ব্রেকিং:
দেশে একদিনে আরো ৩০ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৮৬ ভ্রুণ হত্যার অভিযোগে হোমিও চিকিৎসকসহ গ্রেফতার ৪ ‘ডিআইজি নয়, আমি আইজিপিকেও পরোয়া করি না’!! করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসকের সঙ্গে এ কেমন আচরণ! কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার সিগারেট বিক্রি নিয়ে তর্ক, দক্ষিণ আফ্রিকায় নোয়াখালীবাসীকে গুলি ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনে হুমকিতে বিদ্যালয়, সড়ক,বসত বাড়ী বৈশ্বিক সঙ্কটে নারীদের সুরক্ষা মতিঝিলে হবে ২৫ তলাবিশিষ্ট বঙ্গবন্ধু চা ভবন অতিরিক্ত ২ মাসের বেতন পাচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করা হবে দেশের ৬৬০ ওসিকে কঠোর বার্তা ৪ হাসপাতালের তথ্য তলব দুদকের ১৪ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ‘কালো তালিকাভুক্ত’ ৩১ বছর পর এবার কাঁচা চামড়া রপ্তানি! ক`জন সমালোচক মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন? সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক দুর্নীতিবাজ যেই হোক ব্যবস্থা নিচ্ছি ত্রাণ বিতরনে বেগমগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ডিম খাওয়ার জন্য পালিত কন্যাকে পৈশাচিক নির্যাতন
  • শনিবার   ১১ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪১

১৪৮৫

পঞ্চাশ বছরে নোয়াখালীর আয়তন বেড়েছে ৭৩ কিলোমিটার

নোয়াখালী সমাচার

প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০২০  

নোয়াখালীর ভৌগলিক অবস্থানের কারণে এর আয়তন বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত কয়েক যুগ ধরেই এই আয়তন বাড়ছে। নোয়াখালী জেলায় গত পঞ্চাশ বছরে ৭৩ কিলোমিটার (২8 বর্গ মাইল) বেশি জমি জেগে উঠেছে নদীগর্ভ থেকে। মেঘনা মোহনায় পলিমাটি জমা হয়ে পলিমাটির  যে চর গুলো জেগে উঠেছে সেগুলোর পরিমাণ ৭৩ কিঃমি। ধীরে ধীরে এটি আরো বাড়ছে।

নোয়াখালীর ভৌগলিক অবস্থান যদি বিবেচনা করি তাহলে এর উত্তর দিকে রয়েছে কুমিল্লা জেলা, দক্ষিণে রয়েছে মেঘনার মোহনা আর বঙ্গোপোসাগর। এই জেলার পূর্বে রয়েছে ফেনী ও চট্টগ্রাম জেলা আর পশ্চিমে লক্ষ্মীপুর ও ভোলা জেলা। যদিও পূর্বে ফেনী, নোয়াখালী আর লক্ষ্মীপুর নিয়ে একটিই জেলা ছিল। কিন্তু প্রশাসনিক কাজের অগ্রগতির লক্ষ্যে এটিকে তিনটি জেলায় রূপান্তর করা হয়েছে। বর্তমানে ফেনী ও লক্ষ্মীপুর  আলাদা জেলা হিসেবে বিবেচিত হলেও তাদের নোয়াখালীর সাথে রয়েছে আত্মার সর্ম্পক। তাদের আচরণ -ব্যবহার ও ভাষাগত বৈশিষ্ট্য একই রকম।

নোয়াখালী জেলার আয়তন ৪২০২ বর্গ কিঃমি বা ১৬২২ বর্গমাইল। এটি সমতল ভূমি ও উপকূলীয় অঞ্চল নিয়ে গঠিত।মেঘনা নদীর মোহনা জোয়ারের প্রভাবে এটি নতুন ভূমি সৃষ্টি করছে। নোয়াখালী অঞ্চলটি জোয়ার ভাটা দ্বারা প্রভাবিত হয়। বিশেষ করে উপকূলীয় অঞ্চরৈ প্রায়ই জোয়ার ভাটার প্রভাব বিস্তার করে থাকে। তবে ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে এর জোয়ার ভাটারও এর কম বেশী হয়।বর্ষাকালে জোয়ার সবচেয়ে বেশী থাকে।

নোয়াখালীর তিনদিকে একটি বিরাট আকারের সমভূমি তৈরি হচ্ছে।মেঘনা নদীর মোহনায় দীর্ঘকাল ধরে  নদীর পলি জমা হয়ে পললভূমির মাটি গঠিত হচ্ছে। হিমালয় থেকে নেমে আসা তীব্র স্রোত উর্বর পলি বহন করে নিয়ে আসে ।যখন এটি বঙ্গোপসাগর পৌঁছায় তখন উপকূল বরাবর দ্রবীভূত হওয়ায় ধীরে ধীরে নতুন ভূমি তৈরি হয় যেগুলোকে আমরা “চর” নাম দিয়ে থাকি। যেহেতু এটি মেঘনার মোহনায় অবস্থিত তাই প্রতিনিয়নত পলি মাটির কারণে এর উর্বরতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।ফলে এইগুলো চাষাবাদের জন্য বেশ উপযোগী হয়।

নোয়াখালীর জলবায়ু হলো গ্রীষ্মমন্ডলীয় জলবায়ু। বছরের বেশিরভাগ সময়ে এখানে উল্লেখযোগ্য হারে বৃষ্টিপাত হয়। নোয়াখালীতে গড় গড় তাপমাত্রা ২৫.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত প্রায় ৩৩০২ মিলি মিটার বা ১৩০ ইঞ্চি।

এই অঞ্চলের মে মাসে সবচেয়ে বেশী উষ্ণতা থাকে।তখন তাপমাত্রা গড়ে ৪৫.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে। আর জানুয়ারি মাস হলো সবচেয়ে বেশী শীতের সময়, তখন গড় তাপমাত্রা ১৯.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস হয়। এখন পর্যন্ত জুলাই মাসেই বৃষ্টিপাতের সর্বোচ্চ গড় ৬৭১ মিমি ছিল।

নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর