ব্রেকিং:
আরেকটি নতুন মাইলফলকের পথে রিজার্ভ মহামারির মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী জাতির পিতার স্বপ্নপূরণে সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে দেব বঙ্গবন্ধু আগামী প্রজন্মের অনুপ্রেরণার উৎস ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, বাংলাদেশকে দেখেছি মহামানবের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড বঙ্গবন্ধুর বাঙালি জাতীয়তাবাদের সীমানা ৮ মাসে আটবার সোনার দামের পরিবর্তন, থমকে আছে রূপা জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা পর্যটকদের অসচেতনতায় সৌন্দর্য হারাতে পারে খোয়া সাগর দিঘী ছাগলনাইয়ায় ২ হাজার পিস ভারতীয় টার্গেট ট্যাবলেট উদ্ধার শশুর বাড়ির লোকজনের নির্যাতনে নিরুদ্ধেশ গৃহবধু শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী আজ দেশে একদিনে আরো ৩৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৭৬৬ প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলতে ১২৮ কোটি টাকা খরচ করবে সরকার অগ্নাশয় ক্যান্সার গবেষণায় বাঙালি বিজ্ঞানীর সাফল্য সপ্তাহে ৮ হাজার টাকা আয়ের সুযোগ পাচ্ছেন ৫ লাখ তরুণ সিনহা হত্যা মামলা: ৭ আসামি রিমান্ডে, নেই প্রদীপ-লিয়াকত
  • শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৭

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

৩৭

৯ খাদ্যপণ্য নিতে চায় তিন দেশ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২০  

করোনা মহামারীর কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্যপণ্যে ঝুঁকি সৃষ্টি হওয়ায় এখন বাংলাদেশের খাদ্যপণ্যে ভরসা রাখছে সিঙ্গাপুর ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের দুটি দেশ আরব আমিরাত ও কাতার। সম্প্রতি কূটনৈতিক মাধ্যমে এই তিনটি দেশ বাংলাদেশ থেকে ভোজ্যতেল, চিনি, সবজি ও মাছ-মাংসসহ অন্তত নয় ধরনের খাদ্যপণ্য নেওয়ার আগ্রহ দেখিয়েছে। এ ছাড়া করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশ থেকে ওষুধ আমদানির আগ্রহ দেখিয়েছে ইন্দোনেশিয়া। সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর চিঠি পাওয়ার পর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের জন্য রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোকে (ইপিবি) নির্দেশনা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্রগুলো জানায়, সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশ থেকে ফুড আইটেম, শাক-সবজি, ফলমূল ও মাংস নেওয়ার আগ্রহ দেখিয়েছে। কাতার নিতে চাইছে চাল, গম, ভোজ্যতেল, পাউরুটি ও চিনি। আর চাল, গম, আলু ও শাক-সবজি আমদানির জন্য আগ্রহপত্র দিয়েছে সিঙ্গাপুর।  সবমিলিয়ে দেশগুলো নয় ধরনের খাদ্যপণ্য আমদানির আগ্রহ দেখিয়েছে। এ ছাড়া করোনা প্রতিরোধী ‘রেমিভির’ ওষুধ আমদানির জন্য ইন্দোনেশিয়া পৃথকভাবে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিন বলেন, করোনা সংকটে দেশের রপ্তানি খাত যখন বিপর্যস্ত তখন ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন ধরনের খাদ্যপণ্য ও ওষুধ আমদানির বিষয়টি ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেছে সরকার। আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর আগ্রহ অনুযায়ী পণ্য রপ্তানির বিষয়ে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছি সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে। ইপিবির ভাইস চেয়ারম্যান ও সিইও এ এইচ এম আহসান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, করোনা সংকট শুরুর পর থেকেই সিঙ্গাপুর ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশ থেকে শাক-সবজি, ফলমূল, মাছমাংস ইত্যাদি খাদ্যজাত পণ্য আমদানির আগ্রহপত্র পাঠায়। তাদের চিঠি পাওয়ার পরপর আমরা সম্ভাব্য খাদ্যপণ্য এবং রপ্তানিকারকদের তালিকা দেশগুলোর কমার্শিয়াল কাউন্সিলরদের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি। তারা (কমার্শিয়াল কাউন্সিলর) সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর আমদানিকারক এবং সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করে বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানির বিষয়টি সমন্বয় করছেন। ইপিবির তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, করোনা মহামারী ছড়িয়ে যাওয়ার পর দেশের রপ্তানি খাতের প্রায় সবপণ্যে ঋণাত্মক প্রভাব পড়লেও করোনাপ্রতিরোধী ওষুধসামগ্রী, হিমায়িত মাছ ও শাক-সবজি রপ্তানি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী চলতি অর্থবছরের জুলাই-মে প্রান্তিকে আগের অর্থবছরের চেয়ে ২২ শতাংশ বেশি হয়েছে হিমায়িত মাছ রপ্তানি। আগের বছরের তুলনায় জুলাই-মে প্রান্তিকে সবজি রপ্তানি বেড়েছে প্রায় ৬১ শতাংশ, টাকার অঙ্কে যা দেড়শো মিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে।

আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর