ব্রেকিং:
দেশে ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ২৪২৩, মৃত্যু ৩৫ সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহারে প্রধানমন্ত্রীর ৩ দফা প্রস্তাব পেশ প্রধানমন্ত্রীর ৫ নির্দেশনা গার্ডিয়ানে শেখ হাসিনার নিবন্ধ বিজিবিতে যুক্ত হলো অত্যাধুনিক জলযান ৮ জুন ঢাকায় আসবে চীনের করোনা বিশেষজ্ঞ দল পছন্দের শিক্ষকের পাঠদান এখন মোবাইলে অতীতের সব রেকর্ড ছাপিয়ে সর্বোচ্চ রিজার্ভ করোনা ভাইরাসের মধ্যেও থেমে নেই মেগা প্রকল্প ঘরে বসে ২ মিনিটেই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ৭ উন্নয়ন সহযোগীর কাছ থেকে সহায়তা পাচ্ছে বাংলাদেশ আ. লীগ সর্বাত্মক শক্তি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে করোনা যোদ্ধাদের স্যালুট জানিয়ে দেয়ালচিত্র জীবাণু শঙ্কা-প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিরোধে সদা সচেষ্ট প্রধানমন্ত্রী অতিরিক্ত ভাড়া আদায়কারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা জীবনবাজি রেখে মাঠ পযায়ে কাজ করছে পরিবার পরিকল্পনা কর্মীরা করোনায় ফেনীর কাস্টমস কর্মকর্তার মৃত্যু নোয়াখালীতে ৪ নার্সসহ আরও ৫৯ জনের করোনা সেনবাগে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু দেশে ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ২৬৯৫, মৃত্যু ৩৭
  • শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২২ ১৪২৭

  • || ১২ শাওয়াল ১৪৪১

১৫৬১৯

পরিবর্তন চাই নাকি উন্নয়ন?

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

পরিবর্তন চাই বলে যারা গলা ফাটাচ্ছেন তাদের জন্য কিছু কথা। বিএনপি যদি ক্ষমতায় আসে তবে তাদের কাজ কি হবে? আগামী পাঁচ বছর তারা কি করবে? চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১ম বছরঃতাদের নেত্রী যিনি কিনা দন্ডপ্রাপ্ত হওয়ার কারনে নির্বাচনে অংশগ্রহনের বৈধতা হারিয়েছেন তাকে জেল থেকে বের করবে। এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, বিএনপি নির্বাচিত হওয়ার ৭২ ঘন্টার ভিতরেই খালেদা জিয়াকে বের করে প্রধানমন্ত্রী বানানো হবে। দুর্নীতি, অর্থ পাচার ও সন্ত্রাসী হামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক রহমানকে জামিনে লন্ডন থেকে দেশে নিয়ে আসবে। তার পর মা-ছেলে মিলে দেশ ধ্বংসের নীলনকশা তৈরীতে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। আর দেশের উন্নয়ন? সেটা করার জন্য তো আরও ৪ বছর আছেই। 

২য় বছরঃস্বাধীনতা বিরোধী, দুর্নীতি, ধর্ষন, মাদক ব্যবসা, হত্যা, ছিনতাই,রাহাজানি ইত্যাদি মামলায় তাদের যত নেতাকর্মী জেলে আছে বা দন্ডপ্রাপ্ত হয়েছে তাদের সকলকে জামিনে মুক্ত করবে। আইন পরিবর্তন করে তাদের মুক্ত করতে করতে ১ বছর বা তার বেশী সময়ও লাগতে পারে। উন্নয়নের জন্য তো আরো তিন বছর আছেই।

৩য় বছরঃ গত দশ বছরে যে সকল নেতাকর্মী আদর্শ বিসর্জন দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছে তাদেরকে আবারও নিজেদের আদর্শে উজ্জ্বিবিত করে দলে ফিরিয়ে এনে দলকে ভারি করবে। বাকি দুই বছর দেশ নিয়ে চিন্তা করা যাবে।

৪র্থ বছরঃ নেতাদের জেল থেকে মুক্ত করতে, নেতাদের নিজ ডেরায় ফিরিয়ে আনতে তারা যে পরিমান অর্থ খরচ করেছে সেই অর্থগুলো পুনরায় নিজেদের পকেটে পুরতে তারা তাদের দিন রাত এক করে দেবে। দেশের কথা ভাবার সময় কোথায়?

৫ম বছরঃ এবার তারা চিন্তা করবে সামনে নির্বাচন, নির্বাচনের খরচ যোগাতে হবে। সেজন্য আরও বেশী করে লুটতরাজ, দুর্নীতি চালিয়ে যাবে আর হামলা,মামলা ও হত্যার মতো ঘটনা ঘটিয়ে বিরোধী শক্তিকে দমন করে পুনরায় কিভাবে ক্ষমতায় আসা যায় সেই চিন্তায় লিপ্ত থাকবে । দেশের উন্নয়ন নিয়ে ভাবার সময় কোথায়?

তাহলে দেশের কি হবে? উন্নয়নের কি হবে? দেশ এগিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে পিছিয়ে যাবে আরও ১০ বছর।কারন বিএনপি উন্নয়ন নয় ভোগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী।

আপনার আমার ভোটেই সরকার গঠিত হয়। কোনো দলের হয়ে চিন্তা না করে দেশের হয়ে একবার চিন্তা করে দেখুন তো, দেশের সেবা করার নামে আমরা কি দেশকে লুটেরাদের হাতে তুলে দেবো? নাকি যারা প্রকৃতপক্ষেই দেশের উন্নয়ন করতে চায় তাদেরকে আবারও সুযোগ দিবো? সিদ্ধান্ত আপনার, আমার, আমাদের নিজেদের।আমরা দেশের উন্নয়ন চাই, দেশকে দূর্নীতিবাজদের হাতে দেখতে চাই না।