ব্রেকিং:
দেশে করোনার টিকা কবে আসবে, জানালেন স্বাস্থ্য সচিব কোনোভাবেই বেপরোয়া গাড়ি চালানো যাবে না: সেতুমন্ত্রী ছিন্নমূল শতাধিক পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অসহায়দের মাঝে আওয়ামীলীগ নেতার কম্বল বিতরণ ব্যাংকার্স ফোরাম লক্ষ্মীপুরের অভিষেক অনুষ্ঠিত ফেনীতে ১০০ সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে অবৈধ গ্যাস সংযোগ তৃণমূলের সাথে যাদের সুসম্পর্ক তাকে মনোনয়ন দেয়া হবে পরশুরামকে আলোকিত করে দিচ্ছেন পৌর মেয়র সাজেল চৌধুরী সোনাগাজী মডেল থানার উন্নয়ন ও সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেন এসপি ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধিতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল রায়পুরে হাসপাতালে অভিযান, ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা ফেনীতে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি চলছে ফেনীতে আ’লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন শুরু হচ্ছে আজ লক্ষ্মীপুরে এসিড সন্ত্রাসের শিকার ৩ নারী সুবর্ণচরে ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ভূমিহীনদের মানববন্ধন নিঝুমদ্বীপে উচ্ছেদ আতঙ্কে ভূমিহীনরা ৫ টাকায় সারাদিন ইন্টারনেট ব্যবহারের পদ্ধতি তৈরি করলেন দুই বাংলাদে উন্নত প্রযুক্তির বডি স্ক্যানার বসছে শাহজালাল বিমানবন্দরে দেশের তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপিত হবে ৬৯৩ কোটি টাকায়
  • মঙ্গলবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৭

  • || ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

৬৪

বিএনপির নারী নির্যাতনের নানা ঘটনা আজও ভুলেনি মানুষ

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১২ নভেম্বর ২০২০  

বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, নারী নির্যাতন ও সংখ্যালঘু নির্যাতন ওতপ্রোতভাবে জড়িত। দলটির দুই দফা শাসনামলে দেশে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা মহামারি আকার ধারণ করে। বিএনপির শাসনামলে নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো মনে করে আজও শিউরে ওঠেন দেশবাসী।

১৯৯৩ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পরিসংখ্যান বিভাগের এক ছাত্রীকে তুলে নিয়ে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ করে ছাত্রদল নেতা সীমান্ত, মিতুল ও জাপানসহ আরো কয়েকজন। পরিসংখ্যান বিভাগের সামনের জঙ্গলের মধ্যে তারা সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। ঘটনার পর তৎকালীন তথ্যমন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যান এবং ছাত্রীর বাবাকে ডেকে ‘সমঝোতা’ করে দেন। 

এ ঘটনায় ওই ছাত্রী ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে গেলে আর কোনোদিন ক্যাম্পাসে ফেরেননি। এমনকি ছাত্রীর বাবাও কাঁদতে কাঁদতে ক্যাম্পাস চত্বর ছাড়েন। ছাত্রদল নেতাদের এমন ন্যক্কারজনক ঘটনায় দেশ ও বিদেশে তোলপাড় শুরু হয়। চরম বিপাকে পড়ে তৎকালীন বিএনপি সরকার। কিন্তু ধর্ষণে অভিযুক্ত ছাত্রদল নেতারা রয়ে যায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এ ঘটনার পর ১৯৯৫ সালে পরিসংখ্যান বিভাগের আরেক ছাত্রীকে অর্থনীতি বিভাগের সামনে থেকে প্রকাশ্যে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে আগের অভিযুক্ত ছাত্রদল নেতা সীমান্ত। এ ঘটনায়ও সীমান্তের কোনো বিচার হয়নি। 

এদিকে ধর্ষণের শিকার সেই ছাত্রী পড়াশোনা শেষ না করে জাবি ক্যাম্পাস ছাড়তে বাধ্য হলেও ছাত্রদল নেতা সীমান্ত ঠিকই পরবর্তীতে ডিগ্রি নিয়ে বের হয়। তৎকালীন ক্ষমতাসীন সরকারের মদদে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সীমান্ত ও তার সহযোগীদের শাস্তি দেয়ার বিষয়টি বিবেচনাতেই নেয়নি।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাবির এক শিক্ষক বলেন, সে সময়ে ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক ক্যাডার হওয়ার কারণে ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ করেও পার পেয়ে যায় সীমান্ত। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ওই সময় ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের জন্য অপরাধের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হয়ে ওঠে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর