ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধ বেড়েছে ১২৪ শতাংশ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০২৪  

চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে বিদেশি ঋণের সুদ আসলসহ পরিশোধের পরিমাণ ২৮১ কোটি ১৮ লাখ ডলার। টাকার অঙ্কে যা ৩০ হাজার ৯২৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ের ঋণ পরিশোধের এ পরিমাণ ছিল ১৯ হাজার ২৪৮ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে ১১ হাজার ৬৭৫ কোটি ৪ লাখ টাকা ঋণ পরিশোধ বেড়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। গত রাতে সংস্থার ওয়েবসাইটে প্রতিবেদনটি প্রকাশ হয়।
জানা গেছে, এ অর্থবছরে শুধু সুদ পরিশোধ করতে হয়েছে ১২ হাজার ৬২৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা; যা আগের অর্থবছরের তুলনায় ১২৪ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি। ডলারের হিসাবে সুদ পরিশোধ বেড়েছে ১০১ দশমিক ৫৫ শতাংশ। মূলত টাকার অবমূল্যায়নের কারণে ঋণের বিপরীতে সুদ পরিশোধ করতে হচ্ছে বেশি।

ইআরডির তথ্যানুযায়ী, গত ১০ মাসে সরকার যে ঋণ পরিশোধ করেছে তার মধ্যে আসল ঋণ ১৮ হাজার ২৯৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। বাকি ১২ হাজার ৬২৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা সুদ বাবদ দিতে হয়েছে। কিন্তু গত অর্থবছরের একই সময়ে সরকারের ঋণ পরিশোধ করতে হয়েছিল ১৯ হাজার ২৪৮ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এর মধ্যে আসল ছিল ১৩ হাজার ৬২৫ কোটি ৪৮ লাখ আর সুদ শোধ করতে হয়েছিল ৫ হাজার ৬২৩ কোটি ১১ লাখ টাকা। অর্থাৎ গত অর্থবছরের একই সময়ের
তুলনায় চলতি অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত দ্বিগুণের বেশি সুদ পরিশোধ করতে হয়েছে।   

এ সময়ে ডলারের হিসাবে ঋণ পরিশোধ করতে হয়েছে ২৮১ কোটি ১৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার; যা আগের বছরে ছিল ১৯৫ কোটি ৫৯ লাখ ডলার।  এ সময় ঋণের বিপরীতে সুদ পরিশোধ করতে হয়েছে ১১৪ কোটি ৮০ লাখ ৫০ হাজার ডলার। আগের বছর ছিল ৫৬ কোটি ৯৫ লাখ ৯০ হাজার ডলার। অর্থাৎ ডলারের হিসাবে ৫৭ কোটি ৮৪ লাখ ৬০ হাজার ডলার সুদ পরিশোধ বেড়েছে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে বিদেশি ঋণের অর্থছাড় হয়েছে ৬২৮ কোটি ৪০ লাখ ২০ হাজার ডলার। যা আগের অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৫৯১ কোটি ৬৩ লাখ ১০ হাজার ডলার। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে অর্থছাড় ৩৬ কোটি ৭৭ লাখ ১০ হাজার ডলার বেড়েছে। ঋণের অর্থছাড় বাড়লেও কমেছে অনুদানের অর্থ। অর্থবছরের ব্যবধানে যেখানে ঋণের অর্থছাড় বেড়েছে প্রায় ৪০ কোটি, সেখানে অনুদান কমেছে প্রায় ৪০ কোটি ডলার।

জানা গেছে, অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে সবচেয়ে বেশি ঋণের অর্থছাড় করেছে জাপান। এ পর্যন্ত দেশটি থেকে অর্থছাড়  হয়েছে ১৬৬ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা এডিবি ঋণ ছাড় করেছে ১৪৯ কোটি ৯৩ লাখ ডলার। এরপর বিশ্বব্যাংক ছাড় করেছে ১০৫ কোটি ১৮ লাখ ডলার। এ ছাড়া রাশিয়া ৮৫ কোটি ৭৮ লাখ ডলার, চীন ৩৬ কোটি ১৭ লাখ ডলার ছাড় করেছে। ভারত দিয়েছে ২৪ কোটি ২২ লাখ ডলার। বাকি অর্থ অন্যান্য দাতা সংস্থা থেকে এসেছে।