ব্রেকিং:
হাতিয়ায় অবৈধভাবে চলছে ১২ হাজার মোটরসাইকেল দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী ‘এরশাদের আসনে আওয়ামী লীগ অংশ নেবে’ সবাই মিলে দেশটাকে গড়ে তুলতে হবে: গণপূর্তমন্ত্রী ‘আওয়ামী লীগের আমলে বৃক্ষ রোপণের গণজাগরণ হয়’ শিক্ষামন্ত্রীর স্বামী তৌফিক নেওয়াজ গুরুতর অসুস্থ বন্যা মোকাবিলায় মাঠে সরকার ‘আমরা বাংলাদেশের বোঝা হয়ে আর থাকতে চাই না’ শুধু কূটনৈতিক নয়, অর্থনৈতিক বিষয়গুলোতে জোর দিতে হবে টাইগার অধিনায়ক তামিম ইকবাল অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারলে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা কোম্পানীগঞ্জে নগদ টাকা অনুদান প্রদান কোম্পানীগঞ্জে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ‘ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহার অভিযোগ উদ্দেশ্যমূলক’ প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে অণ্ডকোষ হারালো যুবক মিয়ানমারের উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা পর্যাপ্ত নয়: জাতিসংঘ ব্যক্তিস্বার্থে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার অপচেষ্টায় প্রিয়া সাহা আদালতে রিফাত হত্যার মিন্নির স্বীকারোক্তি যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময় আর্থিক সহায়তা পেতেই ট্রাম্পের কাছে মিথ্যাচার করলো প্রিয়া সাহা!

সোমবার   ২২ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ৬ ১৪২৬   ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪০

সর্বশেষ:
পদ্মা সেতু নিয়ে গুজবে গ্রেফতার ১ জন অপপ্রচারই বিএনপির পুঁজি: ওবায়দুল কাদের ‘মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা হবে ১৫ হাজার টাকা’ জেলা প্রশাসক সম্মেলন ১৪ জুলাই বাংলাদেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তির প্রশংসায় রানী ম্যাক্সিমা নতুন দুই মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর শপথ ১৩ জুলাই
৩৯৮

বিশ্বের সবচেয়ে বড় জাহাজ

প্রকাশিত: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় জাহাজ কোনটি? নিশ্চয়ই আপনার মনে টাইটানিকের ছবি ভাসছে। এই জাহাজের আভিজত্য সম্পর্কে প্রায় সবারই ধারণা রয়েছে। তবে সে পুরানো কথা। এবার পৃথিবীর সবচেয়ে বড় জাহাজ হিসেবে আলোচিত হয়েছে ‘হারমনি অব দ্য সিস’ । কী রয়েছে এই বিশাল জাহাজটিতে? আপনি যদি বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই জাহাজ ‘হারমনি অব দ্য সিস’কে যদি কেও ভাসমান মহানগরী বলেন তাতেও ভুল হবে না। কারণ হলো বিশ্বের এ পর্যন্ত নির্মিত সবচেয়ে বড় এবং ভারী জাহাজে এটি। সম্প্রতি ইংল্যান্ডের সাউথহ্যাম্পটন বন্দর হতে চোখ ধাঁধানো ‘হারমনি অব দ্য সিস’ জাহাজের উদ্বোধন করা হয়।

সমূদ্রের মাঝে একটি অভিজাত্য সাম্রাজ্যের ন্যায় ‘হারমনি অব দ্য সিস’। কি নেই জাহাজটিতে। এতে প্রবেশ করলে আপনি স্বপ্নের জগতে হারিয়ে যাবেন মুহূর্তেই। ভূমধ্যসাগর কিংবা ক্যারিবিয়ানে ছুটিতে সর্বোচ্চ বিনোদন দিতে এই জাহাজটিতে আয়োজনের কোনো কমতি রাখেনি কর্তৃপক্ষ। ১ হাজার একশো ৮৭ ফুট লম্বা এবং ২শ’ ৩০ ফুট উচ্চতার জাহাজটি ৫ হাজার ৫৫১ জন যাত্রী বহন করতে সক্ষম। এতে ২ হাজার ৭৫৯টি স্টেটরুম রয়েছে। সেইসঙ্গে ২৮টি বারান্দা রয়েছে যেন ঘরেই বসেই যাত্রীরা সাগরের সৌন্দর্য্য উপভোগ তরতে পারে। এই জাহাজে দ্বিতল ঘরানার ফ্যামিলি স্যুট যেখানে বেডরুমসহ ড্রয়িং এমনকি বাচ্চাদের রুম ও খেলার জায়গা রয়েছে।

২০১৩ সালে শুরু হয় জাহাজটির নির্মাণকাজ। এটি নির্মাণে সময় লেগেছে তিন বছর। মোট আড়াই হাজার শ্রমিক জাহাজটি নির্মাণে কাজ করেছেন। ‘হারমনি অব দ্য সিস’ জাহাজটি রয়েল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনাল নৌবহরের ২৫তম জাহাজ এটি। জানা গেছে জাহাজটি তৈরিতে ব্যয় হয়েছে ৭০ কোটি পাউন্ড। এই জাহাজের বিশেষত্ব হলো যাত্রী ধারণক্ষমতা। বিশ্বের সর্বাধিক যাত্রী ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ভ্রমণ জাহাজ হলো এই ‘হারমনি অব দ্য সিস’। বিশ্বের সবচেয়ে বড় যাত্রীবাহী জেট এয়ারবাস এ৩৮০-তে সিটের সংখ্যা ৫২৫টি। তুলনা করলে বলা যায়, ‘হারমনি অব দ্য সিস’ তার চেয়েও দশগুণ বেশি যাত্রী বহন করতে সক্ষম। দ্রুততার দিক হতে জাহাজটি ঘণ্টায় ২৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারবে।

‘হারমনি অব দ্য সিস’ এ রয়েছে মোট ১৮টি ডেক। তারমধ্যে ১৬টি ডেকে রয়েছে ২ হাজার ৭৪৭টি কেবিন। যা বর্তমানে যেকোনো জাহাজের থেকে অনেক বেশি। জাহাজটি এতো বড় যে যাত্রীরা যাতে হারিয়ে না যান, সেজন্য তাদেরকে জিপিএস ব্যবহার করতে হবে! দুই তলা বিশিষ্ট এই জাহাজের সিগনেচার রুমটিকে বলা হয় রয়েল লফট স্যুট। রয়েল লফট স্যুটের প্রথম তলাতে রয়েছে ১৬০০ স্কয়ার ফুটের একটি লিভিং স্পেস। অন্যদিকে ২য় তলাটি  ৮৭৪ স্কয়ার ফুটের। দুটি মিলিয়ে ২৪৭৪ স্কয়ার ফুট! শহরের বড় যে কোনো বড় অ্যাপার্টমেন্টের চেয়েও অনেক বেশি বড়।

যেহেতু ‘হারমনি অব দ্য সিস’ একটি ভ্রমণ জাহাজ সেহেতু এখানে ছুটি কাটাতে আসা যাত্রীদের আনন্দ গ্রহণে যেনো কোন সমস্যা না হয় তাই বিশ্বের ৮০টি দেশের প্রায় ২ হাজার ১০০ জন কর্মচারী তাদের সেবায় নিয়োজিত। আবার সবচেয়ে এক্সক্লুসিভ কেবিনে যারা থাকবেন তাদের সেবায় থাকবে রয়েল জেনিস উপাধির খানসামা। এরা অতিথিদের মালপত্র খুলতে ও গোছাতে অতিথিদের সহযোগিতা করবে।

ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ বা ডিনার নিয়ে অতিথি বা যাত্রীদের কোনো চিন্তা নেই। ২০টি রেষ্টুরেন্ট ও বার রয়েছে ‘হারমনি অব দ্য সিস’ জাহাজটিতে। খাবারের মধ্যে রয়েছে হটডগ হতে শুরু করে সুশি পর্যন্ত। জাহাজটিতে খোলা হয়েছে একটি বায়োনিক বার। যেখানে রোবটরা কাস্টমারদের চাহিদা অনুযায়ী ককটেলও বানিয়ে দেবে। এতে আরও রয়েছে খেলার জায়গা, কমেডি ও জ্যাজ ক্লাব, বুটিক শপ, সি স্পা ও ফিটনেস সেন্টার, ইউথ জোন, ২৩টি সুইমিংপুল, স্পের্টস জোন, সেন্ট্রাল পার্ক এবং চিত্তবিনোদনের হরেক উপকরন। এ ছাড়া কেনাকাটা ও শরীরচর্চার জন্যও রয়েছে সব ব্যবস্থা। একদম মধ্যখানে অবস্থিত সেন্ট্রাল পার্কে সাড়ে ১০ হাজারের বেশি উদ্ভিদ, ৪৮টি আঙ্গুর গাছ এবং ৫২টি বড় গাছও রয়েছে ‘হারমনি অব দ্য সিস’ জাহাজটিতে।

রাতে জাহাজটি অসাধারণ রুপ ধারণ করে। বিভিন্ন রঙের লাইট দিয়ে সাজানো জাহাজটি যেন সমূদ্র পথে চলা এক আলোকবর্তিকা। দূর থেকেও মানুষ অবাক হয়ে সেই আলোয় ভুলবে।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার