ব্রেকিং:
যানজট মুক্ত নোয়াখালীর ঐতিহ্যবাহী চৌমুহনী শহর নোয়াখালীতে বিয়ের প্রলোভনে মহিলা কর্মচারীকে ৮ মাস ধরে ধর্ষণ চাটখিলে দিবাগত রাতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি চাটখিলের ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্বোধন চাটখিলের অ্যাডভোকেট পারভেজ নিখোঁজ নোয়াখালী সদরে মাদক সেবনের সময় চারজনকে আটক সেনবাগে স্বামীর বিরুদ্ধে জিডি করায় স্ত্রীকে হত্যা রোহিঙ্গা গণহত্যার বিষয়ে শিগগিরই সিদ্ধান্ত: আইসিজে প্রেসিডেন্ট নোবিপ্রবির জেনির জিনিয়াস হওয়ার গল্প নোয়াখালীতে ট্রাকচাপায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩ নোয়াখালী জেলার শ্রেষ্ঠ জয়িতা চাটখিলের আয়েশা বেগম কোম্পানীগঞ্জে অটোচাপায় এক মাদরাসা ছাত্রের মৃত্যু `ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস` উপলক্ষ্যে নোয়াখালীতে বর্ণাঢ্য আয়োজন হাতিয়ায় ৯ লক্ষ মিটার জাল জব্ধ করেছে কোষ্টগার্ড কিশোর গ্যাং সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন চাটখিলে স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ ‘বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের হত্যার বিচারও হবে’ - একরামুল করিম চৌধুরী চাটখিলে আবাসিক হোটেলে ডেকে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস আজ দেশে কুষ্ঠ রোগ নির্মূল করার অঙ্গীকার প্রধানমন্ত্রীর

শুক্রবার   ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
একবছরে পাঁচগুণ মুনাফা বেড়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আমাজন বাঁচাতে লিওনার্দোর ৫০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান ১৬২৬৩ ডায়াল করলেই মেসেজে প্রেসক্রিপশন পাঠাচ্ছেন ডাক্তার জোরশোরে চলছে রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্পের কাজ
৫৬৯

মিন্নির গোপন তথ্য ফাঁস করলেন রিফাতের বাবা

প্রকাশিত: ১৪ জুলাই ২০১৯  

বরগুনায় দিনে-দুপুরে রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির গোপন তথ্য ফাঁস করলেন নিহত রিফাতের বাবা ও মিন্নির শ্বশুর আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ।
শনিবার রাত ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান শ্বশুর আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ।

তিনি বলেন, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি আগে নয়ন বন্ডকে বিয়ে করেছিল। ওই বিয়ে গোপন করে রিফাত শরীফকে বিয়ে করে মিন্নি। বিষয়টি আমাদের জানায়নি মিন্নি এবং তার পরিবার। আমি মনে করি রিফাত শরীফ হত্যার পেছনে মিন্নির মদদ রয়েছে। তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনলে সব বিষয় পরিষ্কার হয়ে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নয়ন বন্ডের সঙ্গে মিন্নির বিয়ের বিষয়টি মিন্নি ও তার পরিবার সুকৌশলে গোপন করেছে। নয়ন বন্ডের স্ত্রী থাকা অবস্থায় আমার ছেলে রিফাতকে বিয়ে করেছে মিন্নি। রিফাতের সঙ্গে বিয়ের পরও মিন্নি নয়নের বাসায় যাওয়া-আসা করতো। নিয়মিত নয়নের সঙ্গে যোগাযোগ করতো। ইতোমধ্যে নয়ন বন্ডের মা একাধিক সংবাদমাধ্যমকে এ বিষয়ে অনেক তথ্য দিয়ে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। মিন্নির আগের বিয়ের কথা পরিষ্কারভাবে বলে দিয়েছেন নয়নের মা।

তিনি বলেন, রিফাত হত্যাকাণ্ডের আগের দিন সকাল ৯টার দিকে নয়নের সঙ্গে দেখা করতে যায় মিন্নি। ওই দিন সন্ধ্যায় নয়নের বাসায় যায় মিন্নি। রিফাতের সঙ্গে বিয়ের পরও নয়নের বাসায় মিন্নির নিয়মিত যাতায়াত ছিল। ঘটনার দিন রিফাতকে ছাড়া কলেজে গেলেও ঘটনার কিছু সময় আগে রিফাতকে বাসা থেকে কলেজে ডেকে নিয়ে যায় মিন্নি। কারণ হত্যাকারীদের সঙ্গে মিন্নির আগে থেকে যোগাযোগ ছিল। মোটরসাইকেলে কলেজ থেকে মিন্নিকে নিয়ে আসার জন্য রিফাত গেলে হত্যাকারীদের না দেখে আবার কলেজে ঢুকে যায় মিন্নি। সেই সঙ্গে সময় কাটাতে থাকে। পরে হত্যাকারীদের উপস্থিতি দেখে মিন্নি কলেজ থেকে বের হয়। ওই সময় মিন্নিকে নিয়ে আসতে গেলে আমার ছেলের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে হত্যাকারীররা।


রিফাতের বাবা বলেন, মিডিয়ায় প্রকাশিত নতুন ভিডিওতে বিষয়টি পরিষ্কার দেখা যায়। আমার ছেলেকে রিফাত ফরাজী ও অন্যরা যখন মারধর করতে করতে নিয়ে যায় তখন স্বাভাবিকভাবে পেছনে পেছনে হাঁটছিল মিন্নি, যা কোনোভাবেই আমি মেনে নিতে পারিনি। এটি দেখে পরিষ্কার বোঝা যায়, আমার ছেলে হত্যার পেছনে মিন্নির হাত রয়েছে।


 
আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ বলেন, মিডিয়ায় প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায় রিফাতকে কোপানোর সময় মিন্নি খুনিদের জাপটে ধরেছে। কিন্তু খুনিরা কেউ মিন্নির ওপর চড়াও হয়নি এমনকি মিন্নিকে একটা টোকাও দেয়নি। যখন রিফাত আহত এবং রক্তাক্ত অবস্থায় একা একা রিকশাযোগে হাসপাতাল যাচ্ছিল তখন মিন্নি তার ব্যাগ ও স্যান্ডেল গোছানোর কাজে বেশি ব্যস্ত ছিল। খুনিদের একজন রাস্তা থেকে ব্যাগ তুলে মিন্নির হাতে দিয়েছে। মিন্নি ওই ব্যাগ নিয়ে স্বাভাবিকভাবে হাঁটছিল। এছাড়া আমার ছেলে রিফাত শরীফকে অ্যাম্বুলেন্সযোগে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার সময়ও যায়নি মিন্নি। আসলে সবই ছিল মিন্নির অভিনয়।

এ সময় রিফাতের বাবা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ইতোমধ্যে এসব নিয়ে একাধিক সংবাদ ও ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। আপনারা সবই অবগত আছেন। তাহলে কেন এখন পর্যন্ত মিন্নিকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। তাকে আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে না কেন পুলিশ? আমার বিশ্বাস মিন্নিকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আমার ছেলে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসবে। এ হত্যার পেছনে মিন্নির হাত আছে।

দুলাল শরীফ আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ প্রশাসনের সবার কাছে আমার আকুল আকুতি এ ন্যক্কারজনক হত্যাকাণ্ডের মূলহোতাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে প্রকৃত রহস্য উন্মোচন করুন। আদালতের মাধ্যমে মিন্নির শাস্তি দাবি করছি আমি। তাকে যেন এমন কঠিন শাস্তি দেয়া হয় যাতে আর কোনো রিফাত শরীফের বাবা-মায়ের কোল খালি না হয়।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর