ব্রেকিং:
কোটাবিরোধীতায় অশুভ শক্তি নেমেছে : ওবায়দুল কাদের প্রান্তিক মানুষের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সব করব : সামন্ত লাল চোরাই মোবাইলের স্বর্গরাজ্য চট্টগ্রামের রিয়াজউদ্দিন বাজার বৃষ্টির পানিতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ২ ফার্নিচার কর্মচারীর মৃত্যু ২২ কেজির কোরাল বিক্রি হলো ২৬ হাজার টাকায় আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠকে ওবায়দুল কাদের প্রতিবন্ধী তরুণকে কুকুর লেলিয়ে হত্যা করল ইসরায়েলি সেনারা ফেনী বন্যাদুর্গত ৭০০ পরিবার পেলো ত্রাণ সামগ্রী এক সপ্তাহে ৭৪১১ কোটি টাকা বাজার মূলধন হারালো ডিএসই রাজধানীতে পিতার ১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা চুরি করলেন মেয়ে নৈশ প্রহরীকে বেঁধে বাজারে দুর্ধর্ষ ডাকাতি পচা কাঠের পোকা, দাম ৭৫ লাখ! জানেন কেন? দেশে ফিরেছেন ৬৭৯৭৪ হাজি সারাদেশে ইন্টারনেটে ধীরগতি আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা
  • রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ মুহররম ১৪৪৬

টাকা দিল শিক্ষাঙ্গন, ‘নাম’ কিনল ছাত্রলীগ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০২৪  

ঈদের দিন ঢাকায় অবস্থানরত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের আপ্যায়নের ব্যবস্থা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ আয়োজনের পুরো খরচ বহন করা হয় জবির তহবিল থেকে। তবে বণ্টনে সহযোগিতা করে জবি শাখা ছাত্রলীগ। অভিযোগ উঠেছে, বণ্টনে সহযোগিতার সুযোগে ‘ছাত্রলীগের আপ্যায়ন’ বলে প্রচারণা চালানো হয়।

সোমবার (১৭ জুন) জবিতে ঢাকায় ও ছাত্রী হলে থাকা শিক্ষার্থীদের আপ্যায়ন করা হয়। এ সময় প্রক্টরিয়াল টিমের সহকারী প্রক্টর নিউটন হাওলাদার, মনির হোসেন, কিশোর রায়, মাসুদ রানাসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নানা শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। খাবার বণ্টনে তাদের সঙ্গে জবি শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও ছিলেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ঘেটে দেখা যায়, জবি শাখা ছাত্রলীগের উদ্যোগে ঈদের দিন শিক্ষার্থীদের আপ্যায়ন করা হয়েছে বলে পোস্ট দিয়েছেন জবি একাধিক নেতাকর্মী। কোনো কোনো পোস্টে- ছাত্রলীগ থেকে সব আয়োজন করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। এসব পোস্টে জবি প্রশাসনের কোনো কথাই উল্লেখ নেই।

এ বিষয়ে জবির প্রক্টর ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, আপ্যায়ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। দেড় লাখ টাকার বেশি ব্যয়ে পুরো খরচ জবি প্রশাসন বহন করেছে। জবি শাখা ছাত্রলীগকে খাবার বণ্টনে সহযোগিতা করতে বলা হয়েছিল। খাবার বণ্টনের সময় আমাদের প্রক্টরিয়াল বডি উপস্থিত ছিল। শিক্ষার্থীরা যারা ক্যাম্পাসে এসেছে, সবাইকে আপ্যায়ন করা হয়েছে। ছাত্রীদের হলেও আপ্যায়ন করা হয়েছে। কেউ যদি বিভ্রান্তি ছড়ায় বিষয়টি বিব্রতকর।

তিনি বলেন, আমরা দেখতে পারছি যে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু শিক্ষার্থী আমাদের অন্যান্য শিক্ষার্থীদের ভুল তথ্য দিচ্ছে। তারা বলার চেষ্টা করছে, প্রশাসন আমাদের আপ্যায়নের কথা বলে কোনো আয়োজন করেনি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমাদের আয়োজনই শুধু ছাত্রলীগকে দিয়ে করানো হয়েছে। এ আয়োজনে যত অর্থের প্রয়োজন, তা হিসাব করে আমি নিজে ছাত্রলীগের হাতে দিয়েছি। এমনকি বাবুর্চি পর্যন্ত ঠিক করে দিয়েছি আমি উপস্থিত থেকে। তারপরও কেন এমন অসত্য তথ্য প্রচার করা হচ্ছে, আমি জানি না।

অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অর্থায়নে শিক্ষার্থীদের আপ্যায়নের বিষয়টি স্বীকারও করেছেন জবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহিম ফরাজি।

ইব্রাহীম ফরাজি বলেন, আমাদের নিজের অর্থায়নে নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের আর্থিক সহায়তায় আমরা শিক্ষার্থীদের আপ্যায়ন করেছি। ঢাকায় অবস্থানরত শিক্ষার্থী, ছাত্রী হল, হলের স্টাফ ও তাদের বাচ্চা-কাচ্চাসহ সব মিলিয়ে সাড়ে ৩০০ জনকে আপ্যায়ন করা হয়েছে।