ব্রেকিং:
অসাধু আইপিটিভি: সাংবাদিকতার নামে চাঁদাবাজি! রাস্তা থেকে মাদ্রাসার ছাত্রী অপহরণ, ৯দিন পর উদ্ধার! আড়াই হাজার ইয়াবাসহ পুলিশ সদস্য আটক একবার সুযোগ দিন ১০ বছরের উন্নয়ন ৫ বছরে করবোঃ চেয়ারম্যান প্রার্থী কক্সবাজারের রিসোর্টে চান্দিনার এক নারীর মরদেহ ‘লিঙ্গ ভিত্তিক নির্যাতন প্রতিরোধ’ নিয়ে কর্মশালা কুমিল্লায় একই লাইনে দুই ট্রেন নিয়োগ প্রক্রিয়া কালিমাযুক্ত করতে দেয়া হবে না শেকলবন্দী কলেজছাত্র আগুনে দাহ কু.বি বাস স্টাফের সাথে এ্যাম্বুলেন্স চালকদের সংঘর্ষ নতুন করে ৮৯ লাখ ডোজ টিকার বরাদ্দ পেল বাংলাদেশ নারী নেতৃত্বের নেটওয়ার্ক গঠনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর শাহজালালে করোনার পরীক্ষামূলক পরীক্ষা শুরু ভারতে ছুটছে মিয়ানমারের হাজার হাজার মানুষ মানবকল্যাণের প্রকল্পে সরকার নিজস্ব অর্থায়ন করবে: এলজিআরডিমন্ত্রী মৎস্যজীবীদের স্বার্থেই ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী চিতা বিড়ালের ‘বিরল প্রসব’ ফেনীতে লাইসেন্স ছাড়াই চলছে ১৯ হাজার মোটরসাইকেল অপপ্রচার-অপরাজনীতি সত্ত্বেও ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছি অপহৃত দশম শ্রেণির ছাত্রী ৯ দিন পর উদ্ধার, গ্রেফতার ১
  • বৃহস্পতিবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৮ ১৪২৮

  • || ১৪ সফর ১৪৪৩

লাশের সঙ্গে ফেলে রাখা নাজিম এখনও ঘুমাতে পারেন না

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০২১  

বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের নারকীয় গ্রেনেড হামলার ১৭ বছর পেরিয়ে গেছে। ওই ঘটনায় প্রাণে বেঁচে যান অনেকে। তাদের জীবন কেটে যাচ্ছে জীবনের নিয়মে। এর সঙ্গে বুকচাপা কষ্টও আছে, চোখ থেকে ঝরে জল। বিশেষ করে বছর ঘুরে ২১ আগস্ট এলে হাহাকারে ডুবে যান তারা। তেমনি একজন নাজিম উদ্দিন। ভয়ংকর সেই বিকেলে মৃত ভেবে লাশের সঙ্গে ফেলে রাখা হয়েছিল তাকে। সেই ঘটনা মনে পড়লে এখনও রাতে ঘুমাতে পারেন না তিনি।

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার আকবরনগর গ্রামের মফিজ উদ্দিন মেম্বারের ছেলে আওয়ামী লীগের কর্মী নাজিম উদ্দিন এখনও কেঁদে উঠেন সেদিনের ভয়াবহতার কথা মনে পড়লে। প্রতিদিন শরীরে ব্যথা যন্ত্রণা নিয়ে বছরের পর বছর কাতরাচ্ছেন তিনি। এই ব্যথা আর কষ্ট সহ্য করার মতো নয়। তাই তার মনে হয় সেদিন মরে গেলেই ভালো হতো!

সেদিনের বিভীষিকা এখনও তাড়া করে ফেরে ভৈরবের নাজিম উদ্দিনকে। মৃত্যুর কত কাছ থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন তিনি। গুরুতর আহত নাজিমকে চিকিৎসকরাও মৃত ভেবে লাশের সঙ্গে ফেলে রেখেছিল। তবে তিনি জীবন ফিরে পান অলৌকিকভাবে। প্রাণে বেঁচে গেলেও নাজিম উদ্দিন এখন ভোগ করছেন অসহ্য যন্ত্রণা। পায়ে ও বুকে অসংখ্য স্প্লিন্টার আর ক্ষতচি‎হ্ন বয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি।

বর্তমানে তার বুকে ও ২ পায়ে অসংখ্য স্প্লিন্টার রয়েছে। শীতকালে ভোগান্তিটা হয় বেশি। দেহে স্প্লিন্টার কারণে অসহ্য যন্ত্রণায় তার রাত কাটে আর গরম এলে চুলকানিতে শরীর দিয়ে রক্ত ঝরে। চিকিৎসার জন্য ব্যয়ভার বহন করতে গিয়ে তিনি সহায় সম্বল হারিয়েছেন। পরিবার নিয়ে অনেক দুঃখে কষ্টে দিন কাটছে তারা।

ঘটনার দিন বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন ২২ জন এবং আহত হন কয়েকশ। এদিন ভৈরবের আওয়ামী লীগ কর্মী নাজিম উদ্দিন প্রিয় নেত্রী আইভি রহমানের ওপর গ্রেনেড পড়লে তাকে বাচাঁতে এগিয়ে যান। এসময় একটু আগালেই নিজের শরীরের পা ও বুকে গ্রেনেড পড়ে তিনিও গুরুতর আহত হন। পরে লোকজন তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে।

নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগীতায় আমাকেসহ কয়েকজন আহতকে ভারতের পিয়ারলেস হাসপাতালে পাঠিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। সেখানে আমার দুইবার অপারেশন হয়েছে। তারপর কিছুটা সুস্থ হলে চিকিৎসক বলেছিল শরীরে থাকা স্প্রিন্টার সরাতে আবারও অপারেশন করতে হবে। কিন্ত টাকার অভাবে আজও তৃতীয় অপারেশন করাতে পারিনি। তবে আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিরকৃতজ্ঞ। তিনি আমাকে আর্থিকভাবে সহযোগীতা করাসহ চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন।’

এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার চেয়ে নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর এ ঘটনার বিচারের রায় হয়েছে। কিন্তু রায়ে ঘটনায় জড়িতদের কঠোর বিচার হলেও তা এখনও কার্যকর হয়নি। এ রায় বহাল রেখে অপরাধীদের শাস্তি দ্রুত কার্যকরের দাবি জানাচ্ছি।’