ব্রেকিং:
দেশে একদিনে আরো ৩০ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৮৬ ভ্রুণ হত্যার অভিযোগে হোমিও চিকিৎসকসহ গ্রেফতার ৪ ‘ডিআইজি নয়, আমি আইজিপিকেও পরোয়া করি না’!! করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসকের সঙ্গে এ কেমন আচরণ! কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার সিগারেট বিক্রি নিয়ে তর্ক, দক্ষিণ আফ্রিকায় নোয়াখালীবাসীকে গুলি ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনে হুমকিতে বিদ্যালয়, সড়ক,বসত বাড়ী বৈশ্বিক সঙ্কটে নারীদের সুরক্ষা মতিঝিলে হবে ২৫ তলাবিশিষ্ট বঙ্গবন্ধু চা ভবন অতিরিক্ত ২ মাসের বেতন পাচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করা হবে দেশের ৬৬০ ওসিকে কঠোর বার্তা ৪ হাসপাতালের তথ্য তলব দুদকের ১৪ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ‘কালো তালিকাভুক্ত’ ৩১ বছর পর এবার কাঁচা চামড়া রপ্তানি! ক`জন সমালোচক মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন? সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক দুর্নীতিবাজ যেই হোক ব্যবস্থা নিচ্ছি ত্রাণ বিতরনে বেগমগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ডিম খাওয়ার জন্য পালিত কন্যাকে পৈশাচিক নির্যাতন
  • শনিবার   ১১ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪১

১০১৭

বিএনপি শাসনামলের মক্ষীরানি বেবি নাজনীন, শামা ও নিশো!

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

২০০১ সালে ক্ষমতায় আসার পর একের পর এক অপকর্ম করে দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বিএনপি। তাদের নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সেসব অপকর্মের কথা কম-বেশি সবাই জানেন। এবার বেরিয়ে এলো নতুন এক খবর।

জানা গেছে, তারেক রহমানের ব্যবসায়ী বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বাগানবাড়িতে অনুষ্ঠানের নামে আয়োজন করা হতো উদ্দাম নাচ ও মদ উৎসবের। আর সেখানে নিয়মিত যাতায়াত করতো বিএনপির বিভিন্ন জ্যেষ্ঠ নেতা ও ব্যবসায়ীরা। তাদের মনোরঞ্জনে সার্বক্ষণিক নিয়োজিত ছিলো বিভিন্ন বয়সী এক ঝাঁক নারী। আর এসব কর্মকাণ্ড থেকে উপার্জিত অর্থ ব্যবহৃত হতো জঙ্গি তৈরিসহ দেশের ধ্বংসাত্মকমূলক কাজে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিএনপি জোট সরকারের আমলে কট্টর বিএনপিপন্থী ব্যবসায়ী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমানের ব্যবসায়িক অংশীদার গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বাগানবাড়ি ‘খোয়াব ভবন’-এ প্রায় প্রতি রাতেই বসতো মদ, নাচ ও জুয়ার আসর। সেখানে আমন্ত্রিত অতিথিদের মনোরঞ্জনে সময়ক্ষেপণ করতো বিভিন্ন বয়সী নারীরা। যাদের মধ্যে সর্ব প্রথমেই উঠে আসে অদিতি সেন গুপ্তর কথা। তিনি গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের গার্লফ্রেন্ড ছিলেন। এর বাইরেও তার একটি পরিচয় আছে, তিনি চ্যানেল ওয়ানের কর্মকর্তা ছিলেন। পরবর্তীতে মামুনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। শুধু তাই-ই নয়, তারেক রহমানের সঙ্গেও তার উষ্ণ-অনৈতিক সম্পর্ক ছিল। উঠে আসে আরেক জনের নাম। যার কণ্ঠের মাদকতায় দেশের একটি বড় অংশ বিমোহিত, তিনি আর কেউ নন বেবি নাজনীন। তিনিও সেখানে নিয়মিত যাওয়া-আসা করতেন। এমনকি অখণ্ড অবসরে অন্যান্য খদ্দেরদের মনোরঞ্জনে তৎকালীন শেরাটন হোটেলে রাত্রিযাপন করতেন।

এদিকে, কম-বেশি সবাই চিত্রনায়িকা জনাকে চেনেন। তিনি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলের হাইরেটেড একজন দেহপসারিনী। রূপের মোহতে আবেশিত করে তিনি অনেক ধনাঢ্য ব্যক্তিকে রাস্তার ফকির করে ছেড়েছেন। তার বাসভবনে বিএনপির প্রভাবশালীর মহলের পাশাপাশি অনেক মন্ত্রী ও প্রভাবশালী নেতার অবাধ যাতায়াত ছিল। একইপথে হেঁটেছেন চিত্রনায়িকা শায়লা, ফারহানা নিশো ও শামা ওবায়েদও। তারা নিজেদের যৌবনের জালে মানুষকে ফাঁসিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। ভেঙেছেন অনেকের সাজানো সুখের সংসার। এদের অনেকেই এখন অন্তরালে। আবার অনেকেই দেশছাড়া। কেউবা চালিয়ে যাচ্ছেন চুপিসারে এখনো।

রাজনৈতিক বিজ্ঞজনরা বলছেন, অবৈধ সকল কাজের চর্চাই হয় বিএনপির ঘরে। যার স্বচ্ছ ও উত্তম উদাহরণ এই দেহপসারিনীদের ঘটনা। তারা নারীদের ব্যবহার করে নিজের স্বার্থ হাসিল করতো টার্গেট প্রার্থীদের থেকে। যেটা একটা রাজনৈতিক দলের জন্য আকণ্ঠ দুর্বলতা বৈ অন্য কিছু নয়।

রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর