ব্রেকিং:
অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আর্জেন্টিনার এমন অসহায় আত্মসমর্পণ কেন? ২১ দিন বন্ধের পর সুপ্রিম কোর্ট খুলছে আজ মুর্তজার মৃত্যুদণ্ড বাতিল করল সৌদি আরব ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি’ আজ বিশ্ব বাবা দিবস বিয়ের প্রলোভনে মাদ্রাসা শিক্ষিকাকে ধর্ষন হাতকড়াসহ আসামির পলায়ন পাদুকা শিল্পে উৎসাহিত করতে বিশেষ সুবিধা মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ২ হাজার টাকা বৃদ্ধি গবেষণা ও উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ ৫০ কোটি টাকা পদ্মা সেতুসহ ১০ মেগা প্রকল্পে বরাদ্দ ৩৯ হাজার কোটি টাকা শিশুদের জন্য ৮০ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট কৃষি যান্ত্রিকীকরণে ভর্তুকি বাড়বে একশটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের মাধ্যমে ১ কোটি কর্মসংস্থান নারী উন্নয়নে বরাদ্দ বেড়েছে ২৩ হাজার ৫০৫ কোটি টাকা শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে মোট বাজেটের ১৫ দশমিক ২ শতাংশ ঢাকার পূর্বাচলে ৬০ হাজার ফ্ল্যাট তৈরির পরিকল্পনা প্রতিবন্ধীদের নিয়োগ দিলেই কর রেয়াত রেলপথ মন্ত্রণালয়ে ১৬ হাজার ৩৫৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব

রোববার   ১৬ জুন ২০১৯   আষাঢ় ৩ ১৪২৬   ১২ শাওয়াল ১৪৪০

সর্বশেষ:
শেয়ারবাজারের লেনদেন শুরু হচ্ছে আজ অফিস-আদালতে ঈদের আমেজ হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রফতানি শুরু আলজেরিয়ায় কোরআন মুখস্থ করলে জেল থেকে মুক্তি হাইভোল্টেজ ম্যাচে মুখোমুখি ভারত-অস্ট্রেলিয়া পাসওয়ার্ড: ‘বিশ্বমানের’ সিনেমা কি এমন হয়?
৫০

ফেনীর রোমিও-জুলিয়েটের করুণ সমাপ্তি

প্রকাশিত: ১২ জুন ২০১৯  

‘রোমিও-জুলিয়েট’ ফেনীর আলোচিত ভিক্ষুক দম্পতি। ৫ জুন ঈদের দিন রোমিওকে ছেড়ে পরপারে পাড়ি জমান জুলিয়েট। এর আগে আদরের দুটি কন্যা সন্তানকে হারিয়ে নিঃসঙ্গ পড়েন তারা।

২০১৬ সালের শেষের দিকে কোলজুড়ে ফুটফুটে কন্যা সন্তান নিয়ে ফেনীতে আসেন মানসিক ভারসাম্যহীন আবু বক্কর সিদ্দীক ও আমেনা আক্তার। রাস্তার পাশে ফুটপাতে সংসার পাতেন তারা। 

শহরের রাজাঝিদিঘীর পাড়ে, কখনও কোনো সরকারি অফিস আদালতের বারান্দায় দিন-রাত পার করেছেন তারা। স্ত্রী-সন্তানের প্রতি ভালোবাসা দেখে স্থানীয়রা তাদের নাম দেয় ‘রোমিও-জুলিয়েট’। একদিন তাদের আদরের সন্তানটি চুরি হয়ে যায় তাদের। নিজের সন্তানকে হারিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে থাকেন ‘রোমিও-জুলিয়েট’।

Feni

২০১৭ সালের ১৫ মে। শহরের শিশু নিকেতন স্কুল মার্কেটের বারান্দায় আরও একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন ‘রোমিও জুলিয়েট’ দম্পতি। স্থানীয়রা নাম দেয় আনিসা আক্তার রানী। পুনরায় সন্তান পেয়ে তাদের আনন্দের আর সীমা থাকে না। মানুষের সহযোগিতায় আস্তে আস্তে বেড়ে উঠতে থাকে রানী। কিন্তু তাদের সংসারে আবারও দুর্যোগ নেমে আসে। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে রানী। পরে স্থানীয় ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম তাকে আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৫ ডিসেম্বর রানী মারা যায়। পরে তাকে পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়।

ওই দিন হাসপাতালে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। মৃত সন্তানকে কোল থেকে কিছুতেই নামাতে দিচ্ছিলেন না আমেনা আক্তার। অপর দিকে কবর দেয়ার সময় আবু বক্কর সিদ্দিক সন্তানকে রেখে দিতে বার বার অনুরোধ করেন।

Feni

ফেনী পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাহতাব উদ্দিন মুন্না জানান, শুনেছি ঈদের কয়েকদিন আগে মহিপালে মালবাহী ট্রাকের ধাক্কায় আমেনা আক্তার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে কে বা কাহারা একটি ভ্যানগাড়িতে রেখে চলে যায়। সেখানে তার মৃত্যু হলে ঈদের দিন পৌর কবরস্থানে মেয়ের পাশে সমাহিত করা হয় তাকে।

তিনি আরও বলেন, স্ত্রী মারা যাওয়ার পর নিঃসঙ্গ আবু বক্কর সিদ্দিককে সেলুনে নিয়ে চুল কেটে গোসল করিয়ে নতুন জামা কাপড় কিনে দেন তিনি। পরে তাকে বুঝিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে অনুরোধ জানান। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সিদ্দিককে একটি রিকশা, থাকার জায়গা ও লেপ-তোষক কিনে দেন তিনি।

Feni

আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, ফেনী শহরতলীর বাহিপুরের আবদুল আজিজ ও কদ বানুর ৫ সন্তানের মধ্যে কনিষ্ট সন্তান সে। বাবা আবদুল আজিজের কোনো কন্যা সন্তান না থাকায় ছোটবেলা থেকে আমেনা আক্তারকে লালন-পালন করেন। ভারসাম্যহীন সেই আমেনার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে সিদ্দিকের। পরে বিয়ে করে সংসার পাতে দু’জন। এ কারণে পরিবারের সদস্যরা তাকে ঘর থেকে বের করে দেয়।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর