ব্রেকিং:
আন্দোলনকারীরা বক্তব্য দিতে চাইলে আপিল বিভাগ বিবেচনায় নেবেন সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে : ডিএমপি গমের উৎপাদন বাড়াতে সিমিট ও মেক্সিকোর সহযোগিতা জনদুর্ভোগ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকুন : আরাফাত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালকের শ্রদ্ধা মোদির সাথে বিমসটেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাক্ষাত গাজায় শান্তি রক্ষা করবে আরব যৌথ বাহিনী: বাইডেন কোটা আন্দোলন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী কি বললেন? ‘পুলিশের গুলিতে কোনো শিক্ষার্থী মারা যায় নি" ভারত থেকে আমদানি হলো ১১টি বুলেটপ্রুফ সামরিক যান সৌদি আরবে হামলার হুমকি, স্পর্শকাতর স্থানের ভিডিও প্রকাশ পরকীয়া করতে গিয়ে ধরা, সেই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বহিষ্কার বাংলাদেশ-চীনের মধ্যে ২১ চুক্তি ও সাত ঘোষণাপত্র সই লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ঝিনুকে তৈরি মুক্তার গহনা প্রধানমন্ত্রীর হাতে লক্ষ্মীপুরে হাত-পা বেঁধে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর ডাকাতি নোয়াখালীতে প্রকৌশলীসহ সেই চার শিক্ষক কারাগারে নোয়াখালীতে পরীক্ষা হলে হট্টগোল-খোশগল্প চট্টগ্রামে এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের আদেশ
  • শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

বান্ধবীর ফোন নম্বর না দেওয়ায় বন্ধুকে নির্যাতন!

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০২৩  

দাগনভূঞা উপজেলার ইকবাল মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের এক ছাত্রীর ফোন নম্বর না দেওয়ায় এক ছাত্রকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। সেই নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে জেলাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনায় রাতে দাগনভূঞা থানায় অভিযুক্তদের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর মা।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্র জানায়, গত ২৯ মে দুপুরে কলেজের তৃতীয় তলার স্কাউট কক্ষে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী মেহেদী হাসানকে ডেকে নেওয়া হয়। সেখানে একটি চেয়ারে বসিয়ে তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। একপর্যায়ে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুসি, লাথি, চড়-থাপ্পড় দিয়ে সিগারেটের আগুন দিয়ে আঙুলে ছ্যাঁকা দেওয়া হয়।

পরে তাকে শ্বাসরোধে হত্যার হুমকি দিয়ে পকেটে থাকা এক হাজার ১০০ টাকা নিয়ে নেওয়া হয়। ঘটনাটি কলেজের কয়েকজন ছাত্র টের পেয়ে এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যান। হামলাকারীরা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে।

এদিকে ছেলেকে নির্যাতনের ঘটনায় মা মমতাজ বেগম বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

মামলার বাদী মমতাজ বেগম যুগান্তরকে বলেন, মেহেদীর কাছে বেশ কিছু দিন ধরে একাদশ শ্রেণির ছাত্রীদের ফোন নম্বর চেয়েছে অভিযুক্তরা। নম্বর না দেওয়ায় তাকে এমন নির্যাতন করা হয়েছে। ছেলেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
অভিযুক্তরা হলেন— উপজেলার অভিরামপুর এলাকার বেলায়েত হোসেনের ছেলে তৌসিফ (১৮), গনিপুর এলাকার মনসুরের ছেলে সোহান (১৮), উদরাজপুর এলাকার বেলাল হোসেনের ছেলে মিঠু (১৮), সেনবাগের বিজবাগ ইউনিয়নের শ্যামেরাগাঁও এলাকার মো. হাবিবের ছেলে রানা (১৮) ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরপার্বতী গ্রামের সামিরকে (১৮)।

এ বিষয়ে ইকবাল মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ মনজুরুল হক বলেন, ছাত্র নির্যাতনের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দাগনভূঞা থানার ওসি মো. হাসান ইমাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর পুলিশ কলেজ পরিদর্শন করেছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।