ব্রেকিং:
মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে প্রসূতিকে বের করে দিলেন আয়া,অতঃপর . মাদরাসায় বাংলায় সাইনবোর্ড স্থাপনের নির্দেশ সরকার সবার জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন নিশ্চিত করছে দেশে খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই: খাদ্যমন্ত্রী নতুন স্ন্যাপড্রাগন আসছে এ সপ্তাহেই ১৮ মাসের কাজ শেষ হয়নি ৬২ মাসেও অ্যান্টিবায়োটিক চেনাতে চিহ্ন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত সরকারের ফেসবুক পোস্টে ‘হা হা’ দেওয়ায় ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশ মোতায়েন নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে হবে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, গলায় পোড়া দাগ গরু-ছাগলের মাংসে যক্ষ্মার জীবাণু শনাক্ত টানা ২৮ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ, কমলো শনাক্ত বন্যার্তদের দুঃসময়ে সরকার পাশে রয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক্তন স্বামীর হামলায় আহত চিকিৎসক স্ত্রী ডাইনিং বন্ধ, হোটেলে উচ্চমূল্য: বিপাকে কুবি শিক্ষার্থীরা দূষণে বছরে ৯০ লাখ মানুষের প্রাণহানি: গবেষণা ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে ৩৭৫২ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু ‘শুধু চোর নয়, চোরাই মোবাইল বিক্রেতারাও গ্রেফতার হবে’ কক্সবাজারে অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণ নয়: প্রধানমন্ত্রী চরাঞ্চলের জনগণের ক্ষুধা-দারিদ্র্য হ্রাসে প্রকল্প নেয়া হয়েছে
  • বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯

  • || ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

কিছু টিকা হাতে আর কিছু টিকা নিতম্বে দেওয়া হয় কেন?

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৩ এপ্রিল ২০২২  

নিশ্চয়ই জানেন, বিভিন্ন রকম রোগ থেকে বাঁচতে টিকা দেওয়া হয়ে থাকে। তা সে করোনা হোক বা জলাতঙ্ক, অসংখ্য মারণ রোগের হাত থেকে রক্ষা পেতে মানুষের ভরসা হরেক রকমের টিকা। আর এই টিকা নিতে জামার হাতা তুলে হাত বা বাহু এগিয়ে দেওয়াই দস্তুর। তবে মাঝে মাঝে অবশ্য হাতে কাজ হয় না। টিকা দিতে হয় পশ্চাৎদেশে।

শুধু টিকাই নয়, বিভিন্ন ধরনের ইঞ্জেকশন নেয়ার সময়ও মাঝে মধ্যে হাতের বদলে বেছে নেয়া হয় অন্য কোনো স্থান। কিন্তু কেন বাহুর বদলে অন্য স্থানে এই ধরনের ইঞ্জেকশন দেওয়া হয় জানেন কি?

সাধারণত বাহুর যে স্থানে টিকা দেওয়া হয় সেই পেশিটির নাম ডেল্টয়েড পেশি। কিন্তু এই পেশিটি বেশি পরিমাণ ওষুধ গ্রহণ করতে পারে না। সাধারণত এক মিলিলিটার বা তার কম পরিমাণ ওষুধই এই পেশিতে দেওয়া হয়। তাই যখন বেশি পরিমাণ ওষুধ পেশির মধ্যে ইঞ্জেকশন মারফত দিতে হয়, তখন অন্য কোনো স্থানের প্রয়োজন পড়ে।

পশ্চাৎদেশের যে অংশে ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়, সেই পেশিটির নাম ভেন্ট্রো গ্লুটিয়াল পেশি। তবে ঠিক 'নিতম্ব' বলতে যা বোঝায়, এটি তার থেকে একটু পাশের দিকে অবস্থিত। এই পেশিটি ইঞ্জেকশন দেওয়ার জন্য অত্যন্ত নিরাপদ একটি স্থান। শরীরের এই অঞ্চলে বিশেষ কোনো গুরুত্বপূর্ণ রক্তবাহ কিংবা স্নায়ু থাকে না। ৭ মাস বয়সের পর থেকেই এখানে টিকা দেওয়া যেতে পারে। আগেকার দিনে নিতম্বের ডারসো গ্লুটিয়াল নামক পেশিতে ইঞ্জেকশন দেওয়া হত। এখন আর চিকিৎসকরা সাধারণত এই পেশিতে টিকা দেন না। কারণ এই পেশির কাছেই থাকে সায়াটিক স্নায়ু। এই অংশে টিকাকরণের সময় এই স্নায়ুটির ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।