ব্রেকিং:
পদ্মার সোয়া দুই কিলোমিটার দৃশ্যমান মাদক রোধে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান খালেদা-তারেকের রাজনীতি করার অধিকার নেই বাসচাপায় নির্মাণ শ্রমিকের করুন মৃত্যু ভিকটিমের সাক্ষ্যে কাঁদলো সবাই চৌমুহনী বাজারের ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন তৃতীয় বারের মতো শ্রেষ্ঠ নোয়াখালী ডিবি ইউনিট নোয়াখালীর নতুন থানা ভাষানচর মা ইলিশ রক্ষায় প্রশাসনের সাঁড়াশি অভিযান অটোরিকশা কেড়ে নিল হাজারো স্বপ্ন চুরির ১২ ঘন্টার মধ্যেই পুলিশের অ্যাকশন ‘ভোলার ঘটনায় কেউ কর্তব্যে অবহেলা করলে ব্যবস্থা’ ২০ নভেম্বরের মধ্যে ছাপা হবে প্রাথমিকের সব বই জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস আজ শপথ নিলেন নতুন ৯ বিচারপতি বিএনপির এমপি হারুন অর রশীদের ৫ বছরের কারাদণ্ড আট ট্রাভেল এজেন্সির লাইসেন্স বাতিল সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের দাবি মেনে নিল প্রশাসন ডোবা থেকে যুবকের গলিত লাশ উদ্ধার নোয়াখালী পুলিশ ৬ ক্যাটাগরিতে পুষ্কার অর্জন

বুধবার   ২৩ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৭ ১৪২৬   ২৩ সফর ১৪৪১

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান রাজধানীতে চার জঙ্গি আটক ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
৪৩৮৯

সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সবার সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

দেশকে আরো সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলতে জাতি, ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হলো দেশে কোনো অতিদরিদ্র্য থাকবে না। আমরা সব ধর্মের মানুষের কল্যাণে কাজ করছি। এবিষয়ে আমি আপনাদের সবার সহযোগিতা চাই।’

প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার উদযাপিত হতে যাওয়া বড়দিন উপলক্ষে সোমবার গণভবনের সবুজ চত্বরে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সদস্যদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ হিসেবে বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই দেশ সব জাতি, ধর্ম ও বর্ণের মানুষের। ‘যারা এই দেশের মাটিতে জন্ম নিয়েছে তারা বাংলাদেশের সন্তান। সবাই সমভাবে তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করবে।’শেখ হাসিনা বলেন, দেশে সুন্দর অসাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজ করছে, যেখানে ধর্ম যার যার কিন্তু উৎসব সবার।

আওয়ামী লীগ সরকারের গ্রহণ করা ‘ধর্ম যার যার কিন্তু উৎসব সবার’ স্লোগান উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা মনেপ্রাণে এই স্লোগান বিশ্বাস এবং সে অনুযায়ী সব উৎসব পালন করি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের স্বাধীনভাবে নিজ ধর্মের অনুষ্ঠান পালনের অধিকার রয়েছে এবং প্রত্যেককে নিজের ধর্মের মতো অন্যের ধর্মকে শ্রদ্ধা করা উচিত। ‘আমরা চাই প্রত্যেকে এ দেশে শান্তিতে বসবাস করবে। এখানে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের কোনো জায়গা হবে না।’

শেখ হাসিনা জানান, জাতির পিতার চিন্তা ও চেতনায় অনুপ্রাণিত হয়ে দেশকে শান্তিপূর্ণ হিসেবে গড়ে তুলতে চায় সরকার, যেখানে মানুষ শান্তিতে তাদের জীবিকা নির্বাহ করতে পারবে। বাংলাদেশ হবে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য উপাধ্যক্ষ রেমন আরেং, ক্রিশ্চিয়ান লীগের সাধারণ সম্পাদক ডেনিয়েল ডি’কস্তা, সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং ও বাংলাদেশ খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নির্মল রোজারিও।

পরে প্রধানমন্ত্রী খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সদস্যদের নিয়ে বড়দিনের কেক কাটেন। অনুষ্ঠানে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের শিল্পীরা বড় দিনের গান পরিবেশন করেন।অনুষ্ঠানের শুরুতে দেশের অব্যাহত শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির জন্য প্রভু যিশুর কৃপা কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর