ব্রেকিং:
সাতটি আবাসন প্রকল্পের উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর জন্মভিটাতে ফেরা হলো না এরশাদের নববধূ বরণের অপেক্ষায় স্বজনরা, ফিরলেন লাশ হয়ে! নোয়াখালীতে সৌখিন মাছ শিকারীর ভিড় বাংলাদেশে বাড়বে কোরিয়ান বিনিয়োগ রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সহযোগিতার আশ্বাস দক্ষিণ কোরিয়ার বিশ্বের কোন কোন দেশে কয়টি রোবট কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে? বাংলাদেশে অফিস করতে রাজি হয়েছে ফেসবুক কারিগরি ত্রুটি, চন্দ্রগ্রহণ-২ উৎক্ষেপণ স্থগিত দেশের উন্নয়নের চিত্র জাতিসংঘে তুলে ধরলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জেলা প্রশাসকদের ৩১ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়া তিন সমঝোতা-নথি সই দুই ভুয়া চাকরিদাতা গ্রেফতার নোয়াখালীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে সেনাবাহিনী অসাধ্য সাধনের সম্ভাবনা কিউইদের এরশাদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক পারবে কি ইংল্যান্ড, ইতিহাস কি বলে? দেশে অতি ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস সরাসরি বিনিয়োগের জন্য অনুকূল বাংলাদেশ মিন্নির গোপন তথ্য ফাঁস করলেন রিফাতের বাবা

মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ১ ১৪২৬   ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪০

সর্বশেষ:
পদ্মা সেতু নিয়ে গুজবে গ্রেফতার ১ জন অপপ্রচারই বিএনপির পুঁজি: ওবায়দুল কাদের ‘মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা হবে ১৫ হাজার টাকা’ জেলা প্রশাসক সম্মেলন ১৪ জুলাই বাংলাদেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তির প্রশংসায় রানী ম্যাক্সিমা নতুন দুই মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর শপথ ১৩ জুলাই
৫০৬

পবিত্র রমজানে জুমা’র গুরত্ব

প্রকাশিত: ১০ মে ২০১৯  

রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে এসেছে পবিত্র মাহে রমজান। এটি অফুরন্ত ফজিলতের মাস। 

রমজান মাসে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজসহ তারাবি, তাহাজ্জুদ, সুন্নত ও নফল নামাজ আদায়ের গুরুত্ব অনেক বেশি। তবে রমজান মাসের জুমাবার; মুসলমানদের জন্য আরো বেশি ফজিলত ও গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন। 

জুমাবার: ইসলামের দৃষ্টিতে দিনটি অনেক বরকতময় ও তাৎপর্যপূর্ণ। আল্লাহ এ দিনকে অন্যান্য দিনের ওপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন। আল্লাহ তায়ালা এই দিনের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে কোরআনে ইরশাদ করেন, 

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا نُودِي لِلصَّلَاةِ مِن يَوْمِ الْجُمُعَةِ فَاسْعَوْا إِلَى ذِكْرِ اللَّهِ وَذَرُوا الْبَيْعَ ذَلِكُمْ خَيْرٌ لَّكُمْ إِن كُنتُمْ تَعْلَمُونَ

‘মুমিনগণ! জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর ইবাদতের জন্য দ্রুত যাও এবং বেচাকেনা বন্ধ করো। এটা তোমাদের জন্য উত্তম, যদি তোমরা বোঝ।’ (সূরা: জুমুআ, আয়াত: ৯)

হাদীসে জুমাবার তথা শুক্রবারকে সাপ্তাহিক ঈদের দিন বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এসব বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য করে ইসলামী চিন্তাবিদরা বলেন, শুক্রবারের জুমার নামাজসহ বিভিন্ন  ইবাদত-বন্দেগির গুরুত্ব অনেক বেশি। তবে রমজান মাসের শুক্রবার হওয়ায় এর তাৎপর্য আরো বহুগুণ বেশি।

জুমার দিন মসজিদে উত্তম পোশাক পরিধান করে যেতে বলা হয়েছে। সে সঙ্গে হাদীসে নিষেধ করা হয়েছে পরে এসে মুসলি্লদের ঠেলে কাতারের সামনের দিকে যেতে। এমনকি, কাউকে তুলে দিয়ে সেখানে বসতেও নিষেধ করা হয়েছে। এ বিষয়ে রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘জুমার নামাজে তিন ধরনের লোক হাজির হয়।

(১) এক ধরনের লোক আছে, যারা আল্লাহর মসজিদে প্রবেশের পর তামাশা করে, তারা বিনিময়ে আল্লাহর পক্ষ থেকে তামাশা ছাড়া কিছুই পাবে না;

(২) দ্বিতীয় আরেক ধরনের লোক আছে, যারা জুমায় হাজির হয় সেখানে কিছু দোয়া-মোনাজাত করে, ফলে আল্লাহ যাকে চান, তাকে কিছু দেন আর যাকে ইচ্ছা দেন না এবং

(৩) তৃতীয় প্রকার লোক হলো যারা জুমায় হাজির হয়, চুপচাপ থাকে, মনোযোগ দিয়ে খুতবা শোনে, কারোর ঘাড় ডিঙিয়ে সামনে এগোয় না, কাউকে কষ্ট দেয় না, তাদের দুই জুমার মধ্যবর্তী সাত দিনসহ আরো তিন দিন যোগ করে মোট ১০ দিনের গুনাহ আল্লাহ মাফ করে দেন।’ (আবু দাউদ শরিফ)

শুক্রবারে বিশেষ করণীয় হলো সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করা। এই সূরা তেলাওয়াতের ফজিলত অনেক বেশি। হাদীসে বলা হয়েছে, ‘যারা জুমার দিন সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে, আল্লাহ তাদের জন্য একটা নূর সৃষ্টি করবেন, যা কেয়ামতের দিন তাদের জন্য আলোর কারণ হবে।’ শুক্রবারের ফজিলত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সা.) অনেক হাদীস বর্ণনা করেছেন। সে সঙ্গে উল্লেখ করেছেন এ দিনের কিছু আমলের কথা, যে আমলের পরিপ্রেক্ষিতে মানুষ আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করতে সক্ষম হয়। শুক্রবারে মসজিদে গিয়ে আমাদের কর্তব্য হলো, ইমামের কাছাকাছি বসার চেষ্টা করা, চুপচাপ খুতবা শোনা, সামর্থ্য অনুযায়ী দান-খয়রাত করা, রাসূলুল্লাহর (সা.) প্রতি বেশি বেশি দরুদ পাঠ করা ও আল্লাহর কাছে প্রচুর পরিমাণে দোয়া করা। কারণ হাদীসে বলা হয়েছে, ‘জুমার দিনে এমন একটি সময় আছে, যখন বান্দা আল্লাহর কাছে যা চায়, তা-ই তাকে দেয়া হয়। আর এ সময়টি হলো জুমার দিন আসরের পর থেকে মাগরিব পর্যন্ত। (সহিহ বোখারি)

জুমার নামাজে মুসলি্লরা যাবতীয় কাজকর্ম স্থগিত রেখে মসজিদ অভিমুখে গমন করেন এবং সবাই একত্রে জামাতে নামাজ আদায় করেন। এভাবে মসজিদে নামাজ পড়তে এলে তাদের পরস্পরের মধ্যে বিশেষ সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। গড়ে ওঠে সামাজিক ভ্রাতৃত্ব, শৃঙ্খলা, নিয়মানুবর্তিতা, পারস্পরিক হৃদ্যতা ও সম্প্রীতি। আর মানুষের প্রতি রোজার বিধান প্রদানের উদ্দেশ্যই হলো, মানুষের মধ্যে উলি্লখিত গুণগুলো সৃষ্টি করা।

নোয়াখালী সমাচার
নোয়াখালী সমাচার
এই বিভাগের আরো খবর