ব্রেকিং:
টিকা নিয়েই কাজে ফিরলেন সাংবাদিক করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ৫৪তম সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সব রকম প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে মেয়র প্রার্থী স্বপন মিয়াজীর নির্বাচনী ইশতেহার ফেনী পৌরসভা নির্বাচনে সবকেন্দ্রই ‘ঝুঁকিপূর্ণ` কমলনগর থানার নবাগত ওসি মোসলেহ উদ্দিন ফেনীতে রিভলবারসহ ২ জন গ্রেপ্তার রফতানিযোগ্য আলুর আবাদ বৃদ্ধিতে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী ৩ কোটি ৪০ লাখ ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৭ মৃত্যু, আক্রান্ত ৫২৮ বাংলায় আরো সঠিক ফলাফল দেখাবে গুগল ম্যাপ করোনার টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করোনার প্রথম টিকা নিলেন নার্স রুনু একাধিক বিয়ে, স্বামীর ‘বিশেষ অঙ্গ’ কেটে দেন ক্ষিপ্ত স্ত্রী সাংবাদিকদের পেনশনের আওতায় আনা হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী গ্রামীণ নারীদের ভরসা এখন ‘তথ্য আপা’ ফেনীতে দুই গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু আসছে শৈত্যপ্রবাহ, কমবে তাপমাত্রা ৯৯৯-এ ফোন, ৪ ঘণ্টার মধ্যে অপহৃত মাদরাসা ছাত্র উদ্ধার ‘শিশুটিকে ভালো লাগায়’ অপহরণ করেন মাদরাসার বাবুর্চি
  • বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৫ ১৪২৭

  • || ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

৫০০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া মসলিন আজ শুধুই আমাদের

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০২০  

বাংলার নীলচাষ দিয়েই বিশ্ব দরবারে সহজলভ্য পরিচিতি এ ভূখন্ডের। তবে বর্তমানে পদ্মার রুপালি ইলিশ আর ঢাকাই জামদানি সারাবিশ্বে বাংলাদেশকে এক অনন্য স্থান দিয়েছে। এরও আগে বিশ্বে সমাদৃত ছিল ঢাকাই মসলিনের। এটি শুধু একটি কাপড়ই নয়। আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্যকে সমৃদ্ধ করতে বিশেষ এক ভূমিকা রেখেছে মসলিন কাপড়। মসলিন কাপড়ের নাম শুনলেই একটি লোককথা মনে পড়ে সবার, জনশ্রুতি আছে যে একটি মসলিন শাড়িকে দিয়াশলাইয়ের বাক্সে রাখা সম্ভব। যদিও এর স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ মেলেনা।

দিয়াশলাইয়ের বাক্সে রাখা সম্ভব না হলেও, মসলিনের কাপড়ের সূক্ষ্মতা এবং হালকা আরামদায়কভাব নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই। মসলিনের দাপট এক সময় ইউরোপের বাজারে থাকলেও, ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লবের পরে মসলিন আর টিকে থাকতে পারেনি। কারণ ইউরোপ জুড়ে তখন বস্ত্রশিল্প প্রসার লাভ করায় মসলিন বাজার হারিয়েছিল। তাছাড়া যে তুলা থেকে মসলিনের সুতা উৎপাদন হতো, সেই তুলার বীজও এখন আর নেই। তারপরও খ্যাতি আর দ্যুতি হারিয়ে গেলেও মসলিনের অংশ হিসেবে এখনো পর্যন্ত টিকে আছে জামদানী শাড়ি।  

 

মসলিন কাপড়ের ঐতিহ্য শত বছর আগের

মসলিন কাপড়ের ঐতিহ্য শত বছর আগের

তবে ঢাকাই মসলিনের এবার হলো পুনর্জন্ম। জামদানি, ইলিশ, চাপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাতি আমের পরে চতুর্থ পণ্য হিসেবে জিআই বা ভৌগোলিক নির্দেশক হিসেবে স্বীকৃতি পেলো মসলিন! এখন থেকে মসলিন শুধুই আমাদের।  মসলিনের পুনর্জন্ম ঘটাতে ছয় বছর ধরে লেগে ছিলেন একদল গবেষক। অবশেষে তারা সফলও হয়েছেন। কী বিচিত্র উপায়ে সংগ্রহ করা হলো মিহি মসলিনের উপাদানগুলো, তা একেকটা গল্পই বটে।

ঢাকাই মসলিনের শেষ প্রদর্শনী হয়েছিল লন্ডনে ১৮৫০ সালে। এর ১৭০ বছর পরে বাংলাদেশে আবার বোনা হলো সেই ঐতিহ্যবাহী ঢাকাই মসলিন কাপড়ের শাড়ি। ঠিক সে রকমই, যেমনটি বলা হতো- আংটির ভেতর দিয়ে গলে যায় আস্ত একটি শাড়ি। ইতিমধ্যেই ঢাকাই মসলিনের জিআই স্বত্বের অনুমোদন পাওয়া গেছে। ২৮ ডিসেম্বর এ সংক্রান্ত গেজেট প্রকাশিত হয়েছে।

 

লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আলবার্ট মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে এই কাপড়

লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আলবার্ট মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে এই কাপড়

প্রচলিত আছে, মসলিন শিল্পীদের আঙুল কেটে দেয়ার পরে ঢাকাই মসলিন তৈরি বন্ধ হয়ে যায়। এখন ভারতেও মসলিন তৈরি হয়। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঢাকাই মসলিনের বিশেষত্বই  আলাদা। তাই তো ঢাকাই মসলিন তৈরির জন্য উঠেপড়ে লেগেছিলেন একদল গবেষক। তাদেরই  ছয় বছরের চেষ্টা আর গবেষণা ফল দিয়েছে। তৈরি করা হয়েছে মসলিনের ছয়টি শাড়ি। যার একটি গবেষকেরা প্রধানমন্ত্রীকে উপহার হিসেবে দিয়েছেন। কিন্তু শুরুতে এক টুকরা ‘অরিজিনাল’ মসলিন কাপড় জোগাতে কলকাতা থেকে লন্ডন পর্যন্ত ছুটতে হয়েছে গবেষকদের। মসলিন বোনার সুতা যেই ‘ফুটি কার্পাস’ তুলার গাছ থেকে তৈরি হয়, সেই গাছ খুঁজে বের করা হয়েছে বিচিত্র সব পন্থা অবলম্বন করে। যান্ত্রিক সভ্যতার এ যুগে এসেও এই শাড়ি তৈরিতে তাঁতিদের হাতে কাটা ৫০০ কাউন্টের সুতাই ব্যবহার করতে হয়েছে। কাপড়ও বোনা হয়েছে হস্তচালিত তাঁতেই।

মসলিনের উৎস

প্রাচীন হস্ত-লিখিত ও মুদ্রিত নথি অনুযায়ী  শত শত বছর ধরে বাংলায় বস্ত্রশিল্পের প্রমাণ পাওয়া যায়। পেরিপ্লাস অব দি ইরিথ্রিয়েইন সী অনুযায়ী আরব ও গ্রীক ব্যবসায়ীরা দ্বিতীয় শতাব্দীতে ভারত ও লোহিত সাগরের আদুলির (দি ইরিট্রেয়া) মাধ্যমে মিশরে এবং ইথিওপিয়াতে বাণিজ্য করত। সেই সময়ে মসলিন কাপড়এর বিনিময়ে হাতির দাঁত, কচ্ছপের খোল ও গণ্ডার-শিংয়ের আমদানি করা হত। ভারতীয় উপমহাদেশের বিভিন্ন অংশে ইউরোপীয় বণিকদের আসার আগেই গুজরাতে অবস্থিত ভারতের একটি প্রাচীন বন্দর - বারজিজার থেকে মসলিনের ব্যবসার প্রমাণ পাওয়া যায়।  

 

অভিজাত নারীদের পরনে থাকত মহামূল্যবান এই কাপড়

অভিজাত নারীদের পরনে থাকত মহামূল্যবান এই কাপড়

রোমানরা মসলিনের খুব কদর করত। বুলিয়ান এবং সোনার কয়েন ব্যবহার করে দাক্ষিণাত্য এবং দক্ষিণ ভারত থেকে তারা মসলিন কিনে নিয়ে যেত। রোমানরাই ইউরোপে প্রথম মসলিন চালু করে এবং ধীরে ধীরে এটি প্রবল জনপ্রিয়তা লাভ করে। একজন চীনা সমুদ্রযাত্রী মা হুয়ান তার যাত্রাবিবরনীতে পঞ্চদশ শতকের শুরুতে বাংলায় পাঁচ থেকে ছয় রকমের সূক্ষ্ম কাপড়ের উল্লেখ করেছেন। মা হুয়ানের বিবরণ অনুযায়ী বাংলার মসলিন তখন চীনে বেশ মূল্যবান ছিল।

মুঘল শাসনের সময় বঙ্গদেশ ছিল গোটা বিশ্বের মসলিন, সিল্ক এবং মুক্তো ব্যাবসার কেন্দ্র। সেখান থেকে অষ্টাদশ শতাব্দী পর্যত্ন বেশ দাপটের সঙ্গেই টিকে ছিল এই কাপড়। সেই সময় অষ্টাদশ শতাব্দীর শুরুতে অস্টেন্ড কোম্পানি বাংলায় ব্যাবসা করতে আসে। তারা এজেন্ট এবং তাদের নিজস্ব কর্মকর্তাদের মাধ্যমে বস্ত্র কেনা শুরু করে। ব্যবসায় লাভ করতে শুরু করলে কম্পানির লোকেরা ঢাকায় বসতি স্থাপন করতে শুরু করে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ১৭৪৭ সালে ঢাকার বস্ত্রশিল্প পণ্য (প্রধানতঃ মসলিন) এর বাণিজ্যের মুল্য ছিল প্রায় সাড়ে ২৮ লাখ টাকা। 

মসলিনের পতন

 

পলাশীর যুদ্ধের পর এই কাপড় বোনা কমতে থাকে

পলাশীর যুদ্ধের পর এই কাপড় বোনা কমতে থাকে

১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধের পর ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী বাংলা জয় করে এবং ১৭৬৫ সালে ব্রিটিশ বঙ্গ প্রেসিডেন্সি প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকীকরণের জন্য বিদেশি পণ্য খোলার জন্য বাজারকে বাধ্য করতে শুরু করে, একই সময়ে ব্রিটেন দেশিয় পণ্য নিষিদ্ধ করতে শুরু করে এবং বিভিন্ন সুরক্ষামূলক নীতিমালা প্রণয়ন করে। দেশজ পণ্যের উপর উচ্চহারে শুল্ক চাপানো হয় এবং ভারতীয় সামগ্রীর ব্রিটেনে বিক্রয় প্রায় নিষিদ্ধ করে দেয়া হয়। 

ব্রিটিশ কারখানায় কর বা ট্যারিফ ছাড়াই কাঁচাতুলা আমদানি করা হয় এবং বস্ত্র তৈরির পর চড়া শুল্ক সহ সেগুলো আবার বাংলায় বিক্রি করা হতে থাকে। যা তাদের বস্ত্র তৈরিতে ব্যবহার করে। ব্রিটিশদের অর্থনৈতিক নীতি চালানোর ফলে বাংলায় ডি-ইনডাস্ট্রিয়ালাইজেশন ঘটে। ঔপনিবেশিকতার এই করাল গ্রাস বাংলাকে এক মহা দুর্ভিক্ষের মধ্যে ঠেলে দেয় যার ফলে বাঙালি জনগোষ্ঠীর এক তৃতীয়াংশের মৃত্যু ঘটে। 

 

মসলিনের সুতা তৈরি

মসলিনের সুতা তৈরি

১৭৮৭ থেকে ১৭৮৮র মধ্যে কিছু প্রাকৃতিক দুর্যোগ নেমে আসে বঙ্গদেশে, ভয়ঙ্কর বন্যা ও তার ফলে দুর্ভিক্ষ বাংলার জনজীবনকে একেবারে সন্ত্রস্ত করে তোলে। এই বিপর্যয়ের পরে দুর্ভিক্ষপীড়িত মানুষেরা বেঁচে থাকার তাগিদে কৃষির দিকে জোর দিতে থাকে। শস্য রপ্তানির উপর কর প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। ফলে মানুষ তুলা বোনা ছেড়ে চাষবাসের দিকে মনোযোগ দিতে শুরু করে।

১৭৪২ থেকে ১৭৮৭ সালের মধ্যে ব্রিটেনে শিল্প বিপ্লব শুরু হয় এবং স্থানীয়ভাবে তুলো উৎপাদন করা হতে থাকে। স্বাভাবিক ভাবেই ব্রিটেন থেকে শিল্পজাত বস্ত্রপণ্য আমদানি করার কারণে মসলিন শিল্প ধীরে ধীরে পতনের দিকে এগিয়ে যায়। এর উপরে মসলিনকে পুরোপুরি শেষ করে দেয়ার জন্যে ইংরেজ ঔপনিবেশিক শাসক বাংলার তুলা রপ্তানির উপর ৭৫ শতাংশ শুল্ক প্রয়োগ করে। পরিশেষে বাংলায় মসলিন বাণিজ্যের পতন ঘটে।   

আবার এই মসলিনের পুনর্জন্ম দেয়ার পেছনের কাহিনী

 

সূক্ষ্ম সুতায় তাঁতে বোনা হয় এই কাপড়

সূক্ষ্ম সুতায় তাঁতে বোনা হয় এই কাপড়

শুরুটা হয় ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসে। বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় পরিদর্শনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মসলিনের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার কথা বলেন। বাংলাদেশের কোন কোন এলাকায় মসলিন সুতা তৈরি হতো, তা জেনে সে প্রযুক্তি উদ্ধারের নির্দেশনা দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশে তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যানকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়। 
কমিটির অন্যান্য সদস্য হচ্ছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. মনজুর হোসেন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শাহ আলীমুজ্জামান, বাংলাদেশ তুলা উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত পরিচালক মো.আখতারুজ্জামান, বিটিএমসি ঢাকার মহাব্যবস্থাপক মাহবুব-উল-আলম, বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের উপমহাব্যবস্থাপক এ এস এম গোলাম মোস্তফা ও সদস্যসচিব করা হয় তাঁত বোর্ডের জ্যেষ্ঠ ইনস্ট্রাক্টর মো. মঞ্জুরুল ইসলামকে।

পরে গবেষণাকাজের স্বার্থে আরও সাত সদস্যকে এই কমিটিতে যুক্ত করা হয়। তারা হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বুলবন ওসমান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এম ফিরোজ আলম, অ্যাগ্রোনমি অ্যান্ড অ্যাগ্রিল বিভাগের অধ্যাপক মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আইয়ুব আলী ও বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট রাজশাহীর গবেষণা কর্মকর্তা মো. আবদুল আলিম।

এই কাজ সম্পন্ন করার জন্য ‘বাংলাদেশের সোনালি ঐতিহ্য মসলিন সুতা তৈরির প্রযুক্তি ও মসলিন কাপড় পুনরুদ্ধার (প্রথম পর্যায়)’ শীর্ষক একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। প্রকল্পের প্রধান বৈজ্ঞানিক করা হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. মনজুর হোসেনকে। আর প্রকল্প পরিচালক নিযুক্ত হন বাংলাদেশে তাঁত বোর্ডের প্রধান পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আয়ুব আলী।

 

মসলিন কাপড় বোনার জন্য হাত নরম রাখতে হত

মসলিন কাপড় বোনার জন্য হাত নরম রাখতে হত

কাজের শুরুতে মসলিন কাপড় বা তুলার কোনো নমুনাই গবেষকদের কাছে ছিল না। তাদের প্রথম কাজ ছিল যে তুলা থেকে সুতা কেটে মসলিন শাড়ি বোনা হতো, সেই তুলার গাছ খুঁজে বের করা। সেই গাছটি আসল ফুটি কার্পাস কি না, তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য আবার মসলিন কাপড়ের প্রয়োজন ছিল। এই দুটি জিনিস জোগাড় করাই এই প্রকল্পের প্রধান চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠে।

প্রথমে রাঙামাটির বাঘাইছড়ি, সাজেক ও লংদু বাগেরহাট, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম থেকে মোট ৩৮টি নমুনা সংগ্রহ করেন। নমুনা হিসেবে নেয়া হয় গাছের তুলা, বীজ, পাতা, কাণ্ড ও ফুল। গবেষকেরা কাপাসিয়ার একটি গাছের জাতের সঙ্গে স্কেচের (আঁকা ছবির) মিল পান। সম্ভাব্য ফুটি কার্পাসের এই জাতটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের নিজস্ব মাঠে ও আইবিএসসির মাঠে চাষ করা হয়। গবেষক দল নমুনা সংগ্রহ করতে গিয়ে ৩০০ বছর আগের শাড়িও পেয়েছেন। পরে পরীক্ষা করে দেখা যায়, তা আসলে পুরোনো সিল্কের কাপড়।

তবে এই গবেষণায় অনেক তথ্যই তাদের হাতের নাগালের বাইরে ছিল। দেশের অন্য কোনো উৎস থেকে মসলিনের নমুনা না পেয়ে তারা জাতীয় জাদুঘর কর্তৃপক্ষের কাছে ধরনা দেন। গবেষকদের দরকার ছিল চার বাই চার ইঞ্চির এক টুকরো ঢাকাই মসলিন কাপড়। কিন্তু কিছুতেই তাদের নমুনা দিচ্ছিল না জাদুঘর। এমনকি মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিয়ে আসার পরেও জাদুঘর কর্তৃপক্ষ তাদের মসলিনের নমুনা দেয়নি। গবেষক দলটি জাতীয় জাদুঘরের নমুনার আশায় প্রায় আট মাস পার করে ফেলেন। একপর্যায়ে মসলিনের নমুনা সংগ্রহের জন্য তারা ভারতের ন্যাশনাল মিউজিয়াম কলকাতায় যান। এই মিউজিয়ামের বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, মুর্শিদাবাদে এখন যে মসলিন শাড়ি তৈরি হচ্ছে, তা দক্ষিণ ভারতে উৎপাদিত তুলা থেকে করা হয়, যা ঢাকাই মসলিনের মতো মোলায়েম নয়। তাদের মতে, ঢাকাই মসলিন তৈরি করতে হলে ঢাকার আশপাশ থেকে জাত খুঁজে বের করে সেই তুলা দিয়ে সেই এলাকাতেই করতে হবে। মসলিন তৈরিতে তুলার জাত এবং আবহাওয়ার বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। চাইলেই যেখানে–সেখানে ঢাকাই মসলিনের মতো শাড়ি তৈরি করা যাবে না।

 

নারীদের হাতে এই কাপড় বোনা সবচেয়ে ভালো হয়

নারীদের হাতে এই কাপড় বোনা সবচেয়ে ভালো হয়

ভারতে গিয়ে বিফল হয়ে গবেষক দল হতাশ হয়ে পড়েন। অধ্যাপক মনজুর হোসেন বলেন, এই খবর শুনে প্রধানমন্ত্রী তাদের লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আলবার্ট মিউজিয়ামে যেতে বলেন। তিনি সেখানে ঢাকাই মসলিন দেখে এসেছেন। শেষ পর্যন্ত মসলিনের একটু নমুনার জন্য ২০১৭ সালের জুলাইয়ে কমিটির তিন সদস্যসহ চার সদস্যের একটি দল লন্ডনের ওই মিউজিয়ামে যান। সেখানে মসলিনের কাপড়ের নমুনা ও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য–উপাত্ত তারা পেয়ে যান।

