ব্রেকিং:
দেশে একদিনে আরো ৩৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৬৪৪ আরেকটি নতুন মাইলফলকের পথে রিজার্ভ মহামারির মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী জাতির পিতার স্বপ্নপূরণে সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে দেব বঙ্গবন্ধু আগামী প্রজন্মের অনুপ্রেরণার উৎস ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, বাংলাদেশকে দেখেছি মহামানবের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড বঙ্গবন্ধুর বাঙালি জাতীয়তাবাদের সীমানা ৮ মাসে আটবার সোনার দামের পরিবর্তন, থমকে আছে রূপা জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা পর্যটকদের অসচেতনতায় সৌন্দর্য হারাতে পারে খোয়া সাগর দিঘী ছাগলনাইয়ায় ২ হাজার পিস ভারতীয় টার্গেট ট্যাবলেট উদ্ধার শশুর বাড়ির লোকজনের নির্যাতনে নিরুদ্ধেশ গৃহবধু শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী আজ দেশে একদিনে আরো ৩৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৭৬৬ প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলতে ১২৮ কোটি টাকা খরচ করবে সরকার অগ্নাশয় ক্যান্সার গবেষণায় বাঙালি বিজ্ঞানীর সাফল্য সপ্তাহে ৮ হাজার টাকা আয়ের সুযোগ পাচ্ছেন ৫ লাখ তরুণ
  • শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৭

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১১

ব্যস্ততা যেন ছুটিতে গেল, ঢাকা এখন ফাঁকা

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩১ জুলাই ২০২০  

করোনাভাইরাসের জেরে বেশ কয়েকমাস ঢাকার বুকে নেমে এসেছিল নিস্তবব্ধতা। এরপর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে আবার জেগে উঠে রাজধানী। কিন্তু মাস না গড়াতেই ব্যস্ততা যেন ফের ছুটিতে গেল। পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটিতে এরইমধ্যে নাড়ির টানে রাজধানী ছেড়েছেন অসংখ্য মানুষ। ফলে শহরের বেশিরভাগ সড়ক ফাঁকা হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর মতিঝিল, কাকরাইল, বিজয়নগর, মহাখালী ও বনানীসহ বিভিন্ন সড়কে যানবাহন ও মানুষের উপস্থিতি তেমন চোখে পড়েনি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ কিছুটা বাড়লেও তেমন ভিড় লক্ষ্য করা যায়নি। 

কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গতকাল ঈদের আগের শেষ কার্যদিবস থাকায় সরকারি চাকরিজীবীদের অনেকেই এরইমধ্যে পরিবার-পরিজন নিয়ে রাজধানী ছেড়েছেন। পাশাপাশি বেসরকারি কর্মজীবীরা ছেড়েছেন ঢাকা। 

 

শুক্রবার সকালে রাজধানীর বেশিরভাগ সড়কেরই এমন চিত্র চোখে পড়ে। ছবি: নুরুল করিম

শুক্রবার সকালে রাজধানীর বেশিরভাগ সড়কেরই এমন চিত্র চোখে পড়ে।

তবে জরুরি প্রয়োজনে এখনো যারা শহরে অবস্থান করছেন তাদের অনেকেই গ্রামের বাড়ি যেতে ছোটাছুটি করছেন রাজধানীর বিভিন্ন বাস টার্মিনালগুলোতে। শুক্রবার রাজধানী ঢাকার কয়েকটি বাস টার্মিনাল এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্য চোখে পড়ে।

কাকরাইল মোড়ে বাসের জন্য অপেক্ষা করা তানভীর সরকার নামের এক যাত্রী বলেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। তাই জরুরি প্রয়োজনে আজ শুক্রবারও অফিস করতে হবে। ঈদের পর বেশি ছুটি কাটাবো বলে ঈদের আগ পর্যন্ত কাজ করছি। আজ রাতেই বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেব।

এদিকে ক্রমেই ঢাকা ফাঁকা হতে থাকলেও করোনা ঝুঁকি নিয়েও গতকাল বৃহস্পতিবার বসুন্ধরা, মৌচাক, পল্টন, বেইলি রোডসহ মার্কেট প্রধান কয়েকটি এলাকায় মানুষের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। ঈদের আগের শেষ সময়ে কেনাকাটায় ব্যস্ত তারা।

অন্যদিকে রাজধানীতে যানবাহনের তেমন একটা আধিক্য না থাকায় ঢাকার এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ছুটতেও সময় লাগছে কম। এরইমধ্যে অনেকেই ঢাকা ছেড়েছেন। বাকিরাও নিজ নিজ বাড়ি ফিরছেন। তাই জনজটের ঢাকা শহর এখন ফাঁকা নগরীতে পরিণত হয়েছে।

সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর