ব্রেকিং:
দেশে একদিনে আরো ৩৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৬৪৪ আরেকটি নতুন মাইলফলকের পথে রিজার্ভ মহামারির মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী জাতির পিতার স্বপ্নপূরণে সাধ্যের সবটুকু উজাড় করে দেব বঙ্গবন্ধু আগামী প্রজন্মের অনুপ্রেরণার উৎস ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, বাংলাদেশকে দেখেছি মহামানবের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড বঙ্গবন্ধুর বাঙালি জাতীয়তাবাদের সীমানা ৮ মাসে আটবার সোনার দামের পরিবর্তন, থমকে আছে রূপা জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা পর্যটকদের অসচেতনতায় সৌন্দর্য হারাতে পারে খোয়া সাগর দিঘী ছাগলনাইয়ায় ২ হাজার পিস ভারতীয় টার্গেট ট্যাবলেট উদ্ধার শশুর বাড়ির লোকজনের নির্যাতনে নিরুদ্ধেশ গৃহবধু শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী আজ দেশে একদিনে আরো ৩৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৭৬৬ প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলতে ১২৮ কোটি টাকা খরচ করবে সরকার অগ্নাশয় ক্যান্সার গবেষণায় বাঙালি বিজ্ঞানীর সাফল্য সপ্তাহে ৮ হাজার টাকা আয়ের সুযোগ পাচ্ছেন ৫ লাখ তরুণ
  • শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৭

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১৪

প্রশ্নফাঁস চক্রের সদস্যদের উপার্জিত সম্পদের খোঁজ নিচ্ছে সিআইডি

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ৩১ জুলাই ২০২০  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস চক্র চিহ্নিত করেছে সাইবার পুলিশ সিআইডি। সে মামলায় মূল হোতাসহ গ্রেফতার হয় ৪৭ জন। সর্বমোট ১২৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট হয়, যার মধ্যে ৮৭ জন ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

শুক্রবার দুপুরে সিআইডির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়েছে।

পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এসব শিক্ষার্থীদের ভর্তি বাতিল করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের করা মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে আরো একটি সক্রিয় চক্রের সন্ধান পায় সাইবার পুলিশ; যারা সরকারি মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত। 

মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে মাঠে নামে সাইবার পুলিশ। 

 

প্রশ্নফাঁস চক্রের কাছ থেকে উদ্ধারকৃত বিভিন্ন ব্যাংকের চেক- ছবি: সংগৃহীত

প্রশ্নফাঁস চক্রের কাছ থেকে উদ্ধারকৃত বিভিন্ন ব্যাংকের চেক- ছবি: সংগৃহীত

গত ১৯ জুলাই এস এম সানোয়ার হোসেন নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের চাঞ্চল্যকর সব তথ্য দেয়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় সারাদেশে মেডিকেলের প্রশ্নফাঁস চক্রের মাস্টারমাইন্ড জসিম উদ্দিন, জাকির হোসেন এবং পারভেজ খানকে। পরবর্তীতে নাটোর থেকে গ্রেফতার করা হয় মেডিকেল প্রশ্নফাঁস করা চক্রের আরেকজন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য মোহাইমিনুল বাঁধনকে।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় মিরপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে সাইবার পুলিশ সিআইডি।

গ্রেফতারের সময় জসিমের কাছ থেকে দুই কোটি ৩০ লাখ টাকার চেক এবং পারভেজের কাছ থেকে ৮৪ লাখ টাকার চেক উদ্ধার করা হয়। যেগুলো তারা মেডিকেল ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করেছে।

সিআইডির অনুসন্ধান বলছে, এদের অবৈধভাবে উপার্জিত সম্পদের খোঁজে অনুসন্ধান শুরু করেছে সাইবার পুলিশ। অবৈধভাবে উপার্জিত সম্পদের খোঁজ পাওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করে তাদের সব অবৈধ সম্পদ রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার ব্যবস্থা করবে সাইবার পুলিশ।

সিআইডি বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। সেই মেরুদণ্ড শক্তিশালী রাখতে প্রশ্নফাঁস বন্ধের কোনো বিকল্প নেই। গত কয়েক বছরে সাইবার পুলিশের টানা অভিযান এবং আসামি গ্রেফতারের ফলে প্রশ্নফাঁসের সংবাদ পাওয়া যায়নি। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মামলার মতো এবারও সাইবার পুলিশ যারা প্রশ্নফাঁসের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছে তাদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এসব আসামিদের ধরতে সাইবার পুলিশ বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানগুলোর নেতৃত্বে ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুল আহসান, এএসপি সুমন কুমার দাস, এএসপি জুয়েল চাকমা, এএসপি কাজী আবু সাঈদ এবং এএসপি ফাতেমা-তুজ-জোহরা।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর