ব্রেকিং:
প্রতিটি সূচক অর্জনেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে: সেতুমন্ত্রী চীনে শুরু হচ্ছে ১০ দিনব্যাপী কুকুর খাওয়ার উৎসব বিশ্বকাপে ব্রাজিলের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ দেশব্যাপী তালগাছ রোপণ অভিযান শুরু করেছে আওয়ামী লীগ আরেকটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাথমিকে শূন্য পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত করার সুপারিশ ঢাকা বাইপাস সড়কের চার লেন প্রকল্পের কাজ শুরু পার্বত্য জেলার ১৪২ প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের সুপারিশ এলডিসি থেকে টেকসই উত্তরণে নতুন প্ল্যাটফর্ম আওয়ামী লীগ কেবল রাজনৈতিক দল নয়, জাতির নিউক্লিয়াসও: জয় আওয়ামী লীগ হীরার টুকরো, ভাঙলে বেশি জ্বলজ্বল করে : প্রধানমন্ত্রী খালের পানিতে নেমে ডুবে গেল দুই শিশু ৩০ টাকায় মেলে ভাত মাছ সবজি ডিম গাছে গাছে পাখির নিরাপদ আশ্রয় করে দিচ্ছেন যুবকরা দুই আঙুলে নাক টিপে পথ চলতে হয় এখানে চাচার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন কলেজছাত্রী এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ১৬ লাখ টাকা লুটের নেপথ্যে ‘ছিনতাই’ প্রতিবন্ধীদের চলাচলের রাস্তা কেটে ফেলার অভিযোগ লুঙ্গি ও গামছা পরে সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করল এএসআই টিকা উৎপাদনে আন্তর্জাতিক সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • বৃহস্পতিবার   ২৪ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ১২ ১৪২৮

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

১ জুন ১৯৭১: মন্দভাগে মুক্তিবাহিনীর তীব্র আক্রমণে পাকবাহিনী

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১ জুন ২০২১  

পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায় পাকিস্তান সরকার এদিন এক পশ্চিম জার্মান সাংবাদিকের মাধ্যমে জানতে পারে যে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র নামে ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশ সরকারের একটি বেতার কেন্দ্র চালু হয়েছে। পূর্বে এই বেতার আগরতলায় ১ কিলোওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন ছিল।

এদিন পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে মাওলানা এ কে এম ইউসুফ এর নির্দেশে রাজাকারদের নিয়ে শরণখোলা থানার দোতলা বিল্ডিং এ ক্যাম্প স্থাপন করে এবং শরণখোলার আওয়ামী লীগ ও ভাসানী ন্যাপের নেতাকর্মীদের ধরপাকড়, নির্যাতন, হত্যা, তাদের বাড়ীঘর লুটপাট ও দখলের রাজত্ব কায়েম করে।

মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র আক্রমণে পাকবাহিনী কুমিল্লার মন্দভাগ ও শালদা নদী এলাকার অবস্থান ফেলে নয়নপুর রেলওয়ে স্টেশনের কাছে তাদের নতুন ঘাঁটি স্থাপন করলে মন্দভাগ ও শালদা নদী মুক্তিবাহিনীর দখলে চলে আসে। গোপালগঞ্জের রাজপুরে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করা হয়। তৎকালীন চট্টগ্রাম বিভাগে রাজপুরই সর্বপ্রথম মুক্তাঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

মুক্তিবাহিনীর চাঁদগাজী প্রতিরক্ষা ব্যুহের দায়িত্বে ক্যাপ্টেন অলির স্থলাভিষিক্ত হন ক্যাপ্টেন শামসুল হুদা। ঝালকাঠিতে রাজাকার বাহিনীর তৎপরতা বৃদ্ধি পায়। পুলিশ ও রাজাকার বাহিনী ঝালকাঠির নলছিটি থানার বিরাট গ্রাম থেকে বরিশাল আদালতের এ্যাডভোকেট জিতেন্দ্রলাল দত্ত, তার পুত্র সাংবাদিক মিহিরলাল দত্ত, সুধীরলাল দত্তসহ বিপুল সংখ্যক লোককে ধরে নিয়ে পাকসেনাদের কাছে সোপর্দ করে। ময়মনসিংহে পাকসেনারা মুক্তিবাহিনীর গোপন ঘাঁটিগুলোতে আক্রমণ চালায়। অপরদিকে পাকসেনারা মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বহু তরুণকে গ্রেফতার করে এবং বহু নিরীহ মানুষকে বর্বর পৈশাচিকতায় নিহত হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ড. এম এন হুদা, ড. এ বি এম  হাবিবুল্লাহ, ড. এম ইন্নাস আলী, ড. এ কে নাজমুল করিম, ড. মফিজুল্লাহ, কবির, অধ্যাপক আতিকুজ্জামান খান, অধ্যাপক মুনির চৌধুরী, ড. কাজী দীন মুহাম্মদ, ড. মুহাম্মদ এনামুল হক, ড. নীলিমা ইব্রাহিম, ড. এস এম আজিজুল হক, ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, ড. এ কে রফিকুল্লাহসহ প্রায় সকল শিক্ষক কাজে যোগদান করেছেন। পাকিস্তান শান্তি ও কল্যাণ কাউন্সিলের সেক্রেটারি জেনারেল মওলানা নুরুজ্জামান ঢাকার দিলকুশায় ‘শান্তি কমিটি’ গঠন করেন। ৩০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সভাপতি ও সম্পাদক মনোনীত হন জামশেদ আলী ও আমীর বকশ।