয় অসাধু ঠিকাদার সিন্ডিকেটের সঙ্গে আঁতাত করে ১৫ কোটি টাকার প্রকল্প নামমাত্র দরপত্রে সরকারের টাকা আত্মসাৎ করার জন্যই পরিকল্পিতভাবে গোপনে দরপত্র বিক্রি করেছেন। এ দরপত্র বাতিল করে পুনরায় দরপত্র আহবানের দাবি জানাই।

জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা অখিল শিকারী তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কয়েকজন ঠিকাদার শিডিউল বিক্রির শেষ দিনের নির্ধারিত সময়ের পরে এসেছিলেন। তাই তাদের কাছে শিডিউল বিক্রি করা হয়নি।

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুন নাহার বলেন, শেষ দিন সাংবাদিকরা আমাকে ফোন দিয়ে শিডিউল কিনতে না পারার বিষয়টি জানিয়েছেন। কিন্তু তখন অফিস সময় শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে কিছু করা যায়নি।

অভিযোগের বিষয়ে নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় কয়েকজন ঠিকাদার দরপত্র কিনতে পারেননি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।