ব্রেকিং:
অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আর্জেন্টিনার এমন অসহায় আত্মসমর্পণ কেন? ২১ দিন বন্ধের পর সুপ্রিম কোর্ট খুলছে আজ মুর্তজার মৃত্যুদণ্ড বাতিল করল সৌদি আরব ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি’ আজ বিশ্ব বাবা দিবস বিয়ের প্রলোভনে মাদ্রাসা শিক্ষিকাকে ধর্ষন হাতকড়াসহ আসামির পলায়ন পাদুকা শিল্পে উৎসাহিত করতে বিশেষ সুবিধা মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ২ হাজার টাকা বৃদ্ধি গবেষণা ও উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ ৫০ কোটি টাকা পদ্মা সেতুসহ ১০ মেগা প্রকল্পে বরাদ্দ ৩৯ হাজার কোটি টাকা শিশুদের জন্য ৮০ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট কৃষি যান্ত্রিকীকরণে ভর্তুকি বাড়বে একশটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের মাধ্যমে ১ কোটি কর্মসংস্থান নারী উন্নয়নে বরাদ্দ বেড়েছে ২৩ হাজার ৫০৫ কোটি টাকা শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে মোট বাজেটের ১৫ দশমিক ২ শতাংশ ঢাকার পূর্বাচলে ৬০ হাজার ফ্ল্যাট তৈরির পরিকল্পনা প্রতিবন্ধীদের নিয়োগ দিলেই কর রেয়াত রেলপথ মন্ত্রণালয়ে ১৬ হাজার ৩৫৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব

রোববার   ১৬ জুন ২০১৯   আষাঢ় ৩ ১৪২৬   ১২ শাওয়াল ১৪৪০

সর্বশেষ:
শেয়ারবাজারের লেনদেন শুরু হচ্ছে আজ অফিস-আদালতে ঈদের আমেজ হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রফতানি শুরু আলজেরিয়ায় কোরআন মুখস্থ করলে জেল থেকে মুক্তি হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি ভারত-অস্ট্রেলিয়া পাসওয়ার্ড: ‘বিশ্বমানের’ সিনেমা কি এমন হয়?
৯৮১

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: কনসাল জেনারেলদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

প্রকাশিত: ১৩ জুন ২০১৯  

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন দেশের সরকার ও সিভিল সোসাইটিকে সংশ্লিষ্ট করার উদ্যোগ নিতে কনসাল জেনারেলদের চিঠি দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন।

রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া তদারকিসহ মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের পুনঃপ্রতিষ্ঠায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সরকার ও সিভিল সোসাইটিকে সংশ্লিষ্ট করতে বাংলাদেশে কর্মরত বিভিন্ন দেশের অনারারি কনসাল জেনারেল এবং বিদেশে বাংলাদেশের অনারারি কনসাল জেনারেলদের অনুরোধ করে এই উদ্যোগ নিতে বলা হয়। খবর বাসস'র


 
সম্প্রতি লেখা এক চিঠিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তচ্যুত বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বোঝা অনির্দিষ্টকালের জন্য বহন করতে বাংলাদেশ সক্ষম নয়। যুগের পর যুগ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত ও দুর্দশাগ্রস্ত এ জনগোষ্ঠীর অবস্থান এদেশে দীর্ঘায়িত হলে এই অঞ্চলের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা হুমকির মুখে পড়তে পারে।

ড. মোমেন বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ মিয়ানমারের সঙ্গে তিনটি চুক্তি স্বাক্ষরসহ ১৯৭৮ ও ১৯৯২ সালের মত মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিকভাবে এ সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আন্তরিকভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে। তারপরও দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি অনুসরণ করে নিরাপদ, সম্মানজনক ও স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসনের জন্য রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য দৃশ্যমান সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টিতে মিয়ানমারের ব্যর্থতা এবং মিয়ামারের চরম অনাগ্রহের কারণে এখনও রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর স্বদেশে প্রত্যাবাসন শুরুর কার্যক্রম অনিশ্চিয়তার মধ্যেই আছে। এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সক্রিয় ভূমিকা প্রত্যাশা করে বাংলাদেশ।

মন্ত্রী বলেন, অনেক চ্যালেঞ্জ ও বাধা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবিক দিক বিবেচনায় এই অসহায় লোকদের অস্থায়ী আশ্রয় দেয়ার মত অত্যন্ত সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর