ব্রেকিং:
জেনারেল হাসপাতালে ১০টি বেড বসিয়ে ১১ কোটি টাকার বিল ফেনীতে বিদেশী পিস্তলসহ সন্ত্রাসী গ্রেফতার তৃতীয় বউয়ের হাতে লাঞ্চিত ডাঃ টুপি মিজান লক্ষ্মীপুরে দুধ-ডিম-মাংসের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয়কেন্দ্র লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার দাবা প্রতিযোগিতা দেশে করোনা বিষয়ে সচেতনতা ও টিকাদানে সহায়তা করবে ফেসবুক সরকারি বিধি-নিষেধ মেনে চলতে বিশিষ্ট নাগরিকদের আহ্বান পর্যায়ক্রমে দেশের সবাইকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে: প্রধানমন্ত্রী চাঁদ দেখা গেছে, কাল থেকে রোজা করোনায় আক্রান্ত হলে কতদিন পর টিকা নিতে পারবেন নিত্যপণ্য পরিবহনে সহায়তায় মন্ত্রণালয়ের হটলাইন চালু লকডাউনে বিশেষ প্রয়োজনে ব্যাংক খুলতে নির্দেশ জেলেদের জন্য ৩১ হাজার মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ আগামীকাল থেকে সর্বাত্মক লকডাউনে যাচ্ছে দেশ দেশে একদিনে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু কমেছে রমজানে বেঁধে দেওয়া হলো ৬ পণ্যের দাম এলপিজি সিলিন্ডারের দাম নির্ধারণ টিকা কিনতে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ৪৩৩০ কোটি টাকার ঋণচুক্তি সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী থানাসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারি স্থাপনায় নিরাপত্তা জোরদার
  • মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ১ ১৪২৮

  • || ০১ রমজান ১৪৪২

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ পেছাতে পারে: শিক্ষামন্ত্রী

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১৩ মার্চ ২০২১  

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ আবারো পেছানো হতে পারে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি।

শুক্রবার বিকেলে ঢাকার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউটে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা প্রতিদিনই করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। আমাদের কাছে সবার আগে শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবকদের নিরাপত্তা। করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি থাকলে জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা হবে।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে এক বছর বন্ধ থাকার পর আগামী ৩০ মার্চ স্কুল ও কলেজ খোলার তারিখ ঠিক করেছে সরকার। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকের পর শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছিলেন স্কুল ও কলেজ খোলার এ তারিখ ঘোষনা করেছিলেন।

এছাড়া ঈদের পর ২৪ মে থেকে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলার সিদ্ধান্ত জানানো হয় তার আগেই। মহামারীর শুরুতে গত বছরের ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। ডিসেম্বরের মধ্যে পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি না হওয়ায় এইচএসসির পাশাপাশি পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনী এবং কোনো ক্লাসের বার্ষিক পরীক্ষাও নেয়া যায়নি।

এ বছরের শুরুর দিকে সংক্রমণের হার কমে এলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি শুরু হয়। কিন্তু মার্চের শুরু থেকে দেশে সংক্রমণের হার আবার বাড়তে শুরু করে।