ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

অর্থনৈতিক সংকট: তিন ইস্যুতে কঠোর হচ্ছে সরকার

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২৪  

আগামী ৬ জুন জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ করা হবে। টানা চতুর্থ মেয়াদের মত দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করে আওয়ামী লীগ সরকারের এটিই হবে প্রথম বাজেট। আর এমন এক সময়ে এবার বাজেট দেওয়া হচ্ছে যখন অর্থনৈতিক সংকট ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে। কিছু কিছু দৃশ্যমান সংকট সকলের জন্য উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে।

সরকারও অর্থনৈতিক সংকটের কথা অস্বীকার করছে না বরং অর্থনৈতিক সংকট সমাধানের জন্য সরকার বিভিন্ন রকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থনৈতিক সংকট নিরসনের জন্য দফায় দফায় নানা রকম সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। সে সমস্ত সিদ্ধান্ত অনেক ক্ষেত্রেই তালগোল পাকিয়ে ফেলেছে বলেও বিভিন্ন মহল অভিযোগ করেছেন।

বিশেষ করে ব্যাংকের সুদ সীমা উঠিয়ে দেওয়া, এক ধাপে ডলারের মূল্য ৭ টাকা বাড়ানো কিংবা ক্রলিং পদ্ধতি প্রবর্তন ইত্যাদি সিদ্ধান্তগুলো কতটা বাস্তবসম্মত, কতটা দাতাদের চাপে সে নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আর এ কারণেই এবারের বাজেট অর্থনীতির জন্য একটি বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন।

সরকারের পক্ষ থেকে অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান বলেছেন যে, এবারের বাজেটের প্রধান লক্ষ্য হল মুদ্রাস্ফীতি হ্রাস করা এবং জীবনযাত্রাকে সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা। তবে সরকারের পক্ষ থেকে আগামী অর্থ বছরে বড় অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে ওঠার জন্য তিনটি ইস্যুকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে এবং এই তিনটি ইস্যুতে সরকার কঠোর অবস্থানে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে সরকার এই নিয়ে প্রস্তুতি শুরু করেছে বলে জানা গেছে।

১. ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ
ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কী কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে সেটির একটি নির্দেশনা চূড়ান্ত করে ফেলেছে। এই সমস্ত ঋণখেলাপিরা ১ জুলাই থেকে বিদেশে যেতে পারবেন না, তারা কোন সুযোগ সুবিধা পাবেন না, কোন নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার জন্য ট্রেড লাইসেন্স বা কোম্পানি করতে পারবেন না- ইত্যাদি নানা রকম বিধি-নিষেধ আরোপ করা হচ্ছে দুষ্ট ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে।

২. দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান
আওয়ামী লীগ তার চতুর্থ দফার নির্বাচনী ইস্তেহারে দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা নীতি ঘোষণা করেছিল এবং দুর্নীতিবাজদের আইনের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছিল। এবার সরকার এ ব্যাপারে কঠোর হতে যাচ্ছে বলেই জানা গেছে।

চিহ্নিত দুর্নীতিবাজদের আইনের আওতায় আনা এবং তাদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার একটি সংস্কৃতি চালু করতে চাইছে এবং সরকারি কেনাকাটায় দুর্নীতি বন্ধের জন্য সরকার আরও স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে উদ্যোগ গ্রহণ করছে। দুর্নীতির পাশাপাশি অপচয় বন্ধের জন্য সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, যা আগামী বাজেটে জানা যাবে বলে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানিয়েছে।

৩. অর্থ পাচার
অর্থ পাচার প্রতিরোধে সরকার গতবছর থেকেই বেশ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। কিন্তু সেই উদ্যোগ সফলতার মুখ দেখেনি। অর্থ পাচার বন্ধের জন্য এবং পাচারকৃত অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য গত বছরই সরকারের পক্ষ থেকে দায়মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। যারা বিদেশ থেকে অর্থ নিয়ে আসবেন তাদেরকে কোনো কিছু জিজ্ঞেস করা হবে না বলেও ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু তার ব্যাপারে কোন ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যায়নি। এখন সরকার কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে। অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করার ব্যাপারে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

ইতোমধ্যে অর্থ পাচার প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সরকারের সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। আর বিদেশে যারা অবৈধভাবে অর্থ পাচার করেছে তাদের তালিকা প্রস্তুত করার কাজটিও চলছে। তবে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, এটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয়, সহজ নয়। আর এ কারণেই সরকারের পক্ষ থেকে অর্থ পাচার প্রতিরোধে দ্রুত কোনও ফলাফল নাও পাওয়া যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে এই তিনটি ইস্যুকে আগামী অর্থবছরের বাজেটে জোর দেওয়া হবে এবং সরকারের ধারণা খেলাপি ঋণ, দুর্নীতি এবং অর্থ পাচার বন্ধ করলে অর্থনীতির চেহারা পাল্টে যাবে।