অবশেষে সেই ফুটি কার্পাস

লন্ডন থেকে সংগৃহীত মসলিন কাপড়ের ডিএনএ সিকুয়েন্স বের করা হয়। গবেষকেরা এই মসলিনের ডিএনএর সঙ্গে আগে সংগৃহীত কাপাসিয়ার একটি জাতের ফুটি কার্পাস গাছের মিল পেলেন অবশেষে। তারা নিশ্চিত হন, সেটিই তাদের কাঙ্ক্ষিত জাতের ‘ফুটি কার্পাস’। স্থানীয় আবদুল আজিজ নামের এক ব্যক্তি এই কার্পাসের সন্ধান দিয়েছিলেন। খুশি হয়ে এই কমিটির পক্ষ থেকে তাকে একটি মোবাইল ফোন উপহার দেয়া হয়। অবশেষে জাদুঘরে ঢোকার অনুমতি পান। সেখানে শুধু একটি পাগড়ি ঢাকাই মসলিনের তৈরি। 

 

দুর্ভিক্ষের পর মানুষ কৃষি কাজের প্রতি ঝুঁকলে তুলার চাষ বন্ধ হয়ে যায়

দুর্ভিক্ষের পর মানুষ কৃষি কাজের প্রতি ঝুঁকলে তুলার চাষ বন্ধ হয়ে যায়

হাতের তিন আঙুলেই জাদু

সুতা মিহি করার ব্যাপারটা আসলে তিন আঙুলের জাদু। তিন আঙুলে কীভাবে তুলা ছাড়তে হবে, সেটাই আবিষ্কার করতে হয়েছে। আর নারীদের আঙুলেই এই সুতা সবচেয়ে মিহি হয়। তিনটি আঙুলকে প্রয়োজনীয় মাত্রায় নরম করে রাখতে হয়। প্রথমে তাদের আঙুলগুলো শক্ত ছিল। অনুভূতি ছিল না। পরে তাদের আঙুলের ‘ট্রিটমেন্ট’ করতে হয়েছে। সন্ধ্যারাতে তিনটি আঙুলে লোশন মাখিয়ে রেখে সকালে সুতা কাটা হতো। আর সব সময় আঙুল তিনটির যত্ন নিতে হয়েছে। যাতে এই তিন আঙুলে কোনো আঁচড় না লাগে বা এই তিনটি আঙুল দিয়ে অন্য কোনো জিনিস কাটাকুটির কাজ ওরা না করে।

অবশেষে বানানো হল সেই কাপড়। দুই তাঁতিকে কাপড় বোনাতেও ধাপে ধাপে অনেক কারিগরি প্রশিক্ষণ দিতে হয়েছে। প্রথমে একটি তাঁত করা হয়েছিল। পরে তিনটি করা হয়েছে। এই তাঁতেই রুবেল ও ইব্রাহিম ১৭১০ সালে বোনা শাড়ির নকশা দেখে হুবহু একটি শাড়ি বুনে ফেলেন।

লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড আলবার্ট মিউজিয়ামে প্রায় সাড়ে তিনশ ঢাকাই মসলিন শাড়ি সংরক্ষিত আছে। সেখানেই রয়েছে ১৭১০ সালে বোনা সেই শাড়িটি। প্রথম অবস্থায় শাড়িটি তৈরি করতে খরচ পড়েছে ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা। গবেষকদের প্রত্যাশা, এই খরচ আস্তে আস্তে কমতে থাকবে। ইতিমধ্যে তারা মোট ছয়টি শাড়ি তৈরি করেছেন। একটি শাড়ি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার হিসেবে দেয়া হয়েছে। আগামী দুই বছরের মধ্যে এই শাড়ি সর্বসাধারণের জন্য বাজারে আনা সম্ভব হতে পারে।