ব্রেকিং:
আজ থেকে বিপিএলে থাকছে ‘বিকল্প ডিআরএস’ কমিউনিটি ক্লিনিকে আরো বিনিয়োগ প্রয়োজন: পরিকল্পনামন্ত্রী এবার আইপিএলের সব খেলা এক শহরে! মৌসুমী ঝড়ে আফ্রিকার তিনদেশে নিহত ৭০ জুমার দিনে যে আমল করলে ৮০ বছরের গুনাহ মাফ হবে কুমিল্লায় জনপ্রিয় হচ্ছে সমলয় পদ্ধতিতে ধান চাষ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে কাদের মির্জার ৯ প্রার্থীর অভিযোগ বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল সাড়ে ৫৬ লাখ, শনাক্ত সাড়ে ৩৬ কোটি লক্ষ্যমাত্রার ৭ ভাগ আমন সংগ্রহ হয়েছে ফেনীতে নৌকা ঠেকাতে আনারসে ভোট চাইলেন এমপি একরামুল মসজিদের ৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্লাস্টিকের লেমিনেশন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা চিলির মাঠে মেসিহীন আর্জেন্টিনার দাপুটে জয় কোম্পানীগঞ্জে এক বস্তা দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার প্রাথমিকে অনলাইনে ক্লাসসহ ৬ নির্দেশনা সরকারি ব্যাংকের সব নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত চাঁবিপ্রবির জমি অধিগ্রহণে অনিয়মের খবর ভিত্তিহীন: শিক্ষামন্ত্রী ১৫ বছরের গোপন সম্পর্ক, কথা না রাখায় দেবরের ঘরে অনশনে ভাবি পার্কে প্রেমিককে জুতাপেটা, আটক করে টাকা নিলেন মেম্বার আখাউড়ায় পাঁচ মাদক সেবনকারীর কারাদণ্ড
  • শুক্রবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১৫ ১৪২৮

  • || ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

অ্যাপে প্রতারণার ফাঁদ পেতে ৫০ কোটি টাকা আত্মসাৎ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১২ ডিসেম্বর ২০২১  

মোবাইল অ্যাপ ও ব্যাংকিং সার্ভিস ব্যবহার করে অবৈধ মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসায় জড়িত সাত জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। বছরে তিনগুণ লাভ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারকরা গ্রাহকদের কাছে থেকে প্রায় ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

রোববার রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত ডিআইজি (ঢাকা মেট্রো) ইমাম হোসেন এ তথ্য জানান।

গেফতারকৃতরা হলো- আবুল হোসেন পুলক, মাহাদী হাসান মল্লিক, মিজানুর রহমান ওরফে ব্রাভো মিজান, মহিউদ্দিন জামিল, সাইফুল ইসলাম আকন্দ, কভেজ আলী সরকার ও শাহানুর আলম শাহীন।

ঢাকার সাভারের আমিনবাজার এলাকায় গতকাল শনিবার এ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা। এ সময় তাদের কাছে পাওয়া গেছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ৯টি মোবাইলসহ ২০টি সিমকার্ড, একাধিক ব্যাংক অ্যাকাউন্টের চেক বই, একাধিক ব্যাংকের এটিএম কার্ড, নগদ ৬২ হাজার টাকা ও বিভিন্ন অবৈধ এমএলএল কোম্পানির বিজনেস প্ল্যানের কাগজপত্র।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়- চক্রটি মোবাইল অ্যাপস ও ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ব্যবহার করে অবৈধভাবে এমএলএম ব্যবসা করে আসছিল। মাত্র এক মাসেই দ্বিগুণ হবে বিনিয়োগের অর্থ- এমন প্রলোভন দেখিয়ে কথিত অনলাইন এমএলএম প্রতিষ্ঠানের জন্য বিপুল সদস্য সংগ্রহ করে চক্রটি। এরপর তাদের বলা হয় আরো সদস্য আনার জন্য। প্রতি নতুন সদস্যের জন্য তারা ৫০ টাকা করে পাবেন। আর ১৫০ জন সদস্য আনতে পারলে রয়েছে বিশেষ পুরস্কার। তিনি পাবেন আইফোন, ব্যক্তিগত গাড়ি ও বিদেশে ভ্রমণের সুযোগ। এমন লোভনীয় প্রচারণার ফাঁদে পড়ে অনেকেই যথাসাধ্য বিনিয়োগ করেন। আর তাদের বিশ্বাসকে পুঁজি করে প্রায় ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারকরা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।