ব্রেকিং:
প্রতিটি সূচক অর্জনেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে: সেতুমন্ত্রী চীনে শুরু হচ্ছে ১০ দিনব্যাপী কুকুর খাওয়ার উৎসব বিশ্বকাপে ব্রাজিলের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ দেশব্যাপী তালগাছ রোপণ অভিযান শুরু করেছে আওয়ামী লীগ আরেকটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাথমিকে শূন্য পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত করার সুপারিশ ঢাকা বাইপাস সড়কের চার লেন প্রকল্পের কাজ শুরু পার্বত্য জেলার ১৪২ প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের সুপারিশ এলডিসি থেকে টেকসই উত্তরণে নতুন প্ল্যাটফর্ম আওয়ামী লীগ কেবল রাজনৈতিক দল নয়, জাতির নিউক্লিয়াসও: জয় আওয়ামী লীগ হীরার টুকরো, ভাঙলে বেশি জ্বলজ্বল করে : প্রধানমন্ত্রী খালের পানিতে নেমে ডুবে গেল দুই শিশু ৩০ টাকায় মেলে ভাত মাছ সবজি ডিম গাছে গাছে পাখির নিরাপদ আশ্রয় করে দিচ্ছেন যুবকরা দুই আঙুলে নাক টিপে পথ চলতে হয় এখানে চাচার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন কলেজছাত্রী এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ১৬ লাখ টাকা লুটের নেপথ্যে ‘ছিনতাই’ প্রতিবন্ধীদের চলাচলের রাস্তা কেটে ফেলার অভিযোগ লুঙ্গি ও গামছা পরে সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করল এএসআই টিকা উৎপাদনে আন্তর্জাতিক সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • বৃহস্পতিবার   ২৪ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ১২ ১৪২৮

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

যে দেশে পুলিশের নারী সদস্যরাও ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০২১  

আফগানিস্তানের পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিয়ে যেখানে অন্যদের নিরাপত্তা দেয়ার কথা, সেখানে পুলিশ সদস্য হিসেবে নিজেরাই ভুগছে নিরাপত্তাহীনতায়।

সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে জানা গেছে, আফগানিস্তানের বেশি বেশি নারীদের পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিতে বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন। তবে দেশটিতে নারী পুলিশ সদস্যদের জন্য বাস্তবতা ভিন্ন। সেখানে অনেক নারী পুলিশ সদস্য হরহামেশা পুরুষ উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বা সহকর্মীদের কাছে যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। বিচার চেয়ে উল্টো হেনন্থা হচ্ছেন তারা। আদালত থেকে অভিযুক্তরা অনায়াসেই বেকসুর খালাস পাচ্ছেন। আলাদত বলছেন, উপযুক্ত সাক্ষ্যপ্রমাণ না থাকায় আসামিরা ছাড়া পেয়ে যাচ্ছেন।

এ ধরনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে আফগান নারী মোমেনা পুলিশে যোগ দিয়েছিলেন। তবে একদিন তার থানার ওসি তাকে রুমে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন।

এ ঘটনায় তিনি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে নালিশ করে বিচার পাননি। উল্টো হেনস্তা হতে হয়েছে পদে পদে। পরে আদালতে মামলা করেন। সেখানে প্রায় ছয় মাস দৌড়ঝাঁপ করার পর আদালত পর্যাপ্ত প্রমাণের অভাবে ওসিকে বেকসুর খালাস দেন।

এ ঘটনায় মুষড়ে পড়েন তিনি। তার মতো বহু নারী পুলিশ সদস্য ধর্ষণের শিকার হয়ে আদালতে ধরনা দিয়ে বেড়াচ্ছেন।  

উল্লেখ্য, বর্তমানে আফগানিস্তানে চার হাজারের মতো নারী আছেন। সরকার আরো নারী নিয়োগ করতে চায়। মূলত নারীদের ব্যাগ তল্লাশির মতো কাজের জন্য দেশটির পুলিশ বিভাগে নারীদের নিয়োগ দেয়া হয়। তবে একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা ঘটায় আফগান নারীরা এখন শঙ্কিত।